অক্টোবরে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:১৫ পিএম, ১৫ জানুয়ারি ২০১৯

দুই বার আয়োজনের পর ছন্দপতন হয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনী আয়োজিত শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের। তবে টুর্নামেন্টটির তৃতীয় আসরের আলোর মুখ দেখছে এ বছরই। চট্টগ্রাম আবাহনী এ বছর ক্লাবভিত্তিক এ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট করতে চায়- এ মর্মে দুইদিন আগে চিঠি দেয়ার পর বাফুফের নির্বাহী কমিটি অক্টোবরে সময় নির্ধারণ করেছে। বাফুফের এ সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে টুর্নামেন্ট নিয়ে যে জটিলতা তৈরি হয়েছিল তা কেটে গেলো বলেই মনে করছেন অনেকে।

২০১৫ সালে প্রথম, ২০১৭ সালে দ্বিতীয়বার হয়েছিল আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামালের নামের এ টুর্নামেন্ট। বাফুফে ও চট্টগ্রাম আবাহনীর মধ্যে সমন্বয়হীনতায় টুর্নামেন্ট হয়নি ২০১৮ সালে। অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিল এ বছর হওয়াও।

এ নিয়ে একে অন্যের উপর দোষ চাপিয়েছিল বাফুফে ও চট্টগ্রাম আবাহনী। বাফুফের দাবি তারা চট্টগ্রাম আবাহনীকে একাধিকবার চিঠি দিয়েও সাড়া পায়নি। চট্টগ্রাম আবাহনী বলেছে তারা চিঠি পায়নি। এ নিয়ে বিবৃতি পাল্টা-বিবৃতির পর টুর্নামেন্ট নিয়ে তৈরি হওয়া জটিলতা কাটতে শুরু করেছে।

চট্টগ্রাম আবাহনী চাইছে বাংলাদেশের তিন ক্লাব মোহামেডান, আবাহনী ও চট্টগ্রাম আবাহনীর সঙ্গে বাইরের তিন ক্লাব নিয়ে টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে। ভারতের ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগান আছে তাদের পছন্দের তালিকায়। সেই সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশের আরো ভালো একটি ক্লাব। তবে দলগুলো নির্ভর করছে তাদের সিডিউলের উপর।

টুর্নামেন্টটি চট্টগ্রাম আবাহনীর জন্য স্মরণীয় এক আয়োজন। ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম আসরে তারা হয়েছিল চ্যাম্পিয়ন। ফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনী হারিয়েছিল ভারতের ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে।

দ্বিতীয় আসরের সেমিফাইনালে দক্ষিণ কোরিয়ার দল এফসি পচেয়নের কাছে ২-১ গোলে হেরে বিদায় নেয় চট্টগ্রামের আকাশি-হলুদ জার্সিধারীরা। সর্বশেষ আসরের ট্রফি নিয়ে যায় মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টস। ফাইনালে তারা হারায় দক্ষিণ কোরিয়ার এএফসি পচেয়নকে।

আরআই/আইএইচএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :