যে কারণে ভারতের কোচ হওয়ার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন জয়াবর্ধনে

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:১৫ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর রবি শাস্ত্রী আর ভারতের হেড কোচ থাকছেন না। ইতিমধ্যেই তার স্থলাভিষিক্ত খোঁজার কাজ শুরু করে দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই)।

অনিল কুম্বলের নামটিই জোরেসোরে শোনা যাচ্ছে। কুম্বলে এর আগেও ভারতের হেড কোচ ছিলেন, বিরাট কোহলির সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় কোচের পদ ছাড়তে হয়েছিল তাকে।

‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের’ প্রতিবেদন থেকে উঠে এলো আরেকটি তথ্য, কুম্বলের সঙ্গে যোগাযোগ করার আগেই বিসিসিআই প্রস্তাব দিয়েছিল শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান মাহেলা জয়াবর্ধনেকে। কিন্তু জয়াবর্ধনে সেই প্রস্তাব নাকচ করে দেন।

কিন্তু কেন? ভারতীয় দলের কোচ হওয়ার প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়া কি এত সহজ? আকাশছোঁয়া বেতন, অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা তো আছেই, কোচদের কাছে ভারতের চাকরি সবসময়ই লোভনীয়।

তবে জয়াবর্ধনের ব্যাপারটা আলাদা। জানা গেছে, জয়াবর্ধনে নাকি শ্রীলঙ্কা দলের কোচ হতে আগ্রহী। এটিই অবশ্য মূল কারণ নয়। ভারতের হেড কোচ হওয়ার পথে বাধা আছে আরেকটি।

জয়াবর্ধনে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) দল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কোচ। বিসিসিআইয়ের নিয়ম অনুযায়ী, ভারতীয় দলের হেড কোচের দায়িত্ব পালন করা কোনো ব্যক্তি অন্য কোনো পদ ধরে রাখতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে ভারতের কোচ হলে জয়াবর্ধনে ছাড়তে হবে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের দায়িত্ব।

দুই এক মাস কাজ করে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে যে বেতন পাওয়া যায়, কোনো কোচই চাইবেন না সেটা পায়ে ঠেলে দিতে। শ্রীলঙ্কার পক্ষে ১৪৯ টেস্ট এবং ৪৪৮ ওয়ানডে খেলা জয়াবর্ধনেও তাই ভারতের কোচ হওয়ার ভাবনা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলেছেন।

এমএমআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]