গোল নিয়েও ভাবতে হচ্ছে কিশোরী ফুটবলারদের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:৫১ পিএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দুই ম্যাচে ১৮ গোল দিয়েও যেন স্বস্তি নেই বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৬ কিশোরী ফুটবলারদের। তৃতীয় ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে জয়ের পাশপাশি গোল নিয়েও ভাবতে হবে বাংলাদেশকে। গ্রুপের অন্য দল, ভিয়েতনাম দুই ম্যাচে সমান ১৮ গোল করায় এমন হিসেব চলে এসেছে বাংলাদেশের সামনে। পয়েন্ট সমান হলে গোলেই যে ভাগ্য নির্ধারণ হতে পারে!

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্বের ‘এফ’ গ্রুপের বাংলাদেশ-ভিয়েতনাম ম্যাচটি যেন অলিখিত ফাইনাল। ২৩ সেপ্টেম্বর এই ম্যাচের ফলই নির্ধারণ করে দেবে এই গ্রুপ থেকে কোন দল চ্যাম্পিয়ন হয়ে উঠবে দ্বিতীয় রাউন্ডে।

বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচে ১০ গোল দিয়েছে বাহরাইনের জালে। ওই দলকে ভিয়েতনাম দিয়েছে ১৪ গোল। শুক্রবার সকালে ভিয়েতনাম খেলবে লেবাননের বিরুদ্ধে, যে দলের জালে বাংলাদেশ গোল দিয়েছে ৮টি। এ ম্যাচটি দেখে হিসেবে-নিকেশ করেই খেলতে নামবে বিকেলে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে। গ্রুপের খেলা শেষে গোল ফ্যাক্টর হতে পারে। যে কারণে, বাংলাদেশ দলের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বলেছেন, তাদের সব কিছু মাথায় রেখেই মাঠে নামতে হবে।

আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ জিতবে- এটা অনুমেয়। যে কারণে, ভিয়েতনামের সঙ্গে ম্যাচের আগে কয়েকজন খেলোয়াড়কে বিশ্রাম দেয়াও প্রয়োজন মনে করছেন কোচ। অধিনায়ক মারিয়া মান্ডার হলুদ কার্ড আছে একটি। তাকে এ ম্যাচে না খেলানোর একটা চিন্তাও আছে তার।

বাংলাদেশ যদি সব ম্যাচ জিতে, তাহলে অবশ্য গোল-টোল কোনো বিষয় হয়ে দাঁড়াবে না। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই উঠে যাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে। যদি প্রয়োজন হয়? এটা মাথায় রেখেই হঠাৎ গোল বাড়ানোর চিন্তা বাংলাদেশ দলের।

অধিনায়ক মারিয়া মান্ডা শুরু থেকেই বলে আসছেন, ঘরের মাঠে তারা ভালো খেলা উপহার দিতে চান। বৃহস্পতিবারও একই কথা বললেন তিনি, ‘আমরা সব ম্যাচ জিতেই পরের রাউন্ডে উঠতে চাই। সবার কাছে দোয়া চাই যাতে ভালো খেলা উপহার দিতে পারি।’ বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের ম্যাচটি শুরু হবে বিকেলে সাড়ে ৩ টায়।

আরআই/আইএইচএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :