বিশ্বকাপের আয়োজক কাতারকে পাওয়ায় খুশি জেমি ডে

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:৩৮ পিএম, ১৭ জুলাই ২০১৯

কাতার বিশ্বকাপে বাংলাদেশের খেলার সম্ভাবনা নেই। কিন্তু তিন বছর পরের এই বিশ্বকাপের একটি দল কাতারের সঙ্গে দুটি ম্যাচ আগেই খেলতে পারছে বাংলাদেশ। কাতার ২০২২ বিশ্বকাপে খেলবে আয়োজক হিসেবে। বুধবার বিকেলে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে হয়ে যাওয়া বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বের ড্রয়ে বাংলাদেশের গ্রুপেই যে পড়েছে এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন ও পরের বিশ্বকাপের স্বাগতিক দলটি।

এশিয়া চ্যাম্পিয়ন কাতার। ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজকও কাতার। এমন একটি দেশ গ্রুপে পড়ায় বেশ খুশি বাংলাদেশ ফুটবলের ইংলিশ কোচ জেমি ডে। বাংলাদেশকে এশিয়ান গেমস ফুটবলের এবং বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বে তোলা এই কোচ এখন ছুটিতে।

ড্রয়ের পরপরই প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ কোচ বলেছেন, ‘আমি খুবই খুশি। কারণ, ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ আমাদের গ্রুপে পড়েছে। দারুণ একটা অভিজ্ঞতা হবে আমাদের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচগুলোতে। কাতারের পাশাপাশি ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচটিও হবে আমার জন্য দারুণ এক অভিজ্ঞতা।’

রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাইয়ে অস্ট্রেলিয়া, জর্ডান ও কিরগিজস্তানের মতো দল পড়েছিল বাংলাদেশের গ্রুপে। সে তুলনায় এবারের প্রতিপক্ষ কাতার, ভারত, ওমান ও আফগানিস্তান অনেকটাই সহনীয়। সবচেয়ে বড় কথা এ দলগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের ফুটবলের পরিচয়টা বেশি। খেলাও হয়েছে অনেক। পরিচিত দলগুলোই এবার প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

কোচ জেমি ডে বলেছেন, ‘গ্রুপপর্বে যাদের আমরা মোকাবিলা করতে যাচ্ছি তারা সবাই কঠিন প্রতিপক্ষ। এই চার দলকে টপকে পরের রাউন্ডে ওঠার আশা আমরা করছি না। কারণ সবাই আমাদের চেয়ে র্যাংকিং, মানে ও অভিজ্ঞতায় অনেক এগিয়ে। আমরা নিজেদের সেরা খেলাটাই খেলার চেষ্টা করবো। গ্রুপ পর্বের এ ম্যাচগুলোর অভিজ্ঞতা থেকে আমাদের খেলোয়াড়রা নিজেদের আরো ভালো খেলোয়াড় হিসেবে তৈরি করতে পারবে।’

বাংলাদেশের তো দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দলের বিপক্ষে খেলতে হচ্ছে না। সে হিসেবে কি প্রতিপক্ষ একটু সহজ হলো? এমন প্রশ্নের জবাবে জাতীয় দলের কোচ জেমি ডে বলেন, ‘কাতার এশিয়ার চ্যাম্পিয়ন। তারা এশিয়া কাপের ফাইনালে জাপানকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে। সুতরাং সব কিছু মিলিয়ে শক্ত গ্রুপেই পড়েছি আমরা।’

আরআই/এমএমআর/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :