সিডনিকে উড়িয়ে দিয়ে বিগ ব্যাশ চ্যাম্পিয়ন পার্থ

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:৪১ পিএম, ২৮ জানুয়ারি ২০২২

ফাইনালটা ঠিক ফাইনালের মত হলো না। এক তরফা ফাইনাল হয়ে গেলো। মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে পার্থ স্কোরচার্সের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি সিডনি সিক্সার্স। ১৭২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৯২ রানে অলআউট হয়ে গেছে সিডনি সিক্সার্স। ৭৯ রানের ব্যবধানে জিতে বিগ ব্যাশের শিরোপার মুকুট মাথায় পরে নিলো পার্থ স্কোরচার্স।

ইংলিশ ব্যাটার লরি ইভান্সের ব্যাট হাতে ঝড় তোলার পর বল হাতে বিধ্বংসী হয়ে উঠেছিলেন ঝাই রিচার্ডসন এবং অ্যান্ড্রু তায়ে। পার্থের অধিনায়ক ব্যাটার অ্যাস্টন টার্নারও ছিলেন ব্যাট হাতে বিধ্বংসী রুপে। মূলতঃ এই চারজনের কৃতিত্ব এবং নৈপূণ্যেই বিগ ব্যাশের সর্বোচ্চ চারবারের মুকুট পরে নেয় পার্থ স্কোরচার্স।

অথচ টস হেরে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ২৫ রানের মধ্যেই চারটি উইকেট হারিয়ে বসে পার্থ। দ্রুত টপ অর্ডারের ব্যাটারদের হারিয়ে যখন চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে পার্থ, তখনই তারা ঘুরে দাঁড়ায় অধিনায়ক অ্যাস্টন টার্নার এবং ইংলিশ ব্যাটার লরি ইভান্সের ব্যাটে।

এই দু’জনের ব্যাট থেকে বেরিয়ে আসে শতাধিক রানের জুটি। ১০৪ রান স্কোরবোর্ডে যোগ করার পর বিচ্ছিন্ন হন তারা দু’জন। ৩৫ বলে ৫৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন অ্যাস্টন টার্নার। ৪টি বাউন্ডারির সঙ্গে ১টি ছক্কার মার মারেন তিনি।

এরপর অ্যাস্টন অ্যাগার ১৫ রান করে আউট হয়ে গেলেও লরি ইভান্স ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যান। ৪১ বলে ৭৬ রানের জড়ো ইনিংস স্কোরবোর্ডে যোগ করেন তিনি। ৪টি করে বাউন্ডারি এবং ছক্কার মার ছিল তার ব্যাটে। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেট হারিয়ে ১৭১ রান সংগ্রহ করে পার্থ স্কোরচার্স।

স্টিভ ও’কিফ এবং নাথান লিওন নেন ২টি করে উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন জ্যাকসন বার্ড এবং হেইডেন কর।

জবাবে ১৭২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে পার্থ বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি সিডনির ব্যাটাররা, একমাত্র ড্যানিয়েল হিউজেস ছাড়া। ৩৩ বলে ৪২ রান করেন তিনি। তবে দুর্ভাগ্যজনকভাবে রানআউট হয়ে যান। এছাড়া নিকোলাস বার্তাস করেন ১৫ রান।

শেষ পর্যন্ত ১৬.২ ওভারে মাত্র ৯২ রানে অলআউট হয়ে যায় সিডনি সিক্সার্স। অ্যান্ড্রু টায়ে ৩ ওভারে ১৫ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। ঝাই রিচার্ডসন ৩.২ ওভারে ২০ রান দিয়ে নেন ২ উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন জ্যাসন বেহেন্ড্রপ, অ্যাস্টন টার্নার, পিটার হার্তজোগলো এবং অ্যাস্টন অ্যাগার।

আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]