টাইগারদের সাফল্যের রহস্য জানালেন তাইজুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৫৮ পিএম, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

রীতিমত স্বপ্নের ফর্মে রয়েছে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়েতে সফল সফর শেষ করে আসার পর ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া, এবার নিউজিল্যান্ডকেও নাকানি চুবানি খাওয়াচ্ছে টাইগাররা।

অস্ট্রেলিয়াকে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ৪-১ ব্যবধানে হারায় বাংলাদেশ। এবার নিউজিল্যান্ডের সাথে একই ফরমেটে টানা দুই ম্যাচে পেয়েছে জয়। বাকি তিন ম্যাচের একটি জিতলেই সিরিজ নিশ্চিত।

কিন্তু টাইগারদের এমন সাফল্যের রহস্যটা কী? দলে সুযোগ না পেলেও ড্রেসিংরুমের আবহাওয়াটা ভালোই উপভোগ করছেন তাইজুল ইসলাম। বাঁহাতি এই স্পিনার বলেন, ‘আমার মনে হয় আমাদের সফল হওয়ার কারণ আত্মবিশ্বাস। আমাদের ব্যাটসম্যান, বোলার কিংবা ফিল্ডার; যখন মাঠে নামে সবার মধ্যে আত্মবিশ্বাস থাকে। সবাই টিমম্যান হিসেবে খেলছে। আমার কাছে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে এটাই। সবাই নিজের দায়িত্বটা নিজের মতো করে পালন করছে।’

তাইজুল জানান, ঘরের মাঠে কিছুটা সুবিধা পাচ্ছে বাংলাদেশ। কিন্তু জিম্বাবুয়ের কন্ডিশন তো সহজ ছিল না। সেখানেও ভালো করেছে দল। আসলে সবাই মিলে পারফরম্যান্সটা দিতে পারছে বলেই সাফল্য আসছে।

তার কথা, ‘আমাদের ব্যাটসম্যান, বোলার সবাই ভালো করছে। (জিম্বাবুয়ে সফর থেকে) দেশে এসে আলাদা কন্ডিশন পাওয়ায় আমাদের কাজটা কঠিন ছিল, অস্ট্রেলিয়ার জন্যও কঠিন ছিল। তারপরও আমাদের ব্যাটসম্যান-বোলাররা সবকিছু ঠিকঠাক করতে পেরেছে এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আমরা সিরিজটা জিততে পেরেছি। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও আমরা দুই ম্যাচ জিতলাম। দলের আত্মবিশ্বাস এখন বেশ ভালো এবং এই আত্মবিশ্বাস নিয়েই আমরা সামনে এগোতে চাইছি।’

বাংলাদেশের সাফল্যের পেছনে কী উইকেটের অবদানই বেশি? তাইজুল সেটা মানতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘স্পিন-সহায়ক উইকেট হলেই যে আপনি পাঁচটা-সাতটা করে উইকেট পাবেন, এটা ভুল ধারণা। কারণ স্পিন উইকেটই হোক কিংবা ফ্ল্যাট উইকেট, ভালো জায়গায় বল করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমার মনে হয়, আমাদের বোলাররা শৃঙ্খলার মধ্যে থেকে আত্মবিশ্বাস নিয়ে বল করে যাচ্ছে। এজন্য সাকিব ভাই, নাসুম, মেহেদি এবং পেস বোলাররা ভালো করে যাচ্ছে। এটা দলের জয়ে সহায়ক হচ্ছে।’

দলের সঙ্গে থাকলেও সুযোগ পাচ্ছেন না, মন খারাপ হয় কী? তাইজুল এসব নিয়ে ভাবেন না। তিনি বলেন, ‘আসলে নিজের থেকে দলের স্বার্থকেই আমি অনেক বড় করে দেখি। দল ভালো করছে, এটা অনেক ভালো লাগার বিষয়। আমার যারা প্রতিদ্বন্দ্বী তারা অনেক ভালো করছে। আশা করি, সামনেও তারা অনেক ভালো করবে। আর আমি যখনই সুযোগ পাব, ভালো করার চেষ্টা করব, বাংলাদেশকে ভালো কিছু দেওয়ার চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ।’

এমএমআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]