যে কারণে স্মরণীয়-বরণীয় হয়ে থাকবেন মিরাজ-মোস্তাফিজ

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৫৭ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২

শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের ২০ হাজার দর্শকের অর্ধেকের বেশি তখন মাঠ ছেড়ে আপন ঠিকানার পথে পাড়ি জমিয়েছেন। সাকুল্যে হাজার সাত-আটেক দর্শক তখনও গ্যালারিতে। দিপক চাহারের করা ম্যাচের ৯৬ নম্বর বাংলাদেশ ইনিংসের ৪৬তম ওভারের শেষ ডেলিভারিকে কভার দিয়ে সীমানার ওপারে পাঠিয়ে প্রথমে প্রান্ত বদল করলেন, তারপর রুদ্ধশ্বাসে ছুটলেন মেহেদি হাসান মিরাজ।

বাংলাদেশ ড্রেসিং রুম থেকে সাকিব ও অধিনায়ক লিটনসহ সব ক্রিকেটারই এক দৌড়ে মিরাজকে অভিনন্দন জানাতে ছুটে আসলেন মাঝ মাঠে। ওদিকে মিরাজের চোখে মুখে তখন রাজ্য জয়ের আনন্দ। দু’হাত ছুড়ে আবেগের স্ফুরণ। উচ্ছাসে মেতে উঠলেন টাইগার অলরাউন্ডার।

এ উল্লাস, এই উচ্ছ্বাস জয়োৎসবের। এ আনন্দ ভারতকে হারানোর। অনেক ওঠা নামার ম্যাচে অবশেষে ১ উইকেটের অবিশ্বাস্য জয় পেল লিটন দাসের দল।

ভারতের সাথে খেলা মানেই আজকাল টানটান উত্তেজনা। প্রাণপন আর হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। রুদ্ধশ্বাষ প্রতিদ্বন্দ্বীতা; কিন্তু শেষ পর্যন্ত তীরে এসে তরি ডোবা যেন প্রায় রীতিতে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশের।

Miraj

এক সময় মনে হচ্ছিলো, আজও সেই গল্পেরই পুনরাবৃত্তি ঘটবে। ১৮৭ রানের ছোট্ট লক্ষ্য ছুঁতে গিয়ে বুঝি জয়ের খুব কাছে গিয়ে আবার না পারার বেদনায় নীল হবে বাংলাদেশ! ৩৭ নম্বর ওভারের শেষ বলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আউট হওয়ার পর সে সম্ভাবনাই দেখা দিয়েছিল। তারপর ৮ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে একদম ব্যাকফুটে চলে যাওয়া এবং ১৩৬ রানে ৯ উইকেট খুইয়ে বসা।

এ পরিস্থিতিতে কি করে জিতবে বাংলাদেশ? আগে ৮ রানে ইনিংসের অর্ধেক খোয়ানো দল আবার শেষ উইকেটে ৫১ রান রান করে কিভাবে? অতিবড় বাংলাদেশ সমর্থকও তখন জয়ের আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন।

তবে ইতিহাস ও পরিসংখ্যান আশা জাগাচ্ছিল যে, ওয়ানডেতে বাংলাদেশের শেষ উইকেটে এরচেয়ে বেশ- ৫৪ রান করার রেকর্ডও আছে। ২০০৫ সালের ৩১ আগস্ট শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কলম্বোর এসএসসি মাঠে খালেদ মাসুদ পাইলট আর তাপস বৈশ্যর শেষ উইকেটে ৫৪ রান তোলার কৃতিত্ব আছে এবং দশম উইকেটে সেটাই বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় পার্টনারশিপ।

তবে পাইলট আর তাপস ম্যাচ জেতাতে পারেননি। শেষ উইকেটে তাদের দৃঢ়তার পরও লঙ্কানদের ২৬৯ রানের জবাবে বাংলাদেশ হেরেছিল ৮৮ রানে।

কিন্তু আজ মেহেদি হাসান মিরাজ (নটআউট ৩৮) আর শেষ ব্যাটার মোস্তাফিজ (১০ অপরাজিত) দশম উইকেটে তারচেয়ে ৩ রান কম (৫১ রান) তুললেও ঠিক ম্যাচ জিতিয়ে ফিরেছেন।

এবং শুধু তাই নয়, ভারতের সাথে ক্লোজ ম্যাচ হেরে যাওযার বৃত্ত থেকেও দলকে টেনে তুলেছেন। বাংলাদেশ শুধু জয়ের কাছে গিয়ে হারেই না। জিততেও পারে। এবং সেটা শেষ উইকেট জুটির ওপর ভর করেও, এ সত্য প্রতিষ্ঠিত হলো আজ ৪ ডিসেম্বর রোববার শেরে বাংলায়।

এআরবি/আইএইচএস/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।