‘ঢালাও রদবদল দলের মঙ্গল বয়ে আনছে না’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:২৯ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০২১

দলে ঢালাও পরিবর্তন, সেটা কতটা উপকারে আসছে? নাকি দলের পারফরমেন্স খারাপ হতে আরও নেতিবাচক ভূমিকা রাখছে?

সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে দেশ বরেণ্য প্রশিক্ষক নাজমুল আবেদিন ফাহিমের মনে হচ্ছে, দলে এমন ঢালাও পরিবর্তন মোটেই কাঙ্খিত না। এতে উপকারের চেয়ে অপকারই হচ্ছে বেশি। কোচ ফাহিম মনে করেন, রদবদলটা একটু বেশি তড়িঘড়ি করে করা হচ্ছে। আরও সময় নিয়ে ভেবে চিন্তে পরিবর্তন আনলে ভাল হতো।

তার ব্যাখ্যা, দলের যে পরিবর্তন হয়েছে। সেটা খুব তাড়াতাড়ি করা হয়েছে। খুব ভাল হতো আরও সময় নিয়ে দেখে, শুনে ও বুঝে পরিবর্তন আনা হতো। আমরা সবাই উপলব্ধি করি আমাদের টি-টোয়েন্টির পারফরমেন্স যেহেতু আশানরূপ না, তাই দলে পরিবর্তন আসবেই। সেটা আরও ধীরে হলে নতুন যারা আসতো তারা আরও তৈরি হয়ে আসতে পারতো।

খেলোয়াড়দের তৈরি করার ব্যাপারও আছে। আর টি-টোয়েন্টি খেলোয়াড় গড়ে তোলাও কিন্তু সময়ের ব্যাপার। এখানে টেকনিক, স্কিলের পাশাপাশি মানসিকতা গড়ে তোলাও একটা ব্যাপার। সে জন্য সময় দরকার। আমাদের হাতে টি-টোয়েন্টি প্লেয়ার কম। চর্চাও বেশ কম। সময় নিয়ে পরিবর্তন করলে ভাল হতো।

রদবদল নিয়ে ফাহিম আরও যোগ করেন, সাইফ দুই ম্যাচেই একদম প্রথম বলেই প্রায় আউট হয়ে গেছে। তারপরও আমার মনে হয় তাকে আরও একটু সুযোগ দেয়া উচিৎ ছিল। এই তরুণ কিন্তু অনেক কাঠ খড় পুড়িয়ে সাইফ এই জায়গায় এসেছিল। এই দুটি বিচ্ছিন্ন ইনিংস কিন্তু তার মনকে দূর্বল করে দিতে পারে।

তারপর শান্তকে দিয়ে ওপেন করানো হলো। সে তিনে ভাল খেললো, তারপরের ম্যাচেই তাকে দিয়ে ওপেন করানো হলো। আর ফ্রম নো হোয়ার শামিমকে ওয়ান ডাউনে নামানো হলো। আমার মনে হয় শামিমকে দিয়ে ওপেন করিয়ে শান্তকে তার জায়গায় রাখা যেত। নড়াচড়া যত কম হয়, তত ভাল। সাইফ আর থাকলোই না। রুবেলের কথাও বলতে পারি। সে গেল আর থাকলো না।’

এর বাইরে আরও একটি ইস্যুতে কথা বলেছেন ফাহিম। তার মনে হচ্ছে দলের ভেতর ও বাইরে সবাই একটু বেশি কথা বলছেন। সেটাও ক্ষতির কারণ। ফাহিম খুব বিনয়ের সাথে বলেছেন, ‘আমরা বোধকরি সবাই একটু বেশি বেশি বলছি। তা না করে আরও একটু রয়ে সয়ে কথা বললে বোধ হয় ভাল হতো।’

দল পরিচালনায় আছেন তারা, যারা মাঠে খেলছে আর আমরা যারা বাইরে থেকে দেখছি-সবাই বেশি বেশি বলার চেষ্টা করছি। আমার মনে হয় দলের বাইরে ভেতরে যে যার জায়গা থেকে একটু কম কথা বললে পরিস্থিতিটা শান্ত হতো। ক্রিকেটাররা থিতু হবার ফুরসত পেত।

এআরবি/আইএইচএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]