আউটের আবেদন করে ‘নো বল’ পেলো পাকিস্তান

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৩ পিএম, ২৬ নভেম্বর ২০২১

মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের জুটি ভাঙতে উইকেটের আশায় জোরালো আবেদন করেছিলেন পাকিস্তানের ফিল্ডাররা। আম্পায়ার প্রথমে আউট দেননি। তবু পাকিস্তানি ফিল্ডারদের আবেদনের কারণেই ডাকা হয় থার্ড আম্পায়ারকে। যেখানে কি না উইকেটের বদলে উল্টো নো বল পেয়েছে পাকিস্তান।

মাত্র ৪৯ রানে ৪ উইকেট পতনের পর পঞ্চম উইকেটে জুটি বেঁধেছেন মুশফিক ও লিটন। দুজনের জোড়া ফিফটিতে এরই মধ্যে বাংলাদেশের দলীয় সংগ্রহ ২০০ ছাড়িয়ে গেছে। টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে পঞ্চম উইকেটে পঞ্চমবারের মতো দেড়শ রানের জুটি উপহার দিয়েছেন মুশফিক-লিটন।

স্বাভাবিকভাবেই এ জুটি ভাঙতে মরিয়া পাকিস্তান। ইনিংসের ৭২তম ওভারে আক্রমণে ছিলেন বাঁহাতি স্পিনার নোমান আলি। তার ফুল লেন্থের ডেলিভারি হাঁটু গেড়ে সুইপ করেন মুশফিক। যা শর্ট লেগের ফিল্ডারের গায়ে লেগে চলে যায় কভারে দাঁড়ানো ফিল্ডারের হাতে। সঙ্গে সঙ্গে আবেদন শুরু করেন ফিল্ডাররা।

মাঠের আম্পায়ার শরফৌদৌল্লা ইবনে সৈকত ডাকেন থার্ড আম্পায়ারকে। সেই বলে রিপ্লে’তে দেখা যায় ডেলিভারিটি করার সময় ওভার স্টেপিং করেছেন নোমান। অর্থাৎ পপিং ক্রিজের দাগের ভেতরে তার পায়ের কোনো অংশই ছিল না। ফলে আউটের রিপ্লে দেখার বদলে নো বল ডাকেন থার্ড আম্পায়ার গাজী সোহেল।

পরে অবশ্য রিপ্লে দেখানো হয়েছে সেই ডেলিভারির। যেখানে দেখা যায় মুশফিকের সুইপ শটটি শর্ট লেগে দাঁড়ানো আবিদ আলির গায়ে লাগার আগেই মাটিতে ড্রপ পড়েছে। যার মানে দাঁড়ায় বলটি নো না হলেও, আউট হতেন না মুশফিক। কিন্তু নো বল হয়ে যাওয়ায় উল্টো সেই বল থেকে আসে ১ রান।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৭২ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২১১ রান। লিটন ৮৫ ও মুশফিক খেলেছেন ৭০ রানে। এ জুটির সংগ্রহ ১৬২ রান।

এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]