ক্রীড়াবিদরাও নিরাপদ নয় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম চত্বরে

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৭:৩৩ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৮

দেশের খেলাধুলার প্রধান ভেন্যু বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম চত্বর ক্রীড়াবিদদের জন্যই নিরাপদ নয়। ফুটবল ও হকির প্রধান ভেন্যুর পাশাপাশি পল্টন ময়দানজুড়ে রয়েছে আরো অনেক ক্রীড়া স্থাপনা; কিন্তু এ স্টেডিয়াম চত্বরে পা রাখলে যে কেউ বোকা বনে যাবেন। এ এলাকায় হাঁটারও জো নেই। যানবাহনের অবাধ চলাচল স্টেডিয়াম চত্বর দিয়ে। ক্রীড়াবিদদের জন্য যে জায়গাটা হওয়ার কথা সবচেয়ে নিরাপদ, সেখানেই তাদের চলাফেরা করতে হয় দুর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়ে।

শুক্র-শনিবার সাধারণত একটু ফাঁকা থাকে মতিঝিল এলাকার আশপাশ; কিন্তু বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম চত্বর তা থেকে আলাদা। এখানে দিনভর পার্কিং থাকে শতশত যানবাহনের। যার বেশিরভাগই প্রাইভেট কার। ভ্যান, পিকআপ, মটরসাইকেল, রিক্সাতো থাকেই। মাঝে মধ্যে বড় বড় বাস ও ট্রাকও শোভা পায় এখানে।

শনিবার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ছিল স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের দুটি বড় ম্যাচ। আবাহনী, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, ব্রাদার্স ইউনিয়নের ফুটবলারদের স্টেডিয়াম চত্বরে ঢুকতে হতে হয়েছে অনেকটা গলদঘর্ম হয়ে। ফুটবলারদের বহনকারী বাসগুলোও স্বাভাবিকভাবে ঢুকতে পারেনি স্টেডিয়ামে। অন্য দিনগুলোতে হয় আরো বাজে অবস্থা।

বিকেলে মাঠে খেলা চলাকালীন স্টেডিয়ামের বাইরের অংশে দেখা গেছে চারদিকে যানজট। শতশত রিক্সা ও প্রাইভেট কার দাঁড়িয়ে আছে বঙ্গবন্ধু ও মওলনা ভাসানী স্টেডিয়ামের মাঝের জায়গাটা। বোঝার উপায় নেই এটা খেলাধুলার স্থান নাকি রাজধানীর ব্যস্ত কোনো সড়ক। রিক্সার বেল, গাড়ীর হর্ণ, মানুষের চিল্লাপাল্লা- কী যে এক অদ্ভূত পরিবেশ খেলাধুলার এই কেন্দ্রবিন্দুতে।

এমনিতেই স্টেডিয়ামগুলো প্রধান্য পায় ব্যবসার কাজে। স্টেডিয়ামগুলো তৈরিই হয়েছে যেন দোকান ভাড়া দেয়ার জন্য। শুধু তাই নয়, দোকানিরা অবৈধভাবে দখল করে রাখে বারান্দ। এমনকি বারান্দা ছাপিয়ে রাস্তায়ও মালামাল সাজিয়ে রাখে দোকানিরা। হাতে গোনা যে ক’জন দর্শক আসে স্টেডিয়ামে ফুটবল খেলা দেখতে, তাদের নাভিশ্বাস ওঠে প্রবেশের গেটগুলোয় পৌঁছাতে।

স্টেডিয়ামের মালিক জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ প্রধান গেটগুলো ইজারা দেয়। ইজারাদাররাই গেট থেকে টাকার বিনিময়ে সব ধরনের যানবাহন ঢোকার অনুমতি দেয়। জিপিও হয়ে মতিঝিলমুখী যানবাহনের বেশিরভাগই ইজারাদারদের টাকা দিয়ে স্টেডিয়াম চত্বরকে ব্যবহার করে লিংকরোড হিসেবে। যে কারণে দিনভর যানবাহনের চাপ থাকে স্টেডিয়ামে। সন্ধ্যার পরও এখানে লেগে থাকে যানজট। ব্যাপারটা দেখেও যেন দেখার কেউ নেউ।

আরআই/আইএইচএস/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :