শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবলের ছন্দপতন

রফিকুল ইসলাম
রফিকুল ইসলাম রফিকুল ইসলাম , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:৪২ পিএম, ০৯ জানুয়ারি ২০১৯

দুই বার আয়োজনের পর ছন্দপতন হয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনী আয়োজিত শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের। ২০১৫ সালে প্রথম, ২০১৭ সালে দ্বিতীয়বার হয়েছিল আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামালের নামের এ টুর্নামেন্ট। তারপর আর আলোর মুখ দেখেনি ক্লাবভিত্তিক এই আন্তর্জাতিক ফুটবল প্রতিযোগিতাটি। এ বছর হবে কিনা, তাও নিশ্চিত নয়।

চট্টগ্রাম আবাহনীর মহাসচিব শামসুল হক চৌধুরী এমপি গত বছর মার্চে জাগো নিউজকে জানিয়েছিলেন, ২০১৮ সালের শেষ দিকে ৮ দল নিয়ে টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসর আয়োজন করবেন তারা। শুধু তাই নয়, টুর্নামেন্ট নিয়ে নতুন কিছু পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছিলেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাবেক সদস্য। বছর চলে গেলেও টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসর আলোর মুখ দেখেনি।

আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট মানেই গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো করতে হয় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে। ফিফা, এএফসির অনুমোদন আনা, দল ঠিক করা, বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সমন্বয় করে টুর্নামেন্টের সময় বের করা, দলগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, রেফারি ও অন্যান্য ম্যাচ অফিসিয়াল ঠিক করাসহ টেকনিক্যাল বিষয়গুলো দেখতে হয় বাফুফেকে। যে কারণে দেশের ফুটবলের অভিভাবক সংস্থাটি তাদের বর্ষপঞ্জিতে সময় নির্ধারণ করেছিল এ টুর্নামেন্টের। বাফুফের ২০১৮ সালের বর্ষপঞ্জিতে টুর্নামেন্টের সময় ছিল ১০ থেকে ২২ এপ্রিল।

টুর্নামেন্ট দুই বছর না হওয়া প্রসঙ্গে বাফুফের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ বলেছেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলের নামের এ টুর্নামেন্ট নিয়ে আমাদের আলাদা আগ্রহ আছে। যে কারণে প্রতি ক্যালেন্ডারেই আমরা এ টুর্নামেন্টের জন্য সময় রাখি। কিন্তু আয়োজক চট্টগ্রাম আবাহনীর কাছ থেকে আমরা সাড়া পাইনি। ২০১৭ সালের ১০ ডিসেম্বর এবং ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম আবাহনীর মহাসচিব বরাবর আমরা চিঠি দিয়ে টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে কিনা তা জানতে চেয়েছিলাম। কোনো উত্তর দেয়নি। দ্বিতীয় চিঠির জবাব দেয়ার শেষ সময় ছিল ৫ জানুয়ারি ২০১৯।’

শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট নিয়ে চট্টগ্রাম আবাহনীর সর্বশেষ অবস্থান কী? তা জানতে ক্লাবটির মহাসচিব শামসুল হক চৌধুরী এমপির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। তাই জানা যায়নি ২০১৯ সালে টুর্নামেন্ট আয়োজনের কোনো পরিকল্পনা তাদের আছে কিনা।

চট্টগ্রাম আবাহনী টুর্নামেন্টের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে না পারায় হতাশ ফুটবলপ্রেমীরা। কারণ, ক্লাবভিত্তিক এ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট বেশ সাড়া ফেলেছিল এ অঞ্চলে। যে কারণে টুর্নামেন্টটি নিয়মিত আয়োজনের পরিকল্পনা করেছিল চট্টগ্রাম আবাহনী। নানা কারণে অনিয়মিত হয়ে যাচ্ছে এ টুর্নামেন্ট।

টুর্নামেন্টটি চট্টগ্রাম আবাহনীর জন্য স্মরণীয় এক আয়োজন। ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম আসরে তারা হয়েছিল চ্যাম্পিয়ন। ফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনী হারিয়েছিল ভারতের ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে। দ্বিতীয় আসরের সেমিফাইনালে দক্ষিণ কোরিয়ার দল এফসি পচেয়নের কাছে ২-১ গোলে হেরে বিদায় নেয় চট্টগ্রামের আকাশি-হলুদ জার্সিধারীরা। দ্বিতীয় আসরের ট্রফি নিয়ে যায় মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টস। ফাইনালে তারা হারায় দক্ষিণ কোরিয়ার এএফসি পচেয়নকে।

আরআই/এমএমআর/জেআইএম