শামির পাশে ভারতের সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটাররা

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:৫১ পিএম, ২৫ অক্টোবর ২০২১

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের কাছে ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারের পর ভারতীয় সমর্থকদের তুমুল রোষানলে পড়েছেন পেসার মোহাম্মদ শামি। সমর্থকদের সব ক্ষোভ গিয়ে জমা হয়েছে মুসলিম ধর্মাবলম্বী এই পেসারের ওপর।

শামির ইনস্টাগ্রামে গিয়ে বলার অযোগ্য ভাষায় গালাগালি পর্যন্ত করেছেন সমর্থকরা। তাকে পাকিস্তানি বলে অভিহিত করেছেন উগ্রবাদী সমর্থকরা। এমনকি ধর্মবিদ্বেষও পোষণ করেছেন কেউ কেউ। অনেকে তাকে পাকিস্তানের দালাল কিংবা কেউ তাকে বলছেন পাকিস্তানের গুপ্তচর। কারও অভিমত, মোহাম্মদ শামি পাকিস্তানের সঙ্গে এ ম্যাচ হারের জন্য ফিক্সিং করেছেন।

উগ্র সমর্থকদের কাছ থেকে বাঁচানোর জন্য এবার মোহাম্মদ শামির পাশে দাঁড়িয়েছেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটাররা। সাবেক ওপেনার বিরেন্দর শেবাগ এক টুইট বার্তায় লিখেন, ‘মোহাম্মদ সামির ওপর অনলাইন আক্রমণ খুবই দুঃখজনক। আমরা তার পাশে আছি। তিনি একজন চ্যাম্পিয়ন এবং যে কেউ ভারতীয় দলের ক্যাপ পরেন তার হৃদয়ে দেশের প্রতি ভালোবাসা যে কোনো অনলাইন জনতার চেয়ে অনেক বেশি রয়েছে। আমি তোমার সাথে আছি শামি। সামনের ম্যাচে তুমি তোমার জাদু দেখিয়ে দাও।’



ভারতের সাবেক স্পিন বোলার হরভজন সিং তার এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘আমরা তোমাকে ভালোবাসি শামি।’

ভি ভি এস লক্ষ্মণ তার এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘মোহাম্মদ শামি আট বছর ধরে ভারতের হয়ে দুর্দান্ত পারফর্মার, অনেক জয়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। তাকে একটি পারফরম্যান্স দ্বারা বিবেচনা করা যায় না। আমার ভালোবাসা সবসময় তার সাথে থাকবে। আমি অনুসারীদের অনুরোধ করছি মোহাম্মদ শামি এবং ভারতীয় দলকে সমর্থন করার জন্য।’

সাবেক পেসার ইরফান পাঠান টুইটারে লিখেন, ‘আমি নিজেও যদি ভারত-পাকিস্তান এই লড়াইয়ের অংশ হতাম এবং আমরা হেরে যেতাম, তাহলে কখনোই বলতাম না যে, পাকিস্তান চলে যাও। আমি বেশ কয়েক বছর আগের কথা বলছি। এই ধরনের নোংরামি (শামির প্রতি বিদ্বেষ) এখনই বন্ধ করা উচিৎ।’

ইয়ুজবেন্দ্র চাহাল টুইটারে লিখেছেন, ‘আমরা সবাই তোমাকে নিয়ে গর্বিত মোহাম্মদ শামি ভাইয়া।

সাবেক পেসার আরপি সিং বলেন, ‘মোহাম্মদ শামি একজন ভারতীয় ক্রিকেটার। আমরা তাকে নিয়ে গর্বিত। পাকিস্তানের কাছে হেরে যাওয়ার পর তাকে টার্গেট করা খুবই দুঃখজনক।’

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মোহাম্মদ শামি ৩.৫ ওভার বল করে ৪৩ রান দিয়েছেন। নিজের শেষ ওভারে ৫ বলেই দিয়েছেন ১৭ রান। মূলত শামির ওভার থেকেই ম্যাচ জয় সম্পন্ন করেন দুই পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান। এরপরই ম্যাচ হারের জন্য ভারতীয় সমর্থকদের সব ক্ষোভ গিয়ে জমা হয় শামির ওপর।

আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]