হাফ সেঞ্চুরি করেই আউট লিটন, সঙ্গে গড়লেন হাজার রানের রেকর্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৪৫ এএম, ২৫ জুন ২০২২

একে একে প্রথম সারির সব ব্যাটারই বিদায় নিলেন। তামিম, জয়, শান্ত, বিজয়, সাকিব কিংবা নুরুল হাসান সোহান- কাউকেই সঙ্গে পাননি ঠিক মত। মেহেদী মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে কিছুদুর এগুলেও জুটিটা বড় করতে পারেননি। হাল ছেড়ে দেন মিরাজ। তবুও, লিটন কুমার দাস নিজের খেলাটা খেলে যাচ্ছেন।

একপ্রান্তে উইকেট পড়লেও অপরপ্রান্ত ধরে রেখে দারুণ এক হাফ সেঞ্চুরি উপহার দিলেন বাংলাদেশের এই মিডল অর্ডার ব্যাটার। ক্যারিয়ারে এ নিয়ে ১৪তম হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করলেন তিনি। ৬৬ বল খেলে ৮ বাউন্ডারিতে এই হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করেন লিটন।

সে সঙ্গে দারুণ একটি রেকর্ডও গড়ে ফেললেন বাংলাদেশের এই প্লে-মেকার। ২০২২ সালের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে হাজার রানের মাইফলক পার হয়ে গেলেন তিনি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ডানহাতি পেসার অ্যান্ডারসন ফিলিপের অফ স্টাম্পে পড়া বলকে দৃষ্টিনন্দন ভঙ্গিতে বাউন্ডারি মেরেই এই কৃতিত্ব গড়েন লিটন।

তবে হাফ সেঞ্চুরি করার পর বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেননি লিটন। ৭০ বলে ৫৩ রান করে আউট হয়ে যান তিনি। অ্যালজারি জোসেফের বলে কার্লোস ব্র্যাথওয়েটের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। সে সঙ্গে পতন ঘটে ৮ম উইকেটের। এ রিপোর্ট লেখার সময় বাংলাদেশের রান ৮ উইকেট হারিয়ে ২০২। এবাদত আর শরিফুল রয়েছেন উইকেটে।

শুক্রবার সেন্ট লুসিয়ায় সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে মাঠে নামে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ড্যারেন স্যামি জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচের প্রথম দিনের দ্বিতীয় সেশনে মাইলফলক স্পর্শ করেন লিটন।

চলতি বছর তিন সংস্করণের ক্রিকেট মিলিয়ে সবার আগে হাজার রানে পৌঁছান তিনি। পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম, শ্রীলঙ্কার পাথুম নিশাঙ্কা, অস্ট্রেলিয়ার উসমান খাজা থেকে শুরু করে বাকি সবাই তার পিছনে।

এই টেস্টে মাঠে নামার আগে লিটনের মোট রান ছিল ৯৯৬। প্রথম তিন ব্যাটার উইকেট পড়ার পর ব্যাট করতে নামেন লিটন। ব্যাট করতে নামার পর সপ্তম বলেই বাউন্ডারি মেরে হাজার রানের ক্লাবে ঢুকে পড়েন তিনি।

টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে চলতি বছর খেলা আগের ১৫ ম্যাচের ২০ ইনিংসে ৪৯.৮০ গড়ে রান তুলেছেন লিটন। ৬ হাফসেঞ্চুরির সঙ্গে ৩ সেঞ্চুরিও আছে তার নামের পাশে। সর্বোচ্চ ১৪১ রানের ইনিংসটি খেলেন গত মাসে মিরপুরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।

২০২২ সালের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় লিটনের পরেই রয়েছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভৃত্য অরবিন্দ। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে ২৩ ম্যাচে তার রান ৯৪৫। তিন নম্বরে রয়েছেন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম। ১০ ম্যাচের ১২ ইনিংসে করেছেন ৯১৩ রান।

শীর্ষ দশে থাকা অন্যরা হলেন পাকিস্তানের ইমাম উল হক (৯ ম্যাচের ১২ ইনিংসে ৮৬৭ রান), আরব আমিরাতের চিরাগ সুরি (২৩ ম্যাচের ২৩ ইনিংসে ৭৭১ রান), শ্রীলঙ্কার নিশাঙ্কা (২০ ম্যাচের ২১ ইনিংসে ৭৬১ রান), উসমান খাজা (৫ ম্যাচের ৯ ইনিংসে ৭৫১ রান), নেপালের দিপেন্দ্র আইরি (২৩ ম্যাচের ২২ ইনিংসে ৭১৮ রান), ওমানের জতিন্দর সিং (২৪ ম্যাচের ২৪ ইনিংসে ৭১৮ রান) ও দক্ষিণ আফ্রিকার টেম্বা বাভুমা (১৬ ম্যাচের ২২ ইনিংসে ৭১২ রান)।

আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]