জয়াবর্ধনের ছোঁয়ায় সম্পূর্ণ বদলে গেছে লংকান তারকার ব্যাটিং

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:১৩ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০২১

ক্যারিয়ারে ২২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ফেলেছেন আভিসকা ফার্নান্দো। শ্রীলঙ্কান এই ব্যাটার এই ২২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচের ২১ ইনিংসে ব্যাট করে একটিও ফিফটির দেখা পাননি। সর্বোচ্চ রান কেবল ৩৭; কিন্তু আশ্চর্যজনক হলেও সত্য গত চারটি ম্যাচে তিনবার ফিফটি প্লাস স্কোরের দেখা পেয়েছেন এই লঙ্কান তারকা।

কিভাবে সম্ভব হলো? অনেকেই তার সাম্প্রতিক এই ব্যাটিং দেখে অবাক হয়ে যাচ্ছেন। কোন সে জাদুর কাঠির ছোঁয়ায় এভাবে বদলে গেলেন লঙ্কান তারকা? টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরুর আগে প্রস্তুতি ম্যাচে ওমানের বিপক্ষে অপরাজিত ৮৩, বাংলাদেশের বিপক্ষে অপরাজিত ৬২ এবং পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে খেলেছেন ৬১ রানের ইনিংস। এছাড়া ওমানের বিপক্ষে খেলেছেন আরও একটি ৩৩ রানের ইনিংস।

আভিসকা ফার্নান্দোর ব্যাটে এভাবে রানের নহর বইতে দেখে লঙ্কান সমর্থকরাও আশাবাদী হয়ে উঠেছেন। কারণ, দলটির চার নম্বরে কোনো ব্যাটারই থিতু হতে পারছেন না। আভিসকার এভাবে ফর্মে ফেরার অর্থ, গুরুত্বপূর্ণ একটি পজিশনে লঙ্কান ব্যাটিংয়ের সমস্যা কেটে যাওয়া। যদিও আভিসকা তিন নম্বরেই ব্যাট করে থাকেন। কিন্তু এবারের বিশ্বকাপে তাকে নামিয়ে আনা হচ্ছে চার নম্বর পজিশনে।

তার এই যে পরিবর্তন, এসবই সম্ভব হয়েছে শ্রীলঙ্কান জাতীয় দলের নতুন ব্যাটিং পরামর্শক মাহেলা জয়াবর্ধনের কারণে। আভিসকার ব্যাটিং নিয়ে গভীর মনযোগ দিয়ে কাজ করেন জয়াবর্ধনে।

নামিবিয়ার বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার প্রথম ম্যাচের আগে লঙ্কান কোচ মিকি আর্থার জানান, মাহেলা জয়াবর্ধনে ডাটাগুলো নিয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ করেছেন এবং এ নিয়ে কাজ করার কারণেই আভিসাকর এমন উন্নতি ঘটেছে।

আর্থার বলেন, ‘আভিসকা নাম্বার চারে নামতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। আমাদের আলোচনা হয়েছিল এবং মাহেলা সেখানে একটি পরিকল্পনা প্রনয়ন করেন। তিনি দাসুন শানাকা এবং আমার কাছে পাঠানো পরিসংখ্যানগুলি নিয়ে বিশ্লেষণ করেন। এটা বেশ পরিষ্কার ছিল যে আমরা যে মানের ক্রিকেট খেলতে চেয়েছিলাম, তার দিক থেকে ৪ নম্বর পজিশনটি আভিসকার জন্য ভাল ফিট ছিল। অবশ্যই আভিসকা আজ ৪ নম্বরে ব্যাট করবে।’

‘আমরা জানি, ১৫ বল পর আভিসকা ১৬০ রানরেটে খেলেন। চার নম্বরে খেললে তিনি সে সুযোগটি পাবেন। তাই যখন ফার্নান্দো চার নম্বরে মাঠে নামবেন, তিনি ইনিংসে স্ট্রাইক ঘোরানোর সুযোগ পাবেন। এতে করে তিনি অপ্রতিরোধ্য হয়ে ম্যাচ খেলতে পারবেন। আমরা এ বিষয়টি চেষ্টা করেছি এবং এটা ফলপ্রসুও হয়েছে। আশা করি বিশ্বকাপে এটি অব্যাহত থাকবে।’

মাত্র কয়েকদিন হলো মাহেলা জয়াবর্ধনে আইপিএল থেকে ফিরে এসেছেন। তিনি আইপিএলে খুবই সম্মানিত একজন কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আইপিএলে সবচেয়ে সফল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। খেলোয়াড় এবং অধিনায়ক হিসেবেও কৌশলগত বুদ্ধিমত্তার জন্য বিখ্যাত ছিলেন। কোচ আর্থার এবং বর্তমান অধিনায়ক দাসুন শানাকা- দু’জনই জয়বর্ধনের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন।

দাসুন শানাকা বলেন, ‘আমরা তার থেকে দারুণ সহযোগিতা পাচ্ছি। এ ব্যাপারে তার অনেক অভিজ্ঞতা রয়েছে। তিনি শুধুমাত্র আমাদের দল নিয়েই খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ করেন না, তিনি প্রতিপক্ষ দলের দুর্বলতাও খুঁজে বের করেন। সেই দুর্বলতা কাজে লাগিয়ে কিভাবে নিজেদের সাফল্য বের করে আনা যায়, সে কৌশলও বাতলে দেন আমাদেরকে। বিশ্বকাপজুড়ে আমরা তার কাছ থেকে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি জানতে পারবো এবং শিখতে পারবো বলে বিশ্বাস করি।’

কোচ মিকি আর্থার জয়াবর্ধনের সঙ্গে যোগ করেন, ‘মাাহেলার ভূমিকা আমাদের দলের জন্য অনেক বেশি, অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এসব কারণেই আমি তার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে দারুণ উজ্জীবিত। যখন সে খেলতো, তখন থেকেই তার সঙ্গে কাজ করতে উদগ্রীব থাকতাম। ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে মাহেলার সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম চিন্তা-ভাবনা এবং বিশ্লেষণ দেখে আমি অবাক হতাম। আমি মনে করি, তার ক্রিকেট মস্তিষ্ক অসাধারণ।’

আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]