ব্রাজিলিয়ান আলভেসকে দলে ভেড়াল আবাহনী

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৭:৩৪ পিএম, ২০ নভেম্বর ২০১৯

ফুটবল দলবদলের শেষ দিনে আসবে আবাহনী-এটা যেন এক প্রকার নিয়ম। গত কয়েক মৌসুম ধরে এমনই হয়ে আসছে। ব্যতিক্রম নেই এবারের দলবদলেও। আজ (বুধবার) শেষ হতে যাওয়া দলবদল কার্যক্রমে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ৬ বারের চ্যাম্পিয়নরা। স্থানীয় ও বিদেশি মিলিয়ে ৩০ জন ফুটবল নিবন্ধন করিয়েছে আকাশি-হলুদরা।

আগের দিন জাঁকজমকপূর্ণভাবে দলবদলে অংশ নিয়েছিল চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস। আবাহনীর উপস্থিতি তার উল্টো। এক অফিসিয়াল খেলোয়াড় তালিকা এনে জমা দিয়ে গেছেন বাফুফের প্রফেশনাল লিগ কমিটির কর্মকর্তাদের কাছে। আবাহনী ছাড়াও বাকি ক্লাবগুলো শেষ দিনে তাদের খেলোয়াড় তালিকা জমা দিয়েছে বাফুফেতে।

কেমন দল হলো আবাহনীর? বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের সবচেয়ে সফল দলটির শক্তি এবার বাড়লো? নাকি কমলো? চুলচেরা বিশ্লেষণে আবাহনীর শক্তি কিছুটা হলেও বেড়েছে। যদিও তাদের দুই গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলার ডিফেন্ডার তপু বর্মন ও ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার আতিকুর রহমান ফাহাদ দল ছেড়েছেন। আবাহনীর কর্মকর্তারা সেটা বড় ক্ষতি হিসেবে দেখছেন না। কারণ, দুই জনই বেশিরভাগ সময় ছিলেন ইনজুরিতে। এই দুইজনকে ছাড়াই আবাহনী খেলেছে এএফসি কাপ।

বিদেশি সংগ্রহে আবাহনীর বড় পরিবর্তন আছে। গত মৌসুমের ডিফেন্স দুর্দান্ত সার্ভিস দেয়া আফগানিস্তানের মাসি সাইঘানি চলে গেছেন ইন্ডিয়ান সুপার লিগের ক্লাব চেন্নাইন এফসিতে। আবাহনী এনেছে সেই দলের ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মাইলসন আলভেসকে।

এশিয়ান কোটার বিদেশিতে পরিবর্তন আছে আবাহনীর। গত মৌসুমে খেলা কোরিয়ান লী কে ছেড়ে আবাহনী এবার এনেছে কিরগিজস্তানের মিডফিল্ডার এডগার বার্নারকে। ঘরের ছেলে হয়ে যাওয়া নাইজেরিয়ার সানডেতো আছেনই। আছেন হাইতির বেলফোর্ট ও মিশরের আলাদিন নাসরকে।

স্থানীয়দের মধ্যে তপু বর্মন ও আতিকুর রহমান ফাহাদ বসুন্ধরা কিংসে চলে যাওয়া ওই দলেরই অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার নাসিরুদ্দিন চৌধুরীকে। আর ফাহাদের রিপ্লেস হিসেবে আবাহনীতে শেখ রাসেলের সোহেল রানা। এর বাইরে পুরোনো ২৫ জনই রেখে দিয়েছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের রানার্সআপরা।

আরআই/এমএমআর/এমকেএইচ