মাহমুদউল্লাহদের প্রতি কঠোর নির্দেশ কোচ ডোমিঙ্গোর

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:২২ পিএম, ২৩ অক্টোবর ২০২১

স্কটল্যান্ডের কাছে অপ্রত্যাশিত হার দিয়ে শুরু; কিন্তু এরপর ধীরে ধীরে নিজেদের ফিরে পাওয়া। প্রথমে ওমানকে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়ানো। এরপর পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে রেকর্ড জয়ে শেষ বারোয় পা রাখা।

২৪ অক্টোবর রোববার বিকেলে শারজায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বাহিনীর। কোথায় দল থাকবে উজ্জীবিত, অনুপ্রাণিত। মাঠে নেমে লঙ্কা বধে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ; তা না আরব আমিরাতের মাটিতে চলছে বোর্ড শীর্ষ কর্তা ও টিম বাংলাদেশ অধিনায়কের অনুরাগের খেলা। আকার ইঙ্গিতে হলেও বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন আর টাইগার ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এখন কথা কাটাকাটিতে ব্যস্ত।

স্কটল্যান্ডের কাছে হারের পর পুরো বাংলাদেশেই নেমে এসেছিল হতাশার ঘুটঘুটে অন্ধকার। ভক্ত-সমর্থক, ক্রিকেট কর্তা সবাই হতাশা প্রকাশ করেছেন। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বাহিনীর সমালোচনাও হয়েছে বিস্তর।

অন্য সময়ের মত খোদ বিসিবি সভাপতিও প্রকাশ্যে তার হতাশ প্রকাশ করেছেন। মিডিয়ার সাথে আলাপে নাজমুল হাসান পাপন তার সে হতাশা প্রকাশ করে ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেন। স্কটল্যান্ডের কাছে হার মেনে নেয়া কঠিন ও বিস্ময়কর বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ওদিকে বিসিবি সভাপতির সেই বক্তব্য ভালভাবে নেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও। পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করার পর আকার ইঙ্গিতে বোর্ড প্রধানের বক্তব্যের বিপক্ষে অবস্থান নেন মাহমুদউল্লাহ। তার দাবি বোর্ডের শীর্ষ পর্যায় থেকে ক্রিকেটারদের কমিটমেন্ট নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে, সিনিয়রদের স্ট্রাইকরেট নিয়ে প্রকাশ্যে ব্যক্তিগতভাবে সমালোচনা করা হয়েছে, যা অনভিপ্রেত ও অনাকাঙ্খিত। রিয়াদ মনে করেন, ‘এ ধরনের কথাবার্তা ব্যক্তিগত পর্যায়ে বিব্রতকর ও গ্লানির।’

অবশ্য বোর্ড প্রধান এক টিভি সাক্ষাৎকারে রিয়াদের সে বক্তব্য খন্ডন করেছেন। নাজমুল হাসান পাপনের দাবি, ক্রিকেটারদের কমিটমেন্ট নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়নি। আর ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগতভাবে হেয়ও করা হয়নি।

অবস্থা যখন এমন, তখন মাঝখানে এসে কথা বললেন বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। তার কথা, কোনোরকম আবেগ-ইমোশনের সুযোগ নেই। মাঠের বাইরের কোন বিষয় নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে ক্রিকেটারদের মাঠে মনোযোগী থাকার তাগিদ ডোমিঙ্গোর কন্ঠে।

Team BD

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচের আগেরদিন আজ শনিবার ডোমিঙ্গো বলেন, ‘আমি এখানে শুধু ক্রিকেটেই মনোযোগী। মাঠের বাইরে থেকে কী বলা হয়েছে, তা নিয়ে আমার কোন মাথাব্যাথা নেই। আমার দৃষ্টি আগামীকাল রোববার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচের জন্য ক্রিকেটারদের শারীরিক ও মানসিকভাবে ভাল মতো তৈরি করা।’

ডোমিঙ্গো স্বীকার করেন, ব্যর্থ হলে সমালোচনা হবেই। তা শুনতেও হবে। হজম করেই নিজেদের খেলার জন্য তৈরি রাখতে হবে।

এ সম্পর্কে তার কথা, ‘আপনি যখন বাংলাদেশের হয়ে খেলবেন, তখন ফল নেতিবাচক হলে সমালোচনা হবেই। এটা আন্তর্জাতিক ক্রীড়াঙ্গনেরও অবিচ্ছেদ্য অংশ। খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য সমালোচনা হবেই।’

ডোমিঙ্গো বোঝানোর চেষ্টা করেন, কোচিংয়ের একটা বড় অংশই হলো পারফরমারদের সে সব সমালোচনা মুক্ত রাখা। এ কারণে তার মুখে একথা, ‘আসলে যা বলা হয় এবং লেখা হয়, সে সব আমাদের হাতে নয়। সেটা থামানোরও দায়িত্ব আমাদের নয়। আমাদের কাজ হলো পারফর্ম করা। আমাদের সেই পারফরম্যান্স নিয়েই মনোযোগী থাকা উচিৎ। আর সঙ্গে নিজেদের পারফরম্যান্সের মূল্যায়নও করা দরকার। আর পাশাপাশি কোথায় আমাদের উন্নতি দরকার, তা নিয়েও ভাবা উচিৎ।’

বাংলাদেশ কোচ পরিষ্কার বলে দিয়েছেন, লিখিত আর মৌখিক সমালোচনার জবাবে ওপরের কাজগুলো না করে যদি তা নিয়ে প্রতিক্রিয়া দেখানো হয় এবং ভিতরে ভয়-ভীতি জাগে, তাহলে পারফরম্যান্সের ক্ষতি অনিবার্য্য। এতে করে মনোযোগ ও দৃষ্টিটা যে যে জায়গায় থাকার কথা, সেখান থেকে অন্যদিকে চলে যায়।’

ডোমিঙ্গো জানিয়ে দিয়েছেন, এ সব সমালোচনা নিয়ে ক্রিকেটারদের সাথে তার কথা হয়েছে। তিনি তাদের পরিষ্কার বলে দিয়েছেন, ‘আমি ছেলেদের সাথে দীর্ঘ আলাপে কঠোর ভাষায় বলে দিয়েছি, তাদের আসল কাজ কী এবং কোথায় ফোকাস থাকা দরকার। আরও বলে দিয়েছি, এটাই হলো ক্রিকেট।’

এআরবি/আইএইচএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]