তামিমের অভাব পূরণ করতে পারবেন নাইম?

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:০৩ এএম, ১৩ অক্টোবর ২০২১

মাত্র দুই বছরের ঘরোয়া ক্রিকেট ক্যারিয়ার। তাতেই নির্বাচকদের নজর বেশ ভালো করেই কাড়েন নাইম শেখ। ২০১৮ সালে বাংলাদেশের যুব বিশ্বকাপ দলের অংশ ছিলেন নাইম। এরপর ডিপিএলে লিজেন্ড অব রূপগঞ্জের হয়ে ব্যাট হাতে আলোড়ন তুললে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি এই বাঁ-হাতি ওপেনারকে।

বিশ্বকাপের আগে হঠাৎ করে নিয়মিত ওপেনার তামিম ইকবালের সরে দাঁড়ানোর কারণে বাংলাদেশ দলের ওপেনিং জুটি নিয়েই দুশ্চিন্তা তৈরি হয় টিম মেনেজমেন্টের মধ্যে। তামিম একটি জায়গায় ছিলেন নির্ভরতার প্রতীক। সেখানে তিনি না থাকা মানে বিশাল ঘাটতি। এই জায়গাটা পূরণ করতে হবে নাইম শেখকেই। পারবেন কী তিনি এই অভাব পূরণ করতে? তামিমের বোঝা মাথায় নিয়ে খেলতে নেমে পারবেন কী এই অভাবটা পূরণ করতে?

বাংলাদেশের জার্সি গায়ে নাইমের পথচলা শুরু টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট দিয়ে। এখন পর্যন্ত, ওই টি-টোয়েন্টিই খেলেছেন সবচেয়ে বেশি। টেস্টে অভিষেক হয়নি, ওয়ানডে ম্যাচ খেলার সংখ্যা মাত্র দুটি। নাইমকে মূলতঃ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে লক্ষ্য করেই গড়ে তোলা হচ্ছিল।

তবে এই টি-টোয়েন্টিতেই নাইমের স্ট্রাইকরেট যাচ্ছেতাই, ১০৫.৯৪! বর্তমান যুগে অনেকের ওয়ানডেতেও এর ভালো স্ট্রাইকরেট আছে। এ নিয়ে নাইমের সমালোচনাও হচ্ছে প্রতিনিয়ত। তবে নাইম বলছেন এসব নিয়ে মাথা ঘামান না তিনি। মিরপুরের উদাহরণ টেনে বলছিলেন, ‘আমি স্বাভাবিক খেলার চেষ্টাই করি। আগেও বলেছি, মিরপুরের কন্ডিশনে কোনো ব্যাটসম্যানকে জাজমেন্ট করা ঠিক হবে না। এই মুহূর্তে এতটুকুই বলতে পারি, আমার স্ট্রাইক রেট নিয়ে বিশ্বকাপের পর কথা বলবো।’

নাইমের ব্যাটিংয়ের মূল মাথা ব্যথার জায়গা উইকেটে সেট হওয়ার পর তার আউট হয়ে যাওয়া। শুরুতে দেখেশুনে খেলে উইকেটে নাইম সেট হন, পরে মেরে খেলতে গেলেই আউট। এ ছাড়াও ডট বল খেলার প্রবণতা তার অনেক বেশি। যে কারণেই স্ট্রাইকরেট খুব বাজে তার।

উইকেটে সেট হওয়ার পর ইনিংস বড় করতে না পারার ব্যর্থতা নিয়ে আগে অবশ্য ভাবেননি নাইম। এখানেও তিনি তুলে আনলেন মিরপুরের বোলিং পিচের কথা, ‘মিরপুরের উইকেটে ব্যাটসম্যানদের বিচার করা ঠিক হবে না। কাউকে জাজমেন্ট করলে তার প্রতি অবিচার করা হবে। ভালো উইকেটে খেলা হলে হয়তো আরও ভালো হতো। মিরপুর আর বিশ্বকাপের উইকেট কিন্তু এক হবে না। সুতরাং এগুলো নিয়ে ভেবে লাভ নেই।’

আগের ৬টি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বড় সাফল্য বলতে প্রথম আসরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয়। এরপর আর মূল পর্বে একটি ম্যাচও জেতা হয়নি টাইগারদের। তবে এবার বিশ্বকাপ খেলতে নামার আগে টানা তিন টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়ের সুখস্মৃতি। সুখস্মৃতির সেই আত্মবিশ্বাস আর দলগতভাবে জ্বলে ওঠা গেলে নাইম দেখছেন ভালো কিছুর সম্ভাবনা, অবশ্যই আমাদের ভালো করা সুযোগ আছে। এর আগেও আমাদের সুযোগ ছিল, কিন্তু পারিনি। এবার মনে করি বিশ্বকাপে আমাদের দারুণ সুযোগ রয়েছে। আশা করি, সবাই নিজেদের সেরা ক্রিকেটটা খেলে বিশ্বকাপে ভালো করতে পারবো।

ওমানে বাংলাদেশ প্রথম পর্বের ম্যাচ খেলবে। সেখানকার অপরিচিত কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সবার আগে ক্যাম্প গড়েছিল বাংলাদেশ। খেলেছে একটা প্রস্তুতি ম্যাচও। সংযুক্ত আরব আমিরাতেও বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে বাংলাদেশ। তাই সেখানকার কন্ডিশন নিয়ে মোটেও ভাবছেন না নাইম, মোটেও কঠিন হবে না। আমরা ওখানে কয়েকদিন অনুশীলন করবো।

কয়েকটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবো। তাছাড়া সাকিব ভাই, মুস্তাফিজ ভাইয়ের কাছ থেকে ধারণা নেয়ার সুযোগ থাকবে। সব মিলিয়ে পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে এটি কোনও সমস্যাই না।

মোঃ নাইম শেখ, জন্ম: আগস্ট ২২, ১৯৯৯ , রোল: ওপেনিং ব্যাটার, ব্যাটিং স্টাইল: বাঁ-হাতি, টি-টোয়েন্টি অভিষেক: নভেম্বর ৩, ২০১৯ বনাম ভারত।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]