আট গোলের রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে জয় ইংল্যান্ডের

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৫৮ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ইউরো বাছাই পর্বে একের পর এক গোলবন্যার ম্যাচ উপহার দিয়েই যাচ্ছে ইংল্যান্ড। চার ম্যাচে তারা করেছে ১৯ গোল। এর মধ্যে তিন ম্যাচে সমান ৫টি করে। বুলগেরিয়ার বিপক্ষে করেছে শুধু ৪ গোল।

সর্বশেষ মঙ্গলবার রাতে কসোভোর জালেও ৫বার বল জড়িয়েছে ইংলিশ ফরোয়ার্ডরা। কিন্তু ৫ গোল করলে কি হবে, উল্টো ৩টি গোল হজম করতে হয়েছে তাদেরকে। শেষ পর্যন্ত সাউদাম্পটনে ৮ গোলের রূদ্ধশ্বাস ম্যাচে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়লো হ্যারি কেনরা।

সাউদাম্পটনের সেন্ট ম্যারি’স স্টেডিয়ামে এই ম্যাচ জিতে, চার ম্যাচের সবকটিতে জিতে ‘এ’ গ্রুপে ১২ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে রয়েছে ইংল্যান্ড। এই চার ম্যাচে মোট ১৯টি গোল করে সাউথগেটের ছেলেরা।

ইংল্যান্ডের ফরোয়ার্ড লাইন বিশ্বমানের হলেও রক্ষণ অত্যন্ত নিম্নমানের। যে কারণে অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধেও তিন গোল হজম করতে হলো গ্যারেথ সাউথগেটের শিষ্যদের।

ম্যাচের প্রথম মিনিটেই গোল হজম করে বসে ইংল্যান্ড। নিজেদের ভুলেই মূলতঃ গোলটি খেলো হ্যারি কেনরা। কসভোর হয়ে গোলটি করেন ভ্যালন বেরিশা। ডিফেন্ডার মাইকেল কিনের ভুল পাসে সতীর্থের পা-ঘুরে বল পেয়ে জোরাল শটে কসোভোকে এগিয়ে দেন মিডফিল্ডার বেরিশা।

সমতায় ফিরতে অবশ্য খুব বেশি বিলম্ব হয়নি ইংল্যান্ডের। ম্যাচের আট মিনিটের মাথায় রাহিম স্টার্লিং হেড করে স্কোর ১-১ করে ফেলেন। মিনিট দশেক পর ব্যবধান বাড়ায় ইংল্যান্ড। ডি-বক্সে এক জনকে কাটিয়ে দলকে এগিয়ে দেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক হ্যারি কেন।

প্রথমার্ধের শেষ আট মিনিটের মধ্যে আরও তিন গোল করে ইংল্যান্ড। ৩৮ মিনিটে ডিফেন্ডার ভয়ভোদার আত্মঘাতী গোলে ৩-১ করে থ্রি-লায়ন্সরা। এরপর ৪৪ মিনিটে আন্তর্জাতিক ফুটবলে প্রথম গোল করেন জডন স্যানচো। দুই মিনিটের ব্যবধানে আরও একটি গোল করেন ১৯ বছর বয়সি তরুণ এই ব্রিটিশ মিড-ফিল্ডার।

বিরতির আগে ৫-১ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়েও হাল ছাড়েনি কসোভো। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকেই দুই গোল করে বসে তারা। ৪৯ মিনিটে সতীর্থের পাস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন বেরিসা। খেলার ৫৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে স্কোরলাইন ৫-৩ করেন মুরিকি। লড়াইয়ে ফিরলেও এরপর অবশ্য আর গোল করতে পারেনি কসোভো।

৬৩ মিনিটে অবশ্য স্কোরলাইন ৬-৩ করার সুযোগ ছিল ইংল্যান্ডের সামনে। রস বার্কলি প্রতিপক্ষের ডি-বক্সে ফাউলের শিকার হলে পোনাল্টি পায় ইংল্যান্ড। সেই পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন হ্যারি কেন। ইংল্যান্ড অধিনায়কের পেনাল্টি আটকে দেন কসোভো গোলরক্ষক। আট মিনিট পর স্টার্লিংয়ের জোরালো শট পা দিয়ে আটকে দেন কসোভো গোলরক্ষক।

ইউরোপের দলগুলোর মধ্যে রেকর্ড টানা ১৫ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর হারের মুখ দেখল কসোভো। এর আগে ২০১৭ অক্টোবরে রাশিয়া বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে শেষবার তারা হেরেছিল ২০১৬ ফিফা ও উয়েফার সদস্যপদ পাওয়া দেশটি।

আইএইচএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]