স্বপ্নার স্বপ্ন : আরও বেশি গোল

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৫:২৯ পিএম, ২৩ এপ্রিল ২০১৯

সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে দুই গোলের জয়ের প্রথমটি করেছিলেন স্ট্রাইকার সিরাত জাহান স্বপ্না। মিসও করেছেন গোটা তিনেক। না হলে নির্ঘাত হ্যাটট্রিক হয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী ফুটবল দলের এ ফরোয়ার্ডের। সহজ সহজ সুযোগ মিস করায় মনটাও খারাপ দলের আক্রমণভাগের এ খেলোয়াড়ের। কিন্তু শেষ হয়ে যাওয়া ম্যাচটা আর মনে রাখতে চান না স্বপ্না। তার পুরো মনোসংযোগ এখন পরের ম্যাচের দিকে। শুক্রবার গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে কিরগিজস্তানের মুখোমুখি হবে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

প্রথম ম্যাচে ৩০ মিনিটে দুই গোলে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের মেয়েরা বাকি ৬০ মিনিটে কোনো গোল পায়নি। অনেকের চোখে আক্রমণভাগের খেলোয়াড়দের আত্মকেন্দ্রিক খেলা অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছিল গোল করার ক্ষেত্রে। যদিও তা মানতে নারাজ স্বপ্না ‘আমরা সেলফিশ গেম খেলেছি, এ অভিযোগ ঠিক না। আমরা চেষ্টা করেছি, সুযোগ তৈরি করেছি; কিন্তু গোল হয়নি।’

আগামী ম্যাচগুলোয় এভাবে সুযোগ যাতে নষ্ট না হয় সেদিকে সতর্ক থাকবেন উল্লেখ করে স্বপ্না বলেছেন, ‘সামনের ম্যাচে যেন এভাবে গোল মিস না হয় তা নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে আমাকে। সুযোগ পেলে কাজে লাগাতে চাইব।’

টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার লক্ষ্য আছে কি না জানতে চাইলে সিরাত জাহান স্বপ্না বলেন, ‘তা নিয়ে কথা বলতে চাই না। নিজে গোল করার চেয়ে ম্যাচ জিতলেই বেশি খুশি হই। দলকে জেতানোই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। সর্বোচ্চ গোলদাতা কে হবে সেটা নিয়ে চিন্তা করি না। যার পা থেকে গোল হয় হোক, আমাদের গোলের সংখ্যা বাড়ুক, আমরা যেন জিতি।’

আপনি স্ট্রাইকার। সবার চোখ আপনাদের দিকেই থাকে। আপনাকে তো সেভাবেই আক্রমণভাগের নেতৃত্ব দিতে হবে। তা নিয়ে কী ভাবছেন? ‘আমি যেহেতু স্ট্রাইকার। অবশ্যই সুযোগ কাজে লাগানোর চেষ্টা করবো। ভালো কিছু দেওয়ার চেষ্টা করবো। প্রথম ম্যাচে আমাদের দুর্বল জায়গা ছিল। আমরা অনেক গোল মিস করেছি। আমরা চেষ্টা করব পরের ম্যাচে যেন এভাবে গোল মিস না হয়। কাজে লাগাতে পারি। পরের ম্যাচে চাইব সেই সুযোগগুলো কাজে লাগাতে।’

হ্যাটট্রিকের সুযোগ নষ্ট প্রসঙ্গে স্বপ্না বলেন, ‘গোলের এবং হ্যাটট্রিকের সুযোগ মিস করার জন্য অবশ্যই খারাপ লাগছে। তবে যে ম্যাচ চলে গেছে সে ম্যাচ নিয়ে ভেবে লাভ নেই। ওটা এখন অতীত। সামনের ম্যাচের দিকে আমাদের সব ফোকাস থাকবে।’

আরআই/আইএইচএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :