দেশের কঠিন সময়ে সিরিজ জয়টি ইতিবাচক বলছে লঙ্কানরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৮ পিএম, ২৭ মে ২০২২

মাত্র ৫৩ রানে ৫ উইকেট পতনের পর প্রতিরোধ গড়েছিলেন সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস। ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে প্রথম সেশন শেষ হওয়ার আগেই লিড নিয়ে দলকে স্বস্তিতে রাখার আভাস দেন এ দুই ব্যাটার। কিন্তু দ্বিতীয় সেশনে এলেমেলো হয়ে যায় সব।

মধ্যাহ্ন বিরতির পর দ্বিতীয় ওভারেই আসিথা ফার্নান্দোর দুর্দান্ত ফিরতি ক্যাচে আউট হন টানা তৃতীয় পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের ইনিংস খেলা লিটন। নিজের বোলিংয়ে নেওয়া আসিথার সেই ক্যাচটিকেই ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে দেখছে শ্রীলঙ্কা।

আসিথার করা সেই বলটি অফস্ট্যাম্পের বাইরে থেকে হালকা মুভ করে ঢুকে যায় ভেতরে। ড্রাইভ করতে গিয়েও লিটন থেমে যান। ফলে হাফ শটটি বাতাসে ভেসে যায় বোলারের দিকে। ফলো থ্রুতে ডান দিকে ঝাঁপিয়ে সেটি এক হাতে লুফে নেন আসিথা।

ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করা আসিথার এই ক্যাচে ভাঙে লিটন-সাকিবের ১০৩ রানের জুটি। এরপর আর মাত্র ১৩ রান যোগ করতেই অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কা পায় মাত্র ২৯ রানের লক্ষ্য। যা কি না মাত্র তিন ওভারেই করে ফেলেন দুই ওপেনার।

ম্যাচ শেষে উইকেটরক্ষক ব্যাটার নিরোশান ডিকভেলা জানিয়েছেন, লিটন-সাকিবের জুটির পরও তাদের পূর্ণ বিশ্বাস ছিল জয়ের ব্যাপারে। তবে আসিথার সেই ক্যাচটিই তাদের কাজ সহজ করে দিয়েছে। তাই এটিকে টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে দেখছে লঙ্কানরা।

ডিকভেলা বলেছেন, ‘(মধ্যাহ্ন বিরতিতে) আমাদের ড্রেসিংরুম ধীরস্থিরই ছিল। আমরা জানতাম, একটি উইকেটের ব্যাপার। একটি উইকেট নিলেই টেলএন্ডাররা চলে আসবে ব্যাটিংয়ে। আমরা চাপ পেয়ে বসতে দেইনি। লাঞ্চের পর আসিথা দুর্দান্ত ক্যাচ নেয় (লিটনের), এটিই ছিল টার্নিং পয়েন্ট।’

দশ উইকেটের জয়ে সিরিজের ট্রফি নিয়েই বাড়ি ফিরছে শ্রীলঙ্কা দল। কিন্তু তাদের দেশের অবস্থা এখনও পুরোপুরি স্বাভাবিক নয়। অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিকভাবে বেশ বিপর্যস্ত অবস্থার মধ্যে খেলতে এসেছিল দিমুথ করুনারাত্নের দল।

সেখান থেকে এ সিরিজ জয় দেশের জন্য ইতিবাচক বিষয় বলে মনে করছেন ডিকভেলা, ‘আমরা এখানে ক্রিকেট খেলতে এসেছি, সব কিছু পেছনে ফেলেই এসেছি। আমাদের চাওয়া ছিল ভালো ক্রিকেট এবং সিরিজ জেতা। তবে অবশ্যই এটি দেশের মানুষের জন্য একটি প্রাপ্তি হবে, দেশ এখন কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। শ্রীলঙ্কার জন্য এটি ইতিবাচক।’

এসএএস/আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]