বসুন্ধরার কলিন্দ্রেস যোগ দিলেন নিজ দেশের পুরনো ক্লাবে

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:২৩ পিএম, ১২ জুলাই ২০২০

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস ছেড়ে দেয়ার পর বিশ্বকাপ খেলা ফুটবলার কোস্টারিকার কলিন্দ্রেস ফিরে গেছেন তার পুরনো ক্লাবে। নিজ দেশের প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব দেপর্তিবো সাপরিসায় বৃহস্পতিবার নাম লিখিয়েছেন বসুন্ধরার জার্সিতে বাংলাদেশের ফুটবলামোদীদের মন জয় করা এ ফরোয়ার্ড।

২০১০ সাল থেকে এই ক্লাবেই খেলে আসছিলেন কলিন্দ্রেস। মাঝে লোনে স্থানীয় দুটি ক্লাবেও খেলেছিলেন। ২০১৮ সালে বসুন্ধরায় যোগ দিয়ে ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো দেশের বাইরের কোনো ক্লাবে নাম লেখান। তার আগে জাতীয় দলের হয়ে অংশ নেন রাশিয়া বিশ্বকাপে।

বসুন্ধরা কিংসের সাথে চুক্তি শেষ হওয়ার পরই গুঞ্জন ছিল ইন্ডিয়া সুপার লিগের (আইএসএল) কোনো ক্লাবে দেখা যেতে পারে বসুন্ধরাকে তিনটি ট্রফি জেতানোয় বড় ভূমিকা রাখা বিশ্বকাপ খেলা এই ফুটবলার; কিন্তু তিনি শেষ পর্যন্ত দেশের পুরোনো ক্লাবকেই বেছে নিয়েছেন। দেড় বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন ক্লাবটির সঙ্গে। যে ক্লাবের জার্সিতে এর আগে ২৪৪ ম্যাচ খেলে ৫৭টি গোল করেছেন কলিন্দ্রেস।

ফিউটোবল সেন্ট্রো আমেরিকা.কম নামক লাতিন আমেরিকান ওয়েবসাইটে কলিন্দ্রেসের পুরনো ক্লাবে ফিরে যাওয়ার খবর প্রকাশ করে। দেপোর্তিবো সারপ্রিসা তাদের অফিসিয়াল টুইটার পেজে লেখা হয়েছে, ‘অফিসিয়াল স্টেটমেন্ট : ড্যানিয়েল কলিন্দ্রেস রিটার্নস হোম।’

ফুটবল মৌসুম মাঝপথে পরিত্যক্ত হওয়ার পর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ১৩ ক্লাবের ১২টিরই মাথা থেকে যেন বোঝা নেমে গেছে। কারণ, মৌসুম শেষ। বিদেশি ফুটবলাররা চলে গেছেন। স্থানীয়রা যে যার বাড়িতে। খেলোয়াড়দের জন্য এখন ক্লাবে আর চুলোয় রান্নার হাড়ি চাপাতে হয় না। তবে বসুন্ধরা কিংসের ঘরোয়া খেলা না থাকলেও তাদের মাথায় এএফসি কাপের বোঝা। লিগ খেলা বিদেশিদের বিদায় করে নতুন বিদেশির সন্ধানে নেমেছে তারা।

একজন অবশ্য আছেন তাদের। এএফসি কাপের জন্য আগেই এনেছিলেন মেসির সাবেক সতীর্থ হার্নান বার্কোসকে। তার সঙ্গে নতুন তিন বিদেশি দেখা যাবে বসুন্ধরার জার্সি গায়ে এএফসি কাপ খেলতে। বার্কোস এএফসি কাপে প্রথম ম্যাচে মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টসের বিরুদ্ধে একাই করেছিলেন ৪ গোল।

আরআই/আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]