পিচের কারণে ম্যাচে সুযোগ হচ্ছে না তাসকিন-শরিফুলের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:৪১ পিএম, ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের চারটি হয়ে গেছে। শুরুতে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে তৃতীয় ম্যাচে হোঁচট খেলেও চার নম্বর ম্যাচে আবার নিজেদের ফিরে পেয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। বুধবার ৬ উইকেটে জিতে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করেছে টাইগাররা।

কিন্তু একটা বিষয় চোখে পড়েছে অনেকেরই। তা হলো পুরো সিরিজে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ দলে একটি পরিবর্তনও হয়নি। চলতি সিরিজের জন্য জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকা ১৯ জনের মধ্যে সেই প্রথম ম্যাচে শেরে বাংলায় যে ১১ জন খেলতে নেমেছেন, বুধবার পর্যন্ত তারাই টানা চার ম্যাচ খেলেছেন। আর কেউ সুযোগ পাননি।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য যে ১৫ জনের দল ঘোষণা করা হয়েছে, সেই বহরের চারজন তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, সৌম্য সরকার আর শামিম পাটোয়ারি একবারের জন্যও মাঠে নামতে পারেননি। তাসকিন শুধু এ সিরিজেই নয়, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও স্কোয়াডে থেকে কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ পাননি।

গত ২৫ জুলাইয়ের পর থেকে আর খেলার ভেতরে নেই দ্রুতগতির এ পেসার। আর গত মাসের ৯ তারিখে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে চতুর্থ ম্যাচের পর শরিফুলও কোনো ম্যাচ খেলেননি। ঐ দুজন ছাড়া সৌম্য সরকারও এখন পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলার সুযোগ পাননি।

সামনে টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। দলে থাকা চার পেসারের দুজন খেলার বাইরে। শুধু প্র্যাকটিস করে যাচ্ছেন, সেটা কেন? এতে করে তাদের কি ম্যাচ প্র্যাকটিসে ঘাটতি থেকে যাচ্ছে না? খুবই প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন। আজ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের স্কোয়াড ঘোষণার সময় উঠলো এ প্রশ্ন।

এ বিষয়ে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু মনে করেন, ‘নাহ, খেলা হচ্ছে না বলেই যে তারা তৈরি না- তা ভাবা কেন? ১৫ জনের স্কোয়াডে সবাই কিন্তু একাদশে থাকবে না। সবাইকে একসঙ্গে খেলানোও সম্ভব না। সবাই দলের সঙ্গে আছে, প্র্যাকটিস করছে, তৈরিই আছে। যখন যাকে দরকার হবে তাকেই খেলানো হবে।’

তবে আসলে কেন তাসকিন, শরিফুল চলতি সিরিজেও কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নি?- তার ব্যাখ্যা দিয়েছেন প্রধান নির্বাচক। তার ব্যাখ্যা শুনে মনে হলো, আসলে ঘরের মাঠে স্লো ও লো পিচ দেখেই সুযোগ পাচ্ছেন না দুই দ্রুতগতির বোলার তাসকিন ও শরিফুল। দেশের বাইরে তিন পেসার খেলানোর মতো পরিবেশ পেলে তাদেরকে ঠিকই বিবেচনায় আনা হবে।

নান্নু বলেন, ‘আমরা নির্দিষ্ট সিরিজে পরিবেশ-পরিস্থিতি মানে উইকেটের চরিত্র ও গতিপ্রকৃতি বুঝে, প্রতিপক্ষ দলের শক্তি-সামর্থ্য মাথায় রেখে গেম প্ল্যান করি। দলও সাজানো হয় সেসব ভেবেই। কাজেই কেউ ঐ কন্ডিশনের সঙ্গে স্যুট না করলে বা টিম কম্বিনেশনের বাইরে থাকা মানেই একদম বাইরে পড়ে যাওয়া নয়।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমরা ঘরের মাঠে দুজন পেস বোলার নিয়ে খেলি। বাইরে গিয়ে তিন পেস বোলার ব্যবহার করি। সেসব মাথায় রেখেই দল সাজাতে হচ্ছে। ঐটা মাথায় রেখেই প্লেয়ারদের তৈরি করা হয়। শেরে বাংলার বর্তমান পিচ স্লো বোলারদের জন্য আদর্শ। এখানে গতি কমিয়ে বুদ্ধি খাটিয়ে স্লো বল করা, বলে বৈচিত্র আনাটাই হলো মূল কাজ। যারা এই কন্ডিশনের জন্য উপযোগী তাদেরকেই তাই বেশি সুযোগ দেয়া হয়েছে। আবার জায়গামতো ঠিকই হয়তো তাসকিন-শরিফুলদের বেছে নেয়া হবে।’

এআরবি/এসএএস/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]