ঘরোয়া ক্রিকেটে আরও মনোযোগ দিতে বলছেন ডোমিঙ্গো

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০১:৩১ পিএম, ৩০ নভেম্বর ২০২১

টেস্ট ক্রিকেটে ভাল করতে দেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের উন্নতি খুব দরকার। ভালো উইকেটে খেলা আয়োজনের পাশাপাশি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটকে আরও আকর্ষণীয়-প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক করে তোলা খুব জরুরী। গত দেড় যুগে এ কথা বলতে বলতে মুখ ব্যথা করে ফেলেছেন স্থানীয় ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা।

কিন্তু কে শোনে কার কথা? এখনও প্রথম শ্রেণির ঘরোয়া লিগে বাজে উইকেটে খেলা হয়। আকর্ষণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা আগের চেয়ে বাড়লেও ভালো খেলার তাগিদ, নিজেকে উজার করে দেওয়ার ইচ্ছেটা জাগেনি তেমন। তাই জাতীয় দলের হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো মনে করেন, টেস্টে ভাল খেলার পূর্বশর্ত হলো প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ভালো খেলা।

সোমবার জুম কনফারেন্সে টেস্টে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সের পর্যালোচনা করতে গিয়ে এ দক্ষিণ আফ্রিকান বলেন, ‘আমি অনেক উন্নতি দেখেছি। তবে সেটা বেশি সময় ধরে থাকে না। টেস্টে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের বেশি সময় ধরে ভালো খেলার তাগিদ কম।’

এর কারণ খুঁজতে গিয়ে ডোমিঙ্গো আবিষ্কার করেছেন, ‘বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট ততটা প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নয়। এখানে ভালো খেলার তাগিদ, আত্মনিবেদন কম। যে কারণে চাপ সামলানোর মানসিকতা এবং সামর্থ্যও কম।’

গত এক বছরের টেস্ট পারফরম্যান্সের ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ দিতে গিয়ে ডোমিঙ্গো বলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে আমাদের দুটি টেস্টেই জেতা উচিত ছিল। ৩৯৫ রানের টার্গেট তাড়া করতে গিয়ে একপর্যায়ে ৭০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসেছিল তারা। সেখান থেকে ম্যাচ বের করে নিয়েছে। আমরা পরের ম্যাচে ২২০ রান করতে গিয়ে শুরুতে বিনা উইকেটে ৭০ রান থাকা অবস্থায়ও চাপে পড়ে গিয়েছিলাম।’

ডোমিঙ্গো যোগ করেন, ‘আমরা ভালো অবস্থা তৈরি করেও তা ধরে রাখতে পারছি না। আমি নিশ্চিত খেলোয়াড়রাও চরম হতাশ। আমরা খুব দরকারি ও গুরুত্বপূর্ণ সময়ে কিছু ভুল করে ফেলছি। হয় লোপ্পা ক্যাচ ফেলে দিচ্ছি, না হয় আলগা শট খেলে উইকেট দিয়ে আসছি। আমরা ভাল খেলাটা বেশি সময় ধরে খেলতে পারছি না, চাপটাও সামাল দিতে পারছি না। যা খুবই হতাশার।’

এআরবি/এসএএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]