বিশ্বকাপ বাছাইয়ে টিকে থাকার লড়াই বাংলাদেশ-লাওসের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৪:৩৪ পিএম, ১০ জুন ২০১৯

জিতে উৎসবে গা ভাসায়নি বাংলাদেশ, হেরে হতাশায় ডোবেনি লাওস। কারণ খেলা এখনো শেষ হয়নি। ১৮০ মিনিটের লড়াইয়ের ৯০ মিনিট হয়েছে লাওসের ভিয়েনতিয়ানে, বাকি ৯০ মিনিট ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে।

কাতার-২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইয়ে বাংলাদেশ টিকে থাকবে নাকি লাওস-তার ফয়সালা হবে মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। সন্ধ্যা ৭টায় ফিরতি ম্যাচে মুখোমুখি হবে দক্ষিণ এশিয়া এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ দুটি।

ফিরতি ম্যাচে মাঠে নামার আগে মানসিকভাবে একটু এগিয়ে থাকবে বাংলাদেশ, গানিতিকভাবেও। লাওসের মাঠে তাদের ১-০ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের ঘরে জয় বড় অ্যাডভান্টেজ।

এবার ঘরের মাঠে খেলা। সেটাও অ্যাডভান্টেজ। কিন্তু খেলাটা ফুটবল বলেই কোনো কিছু নিশ্চিত নয়। তাই তো বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে ফিরতি ম্যাচের শেষ বাঁশি না বাজা পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকবেন।

৬ জুন লাওসের মাঠে বাংলাদেশ জিতলেও ম্যাচের পারফরম্যান্স কাঁটাছেঁড়া করলে স্বাগতিকদেরই এগিয়ে রাখতে হবে। অনেক সুযোগ তৈরি করে বাংলাদেশের পোস্টের সন্ধান পাননি লাওসের ফরোয়ার্ডরা। কিন্তু অপেক্ষাকৃত কম সুযোগ পেয়েও একটি কাজে লাগানোয় জয়ী দলটির নাম বাংলাদেশ। যে জয়টি ঘরের মাঠে লাল-সবুজ জার্সিধারীদের এগিয়ে রাখছে অতিথিদের চেয়ে।

দুই দলই লাওস থেকে ঢাকায় পা রেখেছে কয়েক ঘন্টা আগে পড়ে। বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে দল নিয়ে ফিরেই বলেছেন, ‘কাজ এখনো শেষ হয়নি।’ আর তার কয়েক ঘন্টা পর লাওস কোচ সুন্দরতমূর্তী ঢাকায় এসে বলেছেন, ‘এখান থেকে জয় নিয়ে ফিরতে চাই।’

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডের টিকিট পেতে বাংলাদেশ দরকার ড্র। আর লাওসের চাই একাধিক গোলের জয়। এই সমীকরণটাই মনস্তাত্মিকভাবে এগিয়ে রাখছে জেমি ডে’র শিষ্যদের। তবে ড্র নয়, বাংলাদেশ জয়ের জন্যই খেলবে।

সোমবার দুপুরে বাফুফে ভবনে ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের কোচ জেমি ডে এবং অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া পরিস্কার বলে গেছেন তারা জয়ের জন্যই নামবেন। আর জিততে হলে ভিয়েনতিয়ানের চেয়েও ভালো ফুটবল খেলতে হবে ঢাকায়। কারণ, ওই ম্যাচে প্রথমার্ধটা খুব খারাপ কেটেছে বাংলাদেশের। দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য বাংলাদেশ ভালো খেলে ম্যাচটি বের করে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছেড়েছে।

ওসব এখন অতীত। সেটা দুই দলের জন্যই। ঢাকার ৯০ মিনিটের লড়াইয়ের পরই একটি দলকে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডের টিকিট ধরিয়ে দেবে এএফসি। আরেক দলকে দেবে বছর আড়াইয়ের জন্য বিশ্রাম। বাদ পড়া দলটি যে ২০২৬ বিশ্বকাপের বাছাই শুরুর আগে ফিফা ও এএফসির কোনো ম্যাচ খেলারই সুযোগ পাবে না।

ধারে-ভারে বাংলাদেশ ও লাওস কাছাকাছি। লাওস ফিফা র‌্যাংকিংয়ে ১৮৪ লাওস, বাংলাদেশ ১৮৮। র‌্যাংকিংয়ে এগিয়ে থাকলেও দুই দলের অতীত লড়াইয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ।

এর আগে চারবার মুখোমুখি হয়েছে দুই দেশ। বাংলাদেশ জিতেছে দুটি, লাওস একটি। একটি ম্যাচ হয়েছে ড্র। বেশি জয়, সর্বশেষ ম্যাচে জয়। তার পর এ খেলাটি ঘরের মাঠে-ম্যাচ শুরুর আগে বাংলাদেশই যে এগিয়ে থাকছে ফেবারিট বিবেচনায়।

আরআই/এসএএস/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :