৫৭ ওভারেও উইকেট নিতে পারলো না ভারত

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:০১ পিএম, ২৬ নভেম্বর ২০২১

আম্পায়ার রিভিউ সিস্টেম চালু হওয়ার পর দীর্ঘদিন এটি ব্যবহার থেকে বিরত ছিল ভারতীয় ক্রিকেট দল। আইসিসি এটিকে বাধ্যতামূলক করার পর থেকে তারাও নিয়মিত ব্যবহার করে আসছে রিভিউ সিস্টেম। তবে এখন আবার আগে সময়ে ফিরে যাওয়ার কথা ভাবতেই পারে ভারতীয়রা।

কেননা কানপুর টেস্টে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫৭ ওভারের মধ্যে তিনবার রিভিউয়ের কারণে উইকেটবঞ্চিত হয়েছে ভারত। আম্পায়ার তিনবারই আউট দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনবারই রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান নিউজিল্যান্ডের বাঁহাতি ওপেনার টম লাথাম। আর উইকেটই নিতে পারেনি ভারত।

ম্যাচের দ্বিতীয় দিন শেষে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ ৫৭ ওভারে বিনা উইকেটে ১২৯ রান। ভারতের করা ৩৪৫ রানের চেয়ে ২১৬ রান পিছিয়ে রয়েছে কিউইরা। তবে তাদের হাতে রয়েছে পুরো ১০টি উইকেট। উইল ইয়াং ৭৫ ও টম লাথাম ৫০ রান নিয়ে শনিবারের খেলা শুরু করবেন।

কিউইদের ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই ইশান্ত শর্মার বলে লাথামকে লেগ বিফোর দেন আম্পায়ার। রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান কিউই ওপেনার। এরপর ১৫তম ওভারে রবীন্দ্র জাদেজা ও ৫৬তম ওভারে গিয়ে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে আউট দেওয়ার পর রিভিউ নিয়ে নিজের উইকেট বাঁচান লাথাম।

তিনবার রিভিউ নিয়ে বাঁচার পর তা কাজে লাগাতে ভোলেননি লাথাম। দিন শেষে ১৬৫ বলে ৫০ রান করেছেন তিনি। আরেক ওপেনার ইয়াং ১৮০ বলে করেছেন ৭৫ রান। লাথামের আগে একই ইনিংসে তিনবার রিভিউ নিয়ে বাঁচার রেকর্ড রয়েছে শুধুমাত্র মইন আলির। বাংলাদেশের ২০১৬ সালের চট্টগ্রাম টেস্টে তিনবার রিভিউ নিয়ে বেঁচেছিলেন মইন।

এদিকে যেভাবে বড় স্কোরের দিকে এগুচ্ছিল ভারত, সেভাবে আসলে রানটা হয়নি। প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ৩৪৫ রানে অলআউট হয়েছে আজিঙ্কা রাহানের দল। সেঞ্চুরি করেছেন অভিষিক্ত শ্রেয়াস আয়ার।

টিম সাউদি আর কাইল জেমিসনই মূলত আগুন ঝরিয়েছেন কানপুরের গ্রিনপার্কে। সাউদি নেন ৫ উইকেট, ৩ উইকেট নেন কাইল জেমিসন আর ২ উইকেট নেন স্পিনার অ্যাজাজ প্যাটেল।

প্রথম দিনই সেঞ্চুরির ইঙ্গিত দিয়েছিলেন শ্রেয়াস। ৭৫ রান নিয়ে ব্যাট করছিলেন তিনি। তার সঙ্গে ৫০ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন রবিন্দ্র জাদেজা। দ্বিতীয় দিন ব্যাট করতে নেমে জাদেজা টিকে থাকতে পারেননি। সেই ৫০ রানেই আউট হয়ে যান।

তবে শ্রেয়াস আয়ারকে থামানো যায়নি। তিনি ঠিকই আউট হয়েছেন তিন অংকের ঘরে প্রবেশ করে। অভিষেকেই দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি তুলে নিলেন দিল্লি ক্যাপিটালসের এই সাবেক অধিনায়ক। ১৭১ বল মোকাবেলা করে তিনি আউট হয়েছেন ১০৫ রান করে।

শ্রেয়াস যখন আউট হন তখন ভারতের রান ৩০৫। তিনি আউট হন সপ্তম ব্যাটার হিসেবে। তার আগে আউট হয়ে যান রবিন্দ্র জাদেজা এবং ঋদ্ধিমান সাহাও। ঋদ্ধি করেছিলেন কেবল ১ রান। এরপর রবিচন্দ্রন অশ্বিনই কেবল কিছুটা প্রতিরোধ গড়তে পেরেছিলেন। তিনি করেন ৫৬ বলে ৩৮ রান। ১০ রানে অপরাজিত থেকে যান উমেশ যাদব।

এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]