বিসিবি নির্বাচন : কাউন্সিলরশিপ জমা দিলেন সুজনসহ ১০ ক্রিকেটার

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৭:০৫ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

আজ বিকেল ৩টার দিকে সাবেক জাতীয় ক্রিকেটার হাসিবুল হোসেন শান্তর ফেসবুক পেজে একটি ছবির দিকে চোখ আটকে গেছে অনেকের। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিসিবি অফিসের সামনে এক ঝাঁক সাবেক ক্রিকেটার সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে।

যেখানে দেখা যাচ্ছিল জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু, খালেদ মাহমুদ সুজন, হাবিবুল বাশার সুমন, রাজিন সালেহ, সাবেক পেসার হাসিবুল হোসেন শান্ত, বাঁহাতি স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক, ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স, হান্নান সরকার, তালহা জুবায়েরসহ ১০ ক্রিকেটারের হাসিমুখ।

হঠাৎ কী কারণে ওই ১০ ক্রিকেটার একসঙ্গে হোম অব ক্রিকেটে? সামনে কি সাবেক ক্রিকেটারদের কোনো টুর্নামেন্ট আছে? কিংবা ওই সাবেক ক্রিকেটাররা কি কোনো সংগঠনভুক্ত হয়েছেন বা হতে যাচ্ছেন? নানা কৌতূহলি প্রশ্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। উত্তর খুঁজতে গিয়েই জানা গেলো আসল খবর।

ছবিটিতে যাদের দেখা যাচ্ছে, তারা এমনি এমনি জমায়েত হননি বিসিবি অফিসে। সামনে বিসিবি নির্বাচন। সেই নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় কোনো না কোনোভাবে আছেন ওই ক্রিকেটাররা। এর মধ্যে হাসিবুল হোসেন শান্ত ছাড়া সবাই বিসিবির আসন্ন নির্বাচনের কাউন্সিলর এবং রোববার তারা কাউন্সিলর ফর্ম জমা দিলেন।

বলার অপেক্ষা রাখে না, ওই কাউন্সিলর ফরম জমা দেয়া ক্রিকেটারদের অন্যতম হলেন বর্তমান পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন। আজ বিকেলে জাগো নিউজের সাথে আলাপে খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘আজ আমরা ১০ সাবেক ক্রিকেটার কাউন্সিলরশিপ ফরম জমা দিলাম। ইনশাআল্লাহ নির্বাচন করবো। তাই কাউন্সিলরশিপ জমা দিলাম।’

সুজন আরও জানান, তিনি বিসিবি নির্বাচনে ক্যাটাগরি ‘৩’ থেকে নির্বাচন করবেন। যেখানে মোট ভোটার ৪৫ জন। গতবার এই ক্যাটাগরির ভোটার সংখ্যা ছিল ৪৩ জন। এবার দুটি ভোটার বাড়ানো হয়েছে।

এই ক্যাটাগরির মধ্যে আছেন জাতীয় দলের সাবেক পাঁচ অধিনায়ক রকিবুল হাসান, মিনহাজুল আবেদিন নান্নু, ফারুক আহমেদ, হাবিবুল বাশার সুমন ও রাজিন সালেহ; দশ সাবেক ক্রিকেটার খালেদ মাহমুদ সুজন, সেলিম শাহেদ, সাজ্জাদ আহমেদ শিপন, আহসানউল্লাহ হাসান, নাফিস ইকবাল, হান্নান সরকার, আব্দুর রাজ্জাক, আজম ইকবাল, তালহা জুবায়ের ও ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স।

এছাড়া ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন- কোয়াবের একজনও থাকবেন। বাকি সব কাউন্সিলর বা ভোটার হবেন সব সার্ভিসেস, বিশ্ববিদ্যালয়, শিক্ষা বোর্ড ও বিকেএসপি থেকে। এই ৪৫ জন ভোটার থেকে নির্বাচিত হবেন একজন পরিচালক।

খালি চোখে মনে হতে পারে এই ৪৫ জনের যে কেউ বুঝি নির্বাচন করতে পারবেন। আসলে তা নয়। এদের মধ্যে যে ৫ জন সাবেক জাতীয় দলের অধিনায়কের কোটায় কাউন্সিলর হয়েছেন, তারা নির্বাচন করতে পারবেন না। সংবিধান ও নির্বাচনী গঠনতন্ত্রে তেমনটাই বলা আছে।

তবে সাবেক ক্রিকেটারদের কোটায় যে ১০ জন কাউন্সিলর হবেন, তাদের যে কেউ নির্বাচন করতে পারবেন। এখন পর্যন্ত সেখান থেকে শুধু খালেদ মাহমুদ সুজনেরই নির্বাচন করার কথা শোনা গেছে।

এদিকে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলটও এবার কাউন্সিলর হয়েছেন। তিনি গত ১১ সেপ্টেম্বর রাজশাহী থেকে কাউন্সিলরশিপ তুলেছেন। সেটা সেটা অবশ্য অন্য ক্যাটাগরি। পাইলট কাউন্সিলর হয়েছেন জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা ক্যাটাগরি থেকে।

এআরবি/এসএএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]