এশিয়ান গেমসের আগে কোরিয়াতেও ক্যাম্প ফুটবলারদের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৫৩ পিএম, ২২ জুলাই ২০১৮

চোখ সেপ্টেম্বরে ঘরের মাঠের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ। দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় এ ফুটবল টুর্নামেন্টে আন্ডারডগ হয়ে যাওয়া বাংলাদেশ এখন ঘুরে দাঁড়ানোর পথ খুঁজছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) তাই নতুন বিদেশি কোচিং স্টাফ নিয়োগ দিয়ে টুর্নামেন্টের আগে দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে। যার অংশ হিসেবে ফুটবলারদের দুই সপ্তাহের কন্ডিশনিং ক্যাম্প করিয়ে এনেছে মধ্য প্রাচ্যের দেশ কাতার থেকে। এবার ফুটবল দলকে পাঠানো হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া। সেখানেও ১০ দিনের মতো অনুশীলন করবে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

ফুটবল দল কাতারে কন্ডিশনিং ক্যাম্প করেছে ৭ থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত। সেখানে একটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলেছে স্থানীয় একটি দলের সঙ্গে। যে ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র করেছে মামুনুলরা। কেমন হলো কাতারের কন্ডিশনিং ক্যাম্প এবং দল নিয়ে পরবর্তী পরিকল্পনা কী? এসব নিয়েই রোববার আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করেছেন জাতীয় দলের নতুন ইংলিশ কোচ জেমি ডে। সঙ্গে ছিলেন তার দুই স্বদেশি সহকারী কোচ স্টুয়ার্ট পল ওয়াটকিস ও ফিটনেস কোচ লিন্ডসে রোজার পল ডেভিস।

সংবাদ সম্মেলনেই জানানো হয়েছে, ফুটবল দলকে নিয়ে কোচিং স্টাফ দক্ষিণ কোরিয়া যাবে ৩০ জুলাই। তার আগে ২৪ জুলাই থেকে ক্যাম্প চলবে বিকেএসপিতে। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের আগে জেমি ডে’র সামনে ছেলেদের পরীক্ষা করার ভালো একটি সুযোগ এশিয়ান গেমস। যা ইন্দোনেশিয়ায় শুরু হবে ১৮ আগস্ট। গেমসের ফুটবল ডিসিপ্লিন অবশ্য শুরু হয়ে যাবে তারও চারদিন আগে। বাংলাদেশ ১১ আগস্ট ইন্দোনেশিয়া যাবে।

৩০ জুলাই বাংলাদেশ দল কোরিয়ায় যাবে এবং সেখানে অনুশীলন ও প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেই চলে যাবে ইন্দোনেশিয়ায়। বাংলাদেশ জাতীয় দলটি হবে তারুণ্য নির্ভর। যে কারণে এশিয়ান গেমসটা বাংলাদেশ দলের জন্য একটা পরীক্ষা ক্ষেত্রও। কারণ, গেমসে ফুটবল দল হবে অনূর্ধ্ব-২৩।

কাতারের কন্ডিশনিং ক্যাম্প নিয়ে নতুন কোচ জেমি ডে বলেছেন, ‘সেখানে প্রচন্ড গরমে অনুশীলন করতে হয়েছে। কাতারে মূলতঃ ফিটনেস নিয়েই বেশি কাজ হয়েছে। এখন খেলোয়াড়রা কয়েক দিনের ছুটি পেয়েছে। ছুটি শেষে বিকেএসপিতে ক্যাম্প শুরু করবো। তারপর কোরিয়া। সেখানে খেলোয়াড়রা আরও ম্যাচটাইম পাবে। কাতারে ৪৫ মিনিট করে খেলেছে। ট্রেনিংয়ে ওদের যা যা দেখিয়েছে অল্প সময়ের মধ্যে ওরা ভালভাবেই তা করতে পেরেছে।’

এশিয়ান গেমস নিয়ে জেমির ডের কথা, ‘গেমসে আসলে তরুণদের দেখবো। তারা সে অভিজ্ঞতা সাফে কাজে লাগাবে। কাতারে ৪৫ মিনিটে ওদের সামর্থ্য দেখেছি। আমার বিশ্বাস ওরা ৯০ মিনিটও পারফর্ম করতে পারবে। কোরিয়ায় ওখানকার স্থানীয় ক্লাবের বিপক্ষে আমরা আরও কয়েকটা প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবো।’

কাতারের প্রস্তুতি ম্যচে আরো গোল প্রত্যাশা ছিল জেমি ডে’র, ‘ওই ম্যাচে ম্যাচে ৭টা সুযোগ এসেছিল আমাদের সামনে। দুই থেকে তিনটা গোল হওয়া উচিত ছিল। কেন হলো না, সে কারণ খুঁজে তা নিয়ে কাজ করা হবে।’

নতুন কোচের নতুন শিষ্য। কারো কারো পারফরম্যান্স নিশ্চয়ই মনে ধরেছেন জেমি ডে’র। সংবাদ সম্মেলনে এ প্রসঙ্গে তাদের নাম বলতে ভুলেননি তিনি ‘রনি খুব ভাল করেছে। ইমন বাবু প্রধান স্ট্রাইকার হিসেবে খেলেছে। সাদের পারফম্যান্সও ছিল ভালো। তবে সেট পিস নিয়েও আমাদের আরও কাজ করতে হবে। বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন এ কথা আমাকে শুরুতেই বলেছেন।’

আরআই/আইএইচএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :