আয়ারল্যান্ডের কাছে বড় পরাজয়ে শেষ বাংলাদেশের প্রস্তুতি

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৪৭ পিএম, ১৪ অক্টোবর ২০২১

ছন্নছাড়া বোলিংয়ের পর দায়িত্বহীন ব্যাটিং- প্রস্তুতি পর্বের শেষ ম্যাচেও জিততে পারলো না বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে ৩৩ রানে হেরেছে লিটন দাসের নেতৃত্বে খেলতে নামা টাইগাররা। প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে শ্রীলঙ্কার কাছেও হেরেছিলো তারা।

আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামের নার্সারি-১'এ আগে ব্যাটিং করে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৭৭ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় আয়ারল্যান্ড। জবাবে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় বাংলাদেশ অলআউট হয়েছে ১৪৪ রানে। অন্যান্যদের হতাশার মাঝে ত্রিশোর্ধ্ব রানের ইনিংস খেলেছেন নুরুল হাসান সোহান ও সৌম্য সরকার।

১৭৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইনিংসের প্রথম তিন ওভারেই তিন উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ম্যাচের অধিনায়ক লিটন দাস ১, বাঁহাতি ওপেনার নাইম শেখ ৩ ও অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহীমের ব্যাট থেকে আসে মাত্র ৪ রান। চতুর্থ উইকেটে ৩৭ রান যোগ করেন সৌম্য ও আফিফ হোসেন ধ্রুব।

কিন্তু রানের গতি বাড়াতে পারছিলেন না তারা। অষ্টম ওভারের পঞ্চম বলে দলীয় ৫২ রানে আউট হওয়ার আগে আফিফ করেন ১৬ বলে ১৭ রান। আগের ম্যাচে অলরাউন্ড পারফর্ম করা সৌম্যর ব্যাট থেকে আজকের ম্যাচে আসে এক চার ও দুই ছয়ের মারে ৩০ বলে ৩৭ রান।

এরপর ব্যর্থ হন শামীম পাটোয়ারীও। ষষ্ঠ ব্যাটার হিসেবে সাজঘরের পথ ধরার আগে ৭ বল খেলে মাত্র ১ রান করেন তিনি। ইনিংসের ১৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬ উইকেটে ৯৬ রান। সেখান থেকে দেড়শ রানের কাছাকাছি যাওয়ার মূল কৃতিত্ব নুরুল সোহানের।

এ উইকেটরক্ষক ব্যাটার ছয়টি চারের মারে ২৪ বলে করেন ৩৮ রান। আর শেষদিকে তাসকিন আহমেদ ১১ বলে ১৪ রানে অপরাজিত থাকলে বাংলাদেশের ইনিংস পৌঁছায় ১৪৪ রানে। এছাড়া মেহেদি হাসান ৯, নাসুম আহমেদ ০ ও মোস্তাফিজুর রহমান করেন ৭ রান।

আয়ারল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন মার্ক এডায়ার। এছাড়া জশ লিটন ও ক্রেইগ ইয়ংয়ের শিকার একটি করে উইকেট।

এর আগে টস জেতা আইরিশদের হয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে টাইগার বোলারদের বড় পরীক্ষা নিয়েছেন গ্যারেথ ডিলানি। তিনে নেমে খেলেছেন অপরাজিত ৮৮ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস।

আবুধাবিতে আজকের ম্যাচেও দলের নিয়মিত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে ছাড়া খেলতে নামে বাংলাদেশ। তবে আইপিএল পর্ব শেষ করে দলে যোগ দেয়া পেসার মোস্তাফিজুর রহমান একাদশে ছিলেন। জাতীয় দলের হয়ে ফেরাটা অবশ্য ভালো হয়নি ফিজের, ৪ ওভার বল করে উইকেটের দেখা তো পাননি, উল্টো রান দিয়েছেন ৪০টি।

মোস্তাফিজের মতো খরুচে বোলিং করেছেন পেসার শরিফুল ইসলাম এবং স্পিনার নাসুম আহমেদও। ৩ ওভার হাত ঘুরিয়ে নাসুম পল স্টার্লিংয়ের উইকেট পান বটে, তবে ওভার প্রতি ১১ করে রান দিয়েছেন ৩৩। শরিফুলের অবস্থা তো আরও বাজে। পাননি কোনো উইকেট, অথচ ৪ ওভারে রান দিয়েছেন ৪১।

বাংলাদেশের সফলতম বোলার, পেসার তাসকিন আহমেদ। ২৬ রানে তিনি নিয়েছেন দুই উইকেট। ইনিংসের প্রথম দুই বলে দুই চার হজম করা তাসকিনের শুরুটা ভালো না হলেও শেষটা হয়েছে দারুণ। আইরিশ অধিনায়ক অ্যান্ড্রু বালবার্নি এবং জর্জ ডকরেলকে সাজঘরে পাঠান তাসকিন।

তবে বাকি বোলারদের ব্যর্থতায় আইরিশদের অল্পতে আটকান যায়নি। স্টার্লিং ২২ এবং বালবার্নি ২৫ করে ফেরার পর আয়ারল্যান্ডকে একাই টানেন ডিলানি। ৩৩ বলে অর্ধশতক পূরণ করার পর আগ্রাসী ব্যাটিং করতে থাকেন তিনি। শেষ ১৭ বলে ৩৮ রান আসে তার ব্যাট থেকে। হ্যারি টেক্টর খেলেন ২৩ বলে ২৩ রানের মন্থর ইনিংস।

এসএএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]