অথচ জয়ের উৎসবও করতে পারতো বাংলাদেশ

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১১:৪৭ পিএম, ১১ জুন ২০১৯

লাওসের বিরুদ্ধে হোম ম্যাচে কেমন খেললো বাংলাদেশ? দলের পারফরম্যান্সে আপনি কি খুশি? প্রশ্ন দুটি তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের ইংলিশ কোচ জেমি ডে।

দেবেন নাই বা কেন? যে ম্যাচ ড্র করে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বের টিকিট নিশ্চিত করেছেন জামাল ভূঁইয়ারা, সে ম্যাচের পারফরম্যান্স বিশ্লেষণের কোনো মানেই নেই। কোচ সেটাই বুঝিয়ে দিলেন ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে।

লাওসের মাঠে স্বাগতিকদের চেয়ে তুলনামূলক খারাপ খেলে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে ফেরা দলটি ঘরের মাঠে ভালো খেলে করেছে ড্র। যদিও এ ম্যাচটি বাংলাদেশ জিততেও পারতো। একটি হাফ চান্স ছাড়া সফরকারী দলটি যেখানে বাংলাদেশ গোলরক্ষকের কোনো পরীক্ষাই নিতে পারেনি, সেখানে বাংলাদেশ তিনটি ওপেন নেটই মিস করেছে। না হলে জয়ের ধারাবাহিকতায় থেকেই উঠতে পারতো দ্বিতীয় পর্বে।

কিন্তু মাঠের পারফরম্যান্স, গোলের সুযোগ নষ্ট- এগুলো ধর্তব্যেই আনেননি কোচ জেমি ও অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। তারা এ রাতটাকে নিয়েছেন উৎসবের রাত হিসেবে। লাওসে জিতে যে আনন্দ করেনি বাংলাদেশের ফুটবলাররা সে আনন্দ তারা করছেন ঢাকায় ড্র করে। হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ম্যাচটি যে বাংলাদেশ জিতে গেলো ১-০ ব্যবধানে।

মুখে জয়ের কথা বললেও কৌশলে জেমি ছিলেন অনেকটাই রক্ষণাত্মক। যার মানে গোল করতে না পারি, খাবো না। সে কৌশলে শতভাগ সফল বাংলাদেশ কোচ। লাওসকে বোতলবন্দী রেখে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা তুলে নিয়েছেন অমূল্য এক পয়েন্ট। যে পয়েন্ট বাংলাদেশের ফুটবলকে জেতালো একটি চ্যালেঞ্জও।

বাছাইয়ের প্রথম পর্ব খেলতে হবে- যেদিন সেটা চূড়ান্ত হয় সেদিন থেকেই বাফুফে পরিকল্পনা শুরু করে জাতীয় দল নিয়ে। লাওস যাওয়ার আগে ব্যাংককে ১০ দিনের কন্ডিশনিং ক্যাম্প, স্থানীয় ক্লাবের সঙ্গে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ- সবই ছিল লাওসকে টপকে বাছাইয়ের পরের রাউন্ডে ওঠার লক্ষ্যে।

বুধবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে পূরণ হয়েছে সেই লক্ষ্য। বুধবারের সন্ধ্যাটি চ্যালেঞ্জ জয়ের আনন্দে রাঙিয়ে দিলেন ফুটবলাররা।

ম্যাচের পর অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া জানিয়ে দিলেন, ‘আমরা যদি টিকি-টাকা ফুটবল খেলে হেরে যেতাম এবং বিদায় নিতাম বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব থেকে তাতে কোনো লাভ হতো না। আমরা এগিয়েছিলাম প্রথম ম্যাচ জিতে। সেটা কাজে লাগিয়ে লক্ষ্য পূরণ করেছি। এখন আমাদের উৎসবের সময়।’

আরআই/আইএইচএস/

আপনার মতামত লিখুন :