খুলনাকে হারাতে মাত্র ৯১ রান চাই সিলেটের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:০১ পিএম, ২৬ অক্টোবর ২০২১

খুলনার বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে পিছিয়ে থেকেও জয়ের সুবাতাস পাচ্ছে সিলেট। তরুণ পেসার রেজাউর রহমান রেজার বিধ্বংসী বোলিংয়ে সিলেটকে ম্যাচে ফিরিয়ে এনে জয়ের সম্ভাবনা দেখিয়েছে।

লো স্কোরিং গেমে প্রথম ইনিংসে ২৪ রানে এগিয়ে থাকা খুলনা দ্বিতীয় দিন শেষ করেছিল ৩ উইকেটে ৪৬ রান নিয়ে। দুই সিলেটি পেসার তানজিব হাসান সাকিব আর ইবাদতের বোলিংয়ের মুখে ফিরে গিয়েছিলেন এনামুল হক বিজয় (০), ইমরুল কায়েস (৪) এবং অলরাউন্ডার রবিউল ইসলাম রবি (৩)।

অধিনায়ক মিঠুন ১৮ আর অভিজ্ঞ তুষার ইমরান ১১ রানে নট আউট থেকে আজ তৃতীয়দিন ব্যাটিংয়ে নামেন; কিন্তু তারা কেউই বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। সিলেটের তরুণ পেসার রেজাউর রহমান রেজার বোলিং তোপের মুখে ১৩২ রানের মধ্যে বাকি ৭ উইকেট খুইয়ে বসে খুলনা।

অধিনায়ক মিঠুন ৪৬, অভিজ্ঞ তুষার ইমরান ২১ আর অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজসহ (০) মোট ৫ জনকে (৫৫ রানে) আউট করেন পেসার রেজাউর রহমান রেজা।

এছাড়া পেসার তানজিব সাকিব ও স্পিনার এনামুল জুনিয়র দুটি করে উইকেট পান। সিলেট পেসার রেজউরের বোলিং তোপের মধ্যে শেষ দিকে অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার জিয়া আর নাহিদুল কিছুটা প্রতিরোধের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। জিয়ার দুই ছক্কা এবং ছয় বাউন্ডারিতে ৫১ বলে করা ৪৭ রানের আক্রমণাত্মক ইনিংসটিরও ইতি টানেন রেজা।

নাহিদুলের ৭৮ বলে ৪৮ রানের উইকেটটি জমা পড়ে সিলেটের সব সময়ের সেরা বাঁহাতি স্পিনার এনামুল জুনিয়রের পকেটে।

১৭৮ রানে খুলনার প্রথম ইনিংস শেষ হলে সিলেটের জয়ের জন্য দরকার পড়ে ২০৩ রানের। দিন শেষে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১১২।

অধিনায়ক জাকির হাসান ৩৭ আর সিলেটের সাবেক অধিনায়ক অলক কাপালি ৯ রানে ক্রিজে। এর আগে অমিত হাসান ৪১, আসাদুল্লাহ গালিব ২০ ও ইমতিয়াজ হোসেন তান্না শূন্য রানে ফিরে গেছেন।

কাল বুধবার চতুর্থ ও শেষ দিনে সিলেটের দরকার ৯১ রান। তাদের হাতে আছে ৭ উইকেট।

এআরবি/আইএইচএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]