ড্র করে বেজায় খুশি, ঢাকায় জেতার তরিকা জানে শ্রীলঙ্কা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক চট্টগ্রাম থেকে
প্রকাশিত: ০৬:৩৬ পিএম, ১৯ মে ২০২২

দুই দল ড্র মেনে নেওয়ায় এক ঘণ্টা আগে শেষ হয়েছে চট্টগ্রাম টেস্ট। সেই এক ঘণ্টা খেলা হলেও ম্যাচের ফল বদলানোর কোন সম্ভাবনা ছিল না। সেই এক ঘণ্টা বাদ দিয়ে পাঁচদিনের ৪১৩ ওভারে উইকেট পড়েছে মাত্র ২৬টি, হয়েছে ১১২২ রান। ওভারপ্রতি যা পৌনে তিনেরও কম।

এমন ম্যাড়ম্যাড়ে ব্যাটিংবান্ধব উইকেটে জিততে না পারার আক্ষেপ নেই শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের। বরং বোলারদের জন্য তেমন কোনো সুবিধা না থাকা উইকেটে ড্র করতে পেরেই বেজায় খুশি সফরকারীরা। ম্যাচ শেষে এ কথাই জানিয়েছেন দলের তারকা অলরাউন্ডার ধনঞ্জয়া ডি সিলভা।

ম্যাচের ফল নিয়ে সন্তুষ্ট কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, 'অবশ্যই! শুরু থেকেই মনে হচ্ছিল ড্র হবে। যখন আমরা ব্যাটিং করেছি, যখন ওরা ব্যাটিং করেছে। এখান থেকে জেতার সুযোগ খুবই কম। এখানে বোলারদের জন্য তেমন কিছু ছিল না। তো হ্যাঁ! আমরা এই ড্র নিয়ে খুব খুশি।'

চট্টগ্রামে জয় না পেলেও ঢাকায় সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জিততে হলে কী দরকার, তা জানা আছে লঙ্কানদের। মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্পিনবান্ধব উইকেটে বাড়তি স্পিনার নিয়েই খেলবে তারা। পাশাপাশি বাংলাদেশকে অল্পেই অলআউট করার প্রচ্ছন্ন হুমকি দিয়ে রাখলেন ধনঞ্জয়া।

প্রথম ম্যাচের ড্রয়ের পর ঢাকা টেস্টের পরিকল্পনা সম্পর্কে তিনি বলেন, 'ঢাকায় অবশ্যই তিন স্পিনার ও এক পেসার খেলবে। উইকেট অবশ্যই স্পিনারদের সাহায্য করবে। আমরা যদি ২৭৫ বা ৩০০র আশপাশে কিছু করতে পারি তাহলে জয়ের সুযোগ আসবে। এরপর আমরা যদি এক ইনিংসে তাদের দেড়শর নিচে আউট করতে পারি, তাহলে আমরা জিতে যাবো।'

ঢাকায় স্পিনবান্ধব উইকেট হওয়ায় বাংলাদেশ কিছুটা হলেও এগিয়ে থাকবে বলে মনে করেন ধনঞ্জয়া। তবে চট্টগ্রামে লঙ্কান পেসাররা ভালো করায় তাদেরও সম্ভাবনা থাকবে জানিয়ে ধনঞ্জয়া বলেন, 'হয়তো হ্যাঁ (বাংলাদেশ এগিয়ে থাকবে)! তবে আমাদের পেসাররা তাদের চেয়ে ভালো করেছে। তো আমাদেরও সম্ভাবনা থাকবে।'

এসএএস/আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]