শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে মিরাজদের হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন লিটনের দল

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৪৫ পিএম, ২৭ নভেম্বর ২০২২

অনেক ওঠা নামা আর চরম অনিশ্চয়তার পর শেষ পর্যন্ত বিসিএলের শিরোপা জিতলো নর্থ জোন। রাউন্ড রবিন লিগে সাউথ জোনের সঙ্গে না পারলেও আজ রোববারের ফাইনালে আর হারেনি লিটন দাসের দল। মেহেদি হাসান মিরাজের সাউথ জোনকে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ম্যাচের পর ৩ রানে হারিয়ে বিসিএলের এবারের আসরের শিরোপা জিতেছে বিসিবি নর্থ জোন।

নর্থ জোনের বাঁ-হাতি পেসার শফিকুলের করা বিসিএল ফাইনালের শেষ ওভারে সাউথ জোনের জিততে দরকার ছিল ১০ রান। স্ট্রাইকে ছিলেন সাউথজোনের নাসির; কিন্তু প্রথম বলে ওয়াইড হতে যাওয়া বলকে লং অনে ঠেলে ডাবলস নিতে গিয়ে নাসির রান আউট হলে ম্যাচ নর্থজোনের দিকে ঝুঁকে পড়ে।

তার আগে ম্যাচ পেন্ডুলামের মত দুলছিল। একবার মনে হচ্ছিল মিরাজের নর্থ জোন সহজেই জিতে যাবে। আবার পরক্ষণে মনে হয়েছে জিতবে সাউথ জোন। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জয় হলো নর্থ জোনের।

অথচ মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে দ্বিবা-রাত্রির ফাইনালে ২৪৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করে এক সময় খুব ভাল অবস্থায় ছিল মিরাজের দল সাউথ জোন।

ওপেনার এনামুল হক বিজয় আর তরুণ জাকির হাসান দ্বিতীয় উইকেটে আস্থার সাথে খেলে সাউথ জোনকে অনেকটা এগিয়ে দিয়েছিলেন; কিন্তু জুটিতে ঠিক ১০০ রান যোগ হওয়ার পর বিজয়ের আহ্বানে সাড়া দিতে গিয়ে রান আউট হন দারুন খেলতে থাকা জাকির হাসান।

এ বাঁ-হাতির ৩৯ বলে করা ৪২ রানের ইনিংসটি শেষ হওয়ার পরই ইনিংসের চেহারা পাল্টে যায়। তারপর নাইম ইসলাম (০), তৌহিদ হৃদয় (০) আর অধিনায়ক মেহেদি হাসান মিরাজ (০) তিনজন কোনো রান না করলে সাউথজোনের বিপর্যয় ঘনিভূত হয়। নাইম ইসলাম আউট হয়েছেন পেসার রিপন মন্ডলের বলে।

বাঁ-হাতি স্পিনার রাকিবুলের ‘শার্প টার্নে’ পরাস্ত হয়ে স্ট্যাম্পড হন তৌহিদ হৃদয়। তার টার্নে পরাস্ত সাউথজোন অধিনায়ক মিরাজ স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। প্রথম স্লিপে মাটিতে শরীর ফেলে অসামান্য ক্ষিপ্রতা ও দক্ষতায় ক্যাচ ধরে সাউজোন অধিনায়ককে সাজঘরে ফেরত পাঠান নর্থজোনের বর্ষিয়ান রিয়াদ।

এরপর এনামুল হক বিজয়ও ফিরে গেলে রীতিমত চাপে পড়ে যায় সাউথজোন। টি-টোয়েন্টি মেজাজে খেলে ৫টি বিশাল ছক্কা ও ৩ বাউন্ডারিতে মাত্র ৩৩ বলে পঞ্চাশ পূর্ণ করা বিজয় শেষ পর্যন্ত নর্থজোনের বাঁ-হাতি স্পিনার রাকিবুল হাসানের বলে রিটার্র্ন ক্যাচ দিয়ে ৫৯ রানে (৪৮ বলে) ফিরে গেলে ম্যাচ নর্থ জোনের দিকে ঝুঁকে পড়ে।

বিজয় সাজঘরে ফেরার পর ম্যাচের প্রায় পুরো নিয়ন্ত্রন চলে যায় নর্থজোনের হাতে। মনে হচ্ছিল বড় ব্যবধানে হারতে যাচ্ছে সাউথ জোন।
কিন্তু ১২৭ রানে ষষ্ঠ উইকেট পতনের পর নাসির হোসেন আর নাসুম আহমেদ হাল ধরে আবার চিত্র বদলে দেন। নাসির আর নাসুম জুটিতে ওঠে ৮৫ রান। নাসুম ৭০ বলে ৩৮ রানে ফিরলেও নাসির ঠিকই লড়াই চালিয়ে যান।

এক সময়ে মাঠের সফল পারফরমার নাসির এখন মাঠের বাইরের নানা ঘটনায় আলোচিত, সমালোচিত, নিন্দিত। তবে নাসির কিন্তু ফুরিয়ে যাননি। আজ ২৭ নভেম্বর রোববার রাতে শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সে সত্যেরই দেখা মিললো। প্রায় একা লড়ে দলকে জয়ের খুব কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন নাসির।

শেষ পর্যন্ত নাসিরের ৮৮ বলে করা ৬১ রানের সংগ্রামী ইনিংসের ওর ভর করেই শেষ ওভারেও ম্যাচে ছিল সাউথ জোন। তারপরও শেষ রক্ষা হয়নি। বাঁ-হাতি স্পিনার রাকিবুল হাসান ১০ ওভারে ২৯ রানে ৪ উইকেট দখল করে নর্থ জোনের ৩ রানের জয়ে রাখে মূখ্য ভূমিকা ।

আইএইচএস/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।