উজ্জীবিত চেন্নাইন বনাম চোটগ্রস্থ আবাহনী

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:১২ পিএম, ১৪ মে ২০১৯

তপু বর্মনকে আগেই হারিয়েছিল আবাহনী। তারপর ইনজুরির মিছিলে যোগ হয় টুটুল হোসেন বাদশা ও আতিকুল ইসলাম ফাহাদ। দলের নতুন সদস্য ব্রাজিলিয়ান ওয়েলিংটনেরও মাঠে নামা অনিশ্চিত। আবাহনীর পর্তুগিজ কোচ মারিও লেমসের কপালে তাই দুশ্চিন্তার ভাঁজ। তিন ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে দ্বিতীয় স্থানে থাকা দলটির চ্যালেঞ্জ এখন টিকে থাকার। এএফসি কাপের নকআউট পর্বে ওঠার সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রাখতে চেন্নাইন এফসির বিরুদ্ধে ফিরতি ম্যাচে জিততেই হবে আবাহনীকে।

নেপালের চ্যাম্পিয়ন মানাং মার্সিয়াংদি ক্লাবকে হারিয়ে দারুণ সূচনা করেও সে ধারায় থাকতে পারেনি আবাহনী। ঘরের মাঠে ভারতের আই লিগ চ্যাম্পিয়ন মিনারভা পাঞ্জাবের সঙ্গে ড্র করার পর আহমেদাবাদ গিয়ে হেরেছে ইন্ডিয়া সুপার লিগ চ্যাম্পিয়ন চেন্নাইন এফসির কাছে। চেন্নাইয়ের দলটির সঙ্গে ফিরতি ম্যাচটাই এখন আবাহনীর জন্য টিকে থাকার লড়াই।

বুধবার সন্ধ্যা ৭ টায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হতে যাওয়া ম্যাচটি তাই আবাহনীর জন্য বড় এক চ্যালেঞ্জ। যার সঙ্গে যোগ হয়েছে দলের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন খেলোয়াড়ের ইনজুরি।

মঙ্গলবার বাফুফে ভবনে ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে আবাহনীর কোচ মারিও লেমস বলেছেন, ‘যদি বলি আমরা তপু ও ফাহাদকে মিস করব না, তাহলে সেটা মিথ্যা বলা হবে। জাতীয় দলের এই দুই খেলোয়াড় আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তবে এটা ফুটবল। ইনজুরি হবেই। দুর্ভাগ্যজনক যে চোট তাদের মৌসুমটাই শেষ করে দিয়েছে। কিন্তু আমাদের এর মধ্যে দিয়েই এগিয়ে যেতে হবে। খেলোয়াড়দের ওপর আমার বিশ্বাস আছে, তারা ভালো খেলবে।’

প্রতিকূলতা মোকাবেলা করেই জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী আবাহনীর কোচ, ‘দুই সপ্তাহ আগে চেন্নাইনের বিপক্ষে এএফসি কাপে শেষ ম্যাচ খেলেছিলাম। যার ফলে আমরা জানতে পেরেছি তাদের খেলার কৌশল সম্পর্কে। আমরা ওই ম্যাচটি হেরেছি। কেন হেরেছিলাম সেটা খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছি। আমরা ধারণা আমরা এই ম্যাচটা জিতব। আশা করছি কালকের ফল আমাদের পক্ষে যাবে। ছেলেদের বলেছি আমাদের আরও ভালো করার সুযোগ আছে। ভারতে যেটা হয়েছে আমরা মোটেও খুশি নই। ভালো খেলে আমরা হেরেছি। আত্মবিশ্বাস সবসময়ই থাকে। তবে কালকে আমাদের আরও ভালো খেলতে হবে। জিততে হবে।’

আগের ম্যাচে আবাহনীকে হারিয়ে গ্রুপ শীর্ষে থাকা ভারতের দলটি বেশ উজ্জীবিত। তবে আবাহনীকে কঠিন প্রতিপক্ষ উল্লেখ করে চেন্নাইন এফসির কোচ জন গ্রেগরি বলেছেন, ‘গ্রুপ পর্বের শেষ তিনটি ম্যাচ আমরা আহমেদাবাদে খেলেছি। তিনটি ম্যাচই খুব কঠিন ছিল। তবে তিন ম্যাচই অপরাজিত থেকেছি। ঢাকার এ ম্যাচটি আমাদের খুবই কঠিন। আবাহনীও অনেক ভালো খেলছে। আমাদের মাঠে আমরা জিতেছি। কিন্তু ম্যাচটি কঠিন ছিল। আমাদের সামনে ম্যাচটি সবচেয়ে কঠিন।’

আরআই/এমএমআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :