সমালোচকদের আয়নায় নিজের মুখ দেখতে বললেন মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:২০ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০২১

চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মাঠে যেমনই করছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল, মাঠের বাইরে চলছে নানান আলোচনা। বিশেষ করে স্কটল্যান্ডের কাছে প্রথম ম্যাচে হারের পর সংবাদ মাধ্যমে খেলোয়াড়দের নিয়ে খোলাখুলি সমালোচনা ও ক্ষিপ্ত মন্তব্য করেছেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

শুধু বোর্ড সভাপতি নয়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও সংবাদ মাধ্যমেও বিস্তর সমালোচনা করা হয় টাইগারদের। যা সহজভাবে নিতে পারেননি টাইগারদের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে প্রথম পর্বের শেষ ম্যাচ জেতার পর খানিক আবেগাক্রান্ত হয়েই এসবের জবাব দেন মাহমুদউল্লাহ।

এবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে হারের পর একই বিষয়ে ঝাঁঝালো মন্তব্য করলেন দলের সিনিয়র ব্যাটার ও সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। তার মতে, যারা বাইরে থেকে সমালোচনা করেন ও নানান কথাবার্তা বলে থাকেন, তাদের আসলে আয়নায় নিজের মুখ দেখা উচিত।

কেননা দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার কাজটা খেলোয়াড়রাই করে থাকেন, সমালোচকরা নয়। লঙ্কানদের বিপক্ষে ব্যাট হাতে ৩৭ বলে ৫৭ রানের ঝকঝকে ইনিংস উপহার দেয়ার পর ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসে এ বিষয়ে কথা বলেছেন মুশফিক।

তার ভাষ্য, ‘মাঠের বাইরে তো নানা রকম কথা হবে। এটা সবসময় হয়ে থাকে। খেলোয়াড় হিসেবে আপনি যখন ভালো করবেন তখন সবাই তালি দেবে আবার যখন খারাপ করবেন তখন গালি দেবে। এটাই তো স্বাভাবিক। এটা আমার প্রথম বছর না, গত ১৬ বছর ধরে খেলছি এটা (সমালোচনা) আমার কাছে নতুন কিছু না। এটা আমার কাছে খুবই স্বাভাবিক লাগে।’

মুশফিক আরও বলেন, ‘যারা এইরকম কথা বলে থাকে তাদের নিজেদের মুখটা একটু আয়নায় দেখা উচিত। তারা বাংলাদেশের জন্য খেলে না, খেললে আমরা খেলোয়াড়েরাই খেলি। শুধু আমি না যারা ১৬ বছর ধরে বলেন, ২০০০ সাল কিংবা টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার আগে যারা খেলেছে সবাই ভালো করার চেষ্টা করে। কোনদিন হয় আবার কোনদিন হয় না।’

দেশের হয়ে খেলার গর্ব নিয়েই মাঠের নামার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা সবাই দেশকে প্রতিনিধিত্ব করি। এই গর্বটা নিয়েই আমরা মাঠে যাই এবং ভালো করার চেষ্টা করি।’

এসএএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]