বিপর্যয়ের মুখে দাঁড়িয়ে পান্তের ঝড়ো সেঞ্চুরি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:০০ এএম, ০২ জুলাই ২০২২

এজবাস্টন টেস্টে টপঅর্ডারের ব্যর্থতায় দলীয় শতক পূরণ হওয়ার আগেই পাঁচ উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারতীয় ক্রিকেট দল। মনে হচ্ছিল, অল্পেই হয়তো গুটিয়ে যাবে সফরকারীরা। তখনই বীরের মতো বুক চিতিয়ে লড়াই করেন উইকেটরক্ষক ব্যাটার রিশাভ পান্ত, যোগ্য সঙ্গ দেন রবিন্দ্র জাদেজা।

স্বভাবসুলভ ঝড় তোলা ব্যাটিংয়ে ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন পান্ত। অন্যদিকে জাদেজা রয়েছেন তৃতীয় সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্তে। এ দুজনের ২২২ রানের ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ভর করে প্রথম দিন শেষে সম্মানজনক অবস্থানে পৌঁছেছে ভারত।

বৃষ্টিবিঘ্নিত প্রথম দিনে কয়েক দফায় হারিয়ে গেছে ১৭ ওভার। খেলা হওয়া ৭৩ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৩৮ রান করেছে ভারত। ইংলিশ বোলারদের ওপর তাণ্ডব চালিয়ে আউট হওয়ার আগে মাত্র ১১১ বলে ১৪৬ রান করেছেন পান্ত। জাদেজা অপরাজিত রয়েছেন ৮৩ রানে।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ভারতের শুরুটা ছিল ভয়াবহ। অফফর্মে থাকা চেতেশ্বর পুজারাকে দেওয়া হয় শুভমান গিলের সঙ্গে ইনিংস সূচনার দায়িত্ব। দুজনের জুটির স্থায়িত্বকাল ছিল মাত্র ৬.২ ওভার। শুবমান আউট হন ১৭ রান করে, পুজারা করেন ১৩ রান।

হানুমা বিহারি ভালো কিছুর আভাস দিলেও ২০ রানের বেশি করতে পারেননি। বিরাট কোহলি আউট হন অদ্ভুতভাবে। ডানহাতি পেসার ম্যাথু পটসের করা ইনিংসের ২৫তম ওভারের দ্বিতীয় বলটি ছিল অফস্ট্যাম্পের বাইরে ইনসুইঙ্গিং ডেলিভারি।

অফস্ট্যাম্পের বেশ বাইরে হওয়ায় শুরুতে ড্রাইভ করতে চেয়েও পরে ব্যাট উঠিয়ে ছেড়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন কোহলি। কিন্তু দেরি করে ফেলেন এই সিদ্ধান্ত নিতে। কোহলি ব্যাট পুরোপুরি ওঠানোর আগেই বলটি তার ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় স্ট্যাম্পে। ফলে থেমে যায় যার ১৯ বলে ১১ রানের ইনিংস।

ind2

আর এতে আরও দীর্ঘায়িত হলো কোহলির সেঞ্চুরিবিহীন সময়। সবশেষ ২০১৯ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশের বিপক্ষে দিবারাত্রির টেস্টে ১৩৬ রান করেছিলেন কোহলি। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত তিন ফরম্যাট মিলে ৬৪ ম্যাচের ৭৪ ইনিংস খেলেও তিন অঙ্ক ছোঁয়া হয়নি কোহলির।

পরে দলীয় শতকের দুই রান বাকি থাকতে সাজঘরের পথ ধরেন ১৫ রান করা শ্রেয়াস আইয়ারও। মাত্র ৯৫ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়লেও, পান্তের ব্যাটে ছিল না এর কোনো ছাপ। শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেন তিনি। অন্যপ্রান্তে জাদেজা দেন পরম নির্ভরতা।

ওয়ানডে স্টাইলে খেলে ৫১ বলে ফিফটি পূরণ করেন পান্ত। সেখান থেকে সেঞ্চুরিতে যেতে নেন আর ৩৮ বল। সবমিলিয়ে ৮৯ বলে সেঞ্চুরি করে টেস্ট ক্রিকেটে ভারতের উইকেটরক্ষকদের মধ্যে দ্রুততম সেঞ্চুরিয়ান হয়েছেন পান্ত। এর আগে রেকর্ডটি ছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির দখলে, ৯৩ বলে।

সেঞ্চুরি পেরিয়েও থামার নাম ছিল না পান্তের। পরের ২১ বলে আরও চারটি চার ও তিনটি ছয়ের মারে করে ফেলেন ৪৬ রান। মনে হচ্ছিল, দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরি হয়তো করেই ফেলবেন পান্ত। কিন্তু তখনই ইংল্যান্ডকে ব্রেক থ্রু এনে দেন জো রুট।

ছন্দ ধরে রেখে মারমুখী শট খেলতে গিয়ে রুটের বলে স্লিপে ধরা পড়েন পান্ত। আউট হওয়ার আগে ১৯ চার ও ৪ ছয়ের মারে মাত্র ১১১ বলে করেন ১৪৬ রান। টেস্ট ক্রিকেটে অন্তত ১০০ বল মোকাবিলা করা ইনিংসে তার চেয়ে বেশি স্ট্রাইকরেটের ইনিংস রয়েছে মাত্র তিনটি।

দলীয় ৩২০ রানে পান্তের বিদায়ে ভাঙে ২২২ রানের জুটি। যা কি না টেস্ট ক্রিকেটে ষষ্ঠ উইকেটে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ। পান্ত ফেরার পর শার্দুল ঠাকুর আউট হন ১ রান করে। তবে নিজের উইকেট বাঁচিয়ে রেখে ১৬৩ বলে ১০ চারের মারে ৮৩ রানে অপরাজিত রয়েছেন জাদেজা।

এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]