চট্টগ্রামে জেতা ট্রফি ঢাকায় প্রেরণা টিসি স্পোর্টসের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:২৭ পিএম, ২১ জানুয়ারি ২০১৮

ম্যাচটা চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে হলে ভেন্যুটাকে পয়মন্ত ভেবেই মাঠে নামতো মালদ্বীপের ক্লাব টিসি স্পোর্টস। তবে ভেন্যুটা ভিন্ন হলেও বাংলাদেশকে তো পয়মন্ত বলতেই পারে দ্বীপ রাষ্ট্রের ক্লাবটি। ১০ মাস আগে এই দেশ থেকেই যে তারা নিয়ে গেছে শেখ জামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের ট্রফি।

চট্টগ্রামে জেতা ওই ট্রফিটাকে প্রেরণা ধরেই মঙ্গলবার দলটি ঢাকায় খেলতে নামবে এএফসি কাপের কোয়ালিফাইং রাউন্ডের প্লে-অফ ম্যাচ। রোববার ঢাকায় পা রেখে সফরকারী ক্লাবের কোচ নিজাম মোহাম্মেদ বলেছেন, গত বছর চট্টগ্রামে আমরা যে ট্রফি জিতেছে, তা আমাদের খেলোয়াড়দের জন্য বাড়তি অনুপ্রেরণা।

টিসি স্পোর্টসের কথায় বোঝা গেলো, তারা সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের খোঁজ-খবর নিয়েই এসেছে। ‘আমাদের প্রতিপক্ষ সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব আবাহনী ও চট্টগ্রাম আবাহনীর মতোই শক্তিশালী। তাদের দ্বিতীয় লেগের ৬-৭টি ম্যাচ দেখেছি। সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব যে চট্টগ্রাম আবাহনী থেকে কিছু কয়েকজন খেলোয়াড় নিয়েছে তাও জানি। ওই ফুটবলারদের সঙ্গে শেখ কামাল টুর্নামেন্টে খেলেছে আমার ছেলেরা’-বলেছেন অতিথি ক্লাবটির কোচ।

প্রতিপক্ষ দল সম্পর্কে ধারণা ও শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের ট্রফি জয়ের অভিজ্ঞতা থাকলেও সময় ও ভেন্যুর পার্থক্যটাকেও গুরুত্ব দিলেন মালদ্বীপের ক্লাবটির কোচ, ‘সেই সময় ও এই সময়ের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। আবার চট্টগ্রামের আর ঢাকার মাঠও এক না। আলাদা টুর্নামেন্ট, আলাদা ভেন্যু। এগুলো আমাদের মাথায় রেখেই খেলতে হবে। আমাদের দলে আছেন বেলারুশের একজন গোলরক্ষক এবং কিরগিজস্তান ও মিশরের একজন করে মিডফিল্ডার। শেখ কামাল টুর্নামেন্টের দলটিই এখানে এসেছে। মাত্র তিন-চারজন নুতন ফুটবলার নিয়েছি।’

বাংলাদেশের কোনো ক্লাবের সঙ্গে খেলার সুবিধার কথাও বলেছেন টিসি স্পোর্টস ক্লাবের কোচ, ‘বাংলাদেশের ফুটবলারদের সামর্থ্য সম্পর্কে ধারণা আছে আমার। আমরা সর্বশেষ লিগ রানার্সআপ। যদিও খুব বেশি প্রস্তুতি নিয়ে আসতে পারিনি। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে লিগ শেষ হয়েছে। ছুটিতে ছিলেন ফুটবলাররাও। কোনো প্রস্তুতি ম্যাচও খেলা হয়নি। সাইফ কিছুদিন আগ লিগ শেষ করেছে। তারাও প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারেনি। ইংলিশ ফুটবলার চার্লি শেরিংহামের উচ্চতার কারণে কিছুটা সুবিধা পাবে স্বাগতিকরা।’

ঢাকায় সাইফের সঙ্গে হার এড়াতে পারলে টিসি স্পোর্টসের জন্য সুবিধাজনকই হবে। যদিও তাদের কোচ ড্র নয়, জয়ের কথাই ভাবছেন, ‘এটা ঠিক, ঘরের মাঠ বলে সাইফ বাড়তি সুবিধা পাবে। তবে আমরা এখানে জয়ের জন্য এসেছি। চট্টগ্রাম থেকে শেখ কামাল ট্রফি জিতেছি, যা আমার দলের জন্য অনুপ্রেরণা। আমাদের খেলোয়াড়রা আত্মবিশ্বাস নিয়েই খেলবে।’

সর্বশেষ লিগের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা ইব্রাহিম মাদুহি টিসি স্পোর্টসের অন্যতম প্রধান অস্ত্র। ‘আমাদের লিগে সর্বোচ্চ ২৬ গোল রয়েছে একজনের। আমার ১৭ টি। এবারের লিগে ১৭টি গোল করেছি আমি। চট্টগ্রামে শেখ কামাল গোল্ডকাপে একটি গোল করেছিলাম আমি। এখানেও আমি গোল করে দলকে জেতাতে চাই’-বলেন টিসি স্পোর্টসের ফরোয়ার্ড ইব্রাহিম মাদুহি।

মালদ্বীপ ও বাংলাদেশের আবহাওয়াকে প্রায় একই উল্লেখ করে দলের অধিনায়ক আবদুল্লাহ হানিফ বললেন, ‘আশা করি কন্ডিশন কোনো সমস্যা হবে না। জাতীয় দলের চার ফুটবলার আছেন আমাদের। জানুয়ারিতেই ক্যাম্প শুরু করেছি, ৩ বিদেশিও মাত্র কয়েকদিন আগে যোগ দিয়েছেন। আমাদের অনুপ্রেরণা যে ১০ মাস আগে এ দেশ থেকেই ট্রফি নিয়েছি আমরা।’

আরআই/এমএমআর/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :