কোহলির পাশে বসে বাটলারের চোখ গেইলের সিংহাসনে

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪০ এএম, ২৮ মে ২০২২

আইপিএলের দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুকে আরও একবার হতাশায় ডুবিয়ে দীর্ঘ ১৪ বছর পর ফাইনালে উঠেছে রাজস্থান রয়্যালস। ফাইনালের টিকিট পেতে লক্ষ্য ছিল ১৫৮ রানের। যেখানে জস বাটলার একাই করেছেন ৬০ বলে ১০৬ রান।

এই সেঞ্চুরির সুবাদে ম্যাচসেরার পুরস্কারের পাশাপাশি আইপিএলের রেকর্ডবুকেও ঝড় তুলেছেন ইংল্যান্ডের এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার। আইপিএল চলতি আসরে বাটলারের এটি চতুর্থ সেঞ্চুরি। যা কি না টুর্নামেন্টের ইতিহাসে এক আসরে সর্বোচ্চ সেঞ্চুরির রেকর্ড।

২০১৬ সালের আসরে প্রথম ব্যাটার হিসেবে আইপিএলের এক আসরে চারটি সেঞ্চুরি করেছিলেন বিরাট কোহলি। আইপিএল তো বটেই বিশ্বের যেকোনো টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের এক আসরে সর্বোচ্চ সেঞ্চুরির রেকর্ড ছিল এটি। যেখানে এতোদিন ধরে একাই ছিলেন কোহলি।

এবারের আসরে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, কলকাতা নাইট রাইডার্স, দিল্লি ক্যাপিট্যালস ও সবশেষে কোহলির ব্যাঙ্গালুরুর বিপক্ষে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে সেই রেকর্ডে ভাগ বসালেন বাটলার। ফাইনালে সেঞ্চুরি করতে পারলে এককভাবে শীর্ষে উঠে যাবেন এ ডানহাতি মারকুটে ব্যাটার।

আইপিএলে সবমিলিয়ে বাটলারের সেঞ্চুরি পাঁচটি। টুর্নামেন্টের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ছয়টি সেঞ্চুরির মালিক ক্রিস গেইল। এরপরই পাঁচ সেঞ্চুরি নিয়ে কোহলি ও বাটলারের অবস্থান। আর একটি সেঞ্চুরি করতে পারলে গেইলের রেকর্ডেও ভাগ বসাবেন বাটলার।

চার সেঞ্চুরির এই আসরে চারটি ফিফটিও হাঁকিয়েছেন বাটলার। সবমিলিয়ে ১৫১.৪৭ স্ট্রাইকরেট ও ৫৮.৮৫ গড়ে ১৬ ম্যাচে ৮২৪ রান করেছেন। আইপিএলে মাত্র দ্বিতীয় ব্যাটার হিসেবে এক আসরে ৮০০'র বেশি রান করলেন তিনি। এর আগে ২০১৬ সালের কোহলি ৯৭৩ ও ডেভিড ওয়ার্নার করেছিলেন ৮৪৮ রান।

বাটলারের এই ৮২৪ রানের মধ্যে ১৯৫ রানই হয়েছে প্লে-অফের দুই ম্যাচে। যা কি না আইপিএলের নতুন রেকর্ড। ২০১৬ সালের আসরে প্লে-অফে ১৯০ রান করেছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। এ তালিকায় ব্যাঙ্গালুরুর রজত পাতিদার তিন নম্বরে রয়েছেন। এবারের আসরে প্লে-অফে তিনি ১৭০ রান করেছেন।

এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]