জিতলেও নেইমারকে হারাল ব্রাজিল

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:৩৯ এএম, ২১ নভেম্বর ২০১৮

বার্মিংহ্যামের এমকে স্টেডিয়ামে খেলা। প্রতিপক্ষ স্যামুয়েল ইতোর দেশ ক্যামেরুন। স্বাভাবিকভাবেই এই ম্যাচে শুরু থেকে খেলার কথা নেইমারের। কোচ তিতের সেরা একাদশে ছিলেনও তিনি। নেতৃত্বের আর্মব্যান্ড পরেই। কিন্তু বিধিবাম, ম্যাচের বয়স ৭ মিনিট হতে না হতেই বিপদ। ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়তে হলো পিএসজি তারকা নেইমারকে। যদিও কতদিন তাকে মাঠের বাইরে কাটাতে হবে, সেটা এখনও জানা যায়নি।

তবে, নেইমার মাঠ ছেড়ে গেলেও ঠিকই জয় পেয়েছে ৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। ম্যাচের ৪৫তম মিনিটে নেইমারের পরিবর্তে মাঠে নামা রিচার্ডসনের একমাত্র গোলে ১-০ ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে তিতের শিষ্যরা। এ নিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের পর টানা ৬ ম্যাচের সবগুলোতে জয় পেলো ব্রাজিল। শুধু তাই নয়, এই ৬ ম্যাচের কোনোটিতেই গোল হজম করতে হয়নি সেলেসাওদের।

সাত মিনিটের মাথায় একটি শট নিতে গিয়ে গ্রোইনে টান লেগে মাঠ ছেড়ে নেইমারের চলে যাওয়ার পর অবশ্য ব্রাজিলকে গুচিয়ে উঠতে বেশ সময় নিতে হয়েছিল। কিছুটা অগোচালো, এলোমেলো লাগছিলো তিতের দলকে। অবশেষে, নিজেদের গুচিয়ে নিয়ে প্রথমার্ধের ঠিক শেষ মুহূর্তে গোলের তালা খুলে নেয় ব্রাজিলিয়ানরা। উইলিয়ানের নেয়া কর্নার কিক থেকে ভেসে আসা বলে দুর্দান্ত এক হেড করেন রিচার্ডসন।

প্রথমার্ধ কিছুটা স্লো হলেও, দ্বিতীয়ার্ধে ঠিকই ম্যাচটা ওপেন হয়ে যায়। দু’দলই দারুণ আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে খেলতে থাকে। তবে ম্যাচের রাশ কিন্তু থেকে যায় ব্রাজিলের হাতেই।

Neymar

পরিবর্তিত হিসেবে মাঠে নামা গ্যাব্রিয়েল হেসুস সুযোগ পেয়েছিলেন ব্যবধান দ্বিগুণ করার। ম্যাচের ৫৩ মিনিটে হেসুসের দারুণ একটি শট সাইডবারে লেগে ফিরে আসে। এরপর আবার আর্থারের ২৫ মিটার দুর থেকে নেয়া শট বারের ঠিক উপরের প্রান্তে ফিরিয়ে দেন ক্যামেরুনের গোলরক্ষক।

ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার অ্যালান অবশ্য দারুন দুটি সুযোগ পেয়েছিলেন স্কোরলাইনকে আরও স্বাস্থ্যবান করে তোলার জন্য। কিন্তু দু’বারই তার সামনে হিমালয় পাহাড়ের মত বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন ক্যামেরুন গোলরক্ষক ফ্যাব্রিক ওনদোয়া।

ম্যাচ শেষে ব্রাজিলের গোলদাতা রিচার্ডসন বলেন, ‘আগের ম্যাচে আমি দারুন একটি সুযোগ পেয়েছিলাম গোল করার। কিন্তু দুর্ভাগ্য, গোলটি করতে পারিনি। তবে আজ (গতকাল রাতে) নিজের মনযোগটা আরও বেশি দিতে পেরেছিলাম। যে কারণে গোলটাও পেয়েছি এবং দলকেও সহযোগিতা করতে পেরেছি।’

এভার্টনের এই ফুটবলার বলেন, ‘কোচ তিতে আমাদেরকে বলে দিয়েছেন, ওপেনলি ম্যাচটা খেলতে। উইলিয়ানের সঙ্গে জায়গা অদল-বদল করে যেনো খেলি সেটাও বলে দেন। আমাদের মুভমেন্টটা এমনভাবে হওয়া প্রয়োজন ছিল, যাতে তাদের সেন্ট্রাল ডিফেন্স দ্বিধায় পড়ে যায়, কাকে সামলাবে- এ নিয়ে। এটাই কাজ করেছে বেশি, আমরা জায়গা তৈরি করে নিতে পেরেছি এবং এ কারণে সুযোগগুলোও তৈরি করতে পেরেছি।’

আইএইচএস/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :