পরের মৌসুমে আমূল বদলে যাবে জিদানের রিয়াল!

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪১ পিএম, ১১ আগস্ট ২০২০

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দ্বিতীয় রাউন্ড থেকেই বিদায় নেয়ার কারণে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদের পরিকল্পনায় ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছে। এরই মধ্যে রিয়াল প্রেসিডেন্ট ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এবারের দলবদলের বাজার থেকে ১৮০ মিলিয়ন ইউরো আয় করবেন। পাশাপাশি, আগামী মৌসুমের জন্য দলটাকেও নতুন করে সাজাবেন।

রিয়াল মাদ্রিদ আগামী মৌসুমের জন্য নতুন করে দল সাজাতে গিয়ে কিন্তু নামকরা নতুন কোনো ফুটবলারকে দলে ভেড়াচ্ছে না, কিংবা সে ধরনের কোনো সিদ্ধান্তও নেয়নি। তারা মূলতঃ প্রথম সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাড়তি বোঝা কমিয়ে ফেলার।

বিশেষ করে, গত মৌসুমে কোচ জিনেদিন জিদান যাদেরকে ব্যবহারই করেননি কিংবা করতে চাননি, তাদেরকে বিক্রি করে দেয়ার চিন্তা করছে রিয়াল মাদ্রিদ। যেমন হামেশ রদ্রিগেজ, গ্যারেথ বেল- প্রমুখ ফুটবলার। লজ ব্লাঙ্কোজরা চিন্তা করছে, এদেরকে শুধু শুধু ধরে রেখে লাভ নেই।

প্রথমতঃ কোচ হিসেবে আগামী মৌসুমের জন্য রিয়ালের ডাগআউটে জিদানই থাকছেন। এখানে কোনো পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা শূন্য। যদিও ম্যানসিটির বিপক্ষে তার দল পরিচালনার কৌশল নিয়ে সমালোচনা হয়েছিল। তবুও লা লিগা জেতার কারণে জিদানের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি।

জিদান থাকার অর্থ, সামনের সময়গুলোতেও বেল-রদ্রিগেজদের কোনো জায়গা হচ্ছে না দলে। সুতরাং, তাদের ছেড়ে দেয়াই ভালো। সঙ্গে মারিয়ানো দিয়াজ, দানি কেবালোজ, হেসুস ভালেজো এবং আরও কয়েকজন ফুটবলার রয়েছেন। এরই মধ্যে আশরাফ হাকিমিকে ইন্টার মিলানের কাছে বিক্রি করে ৬০ মিলিয়ন ইউরো অর্জন করে নিয়েছে রিয়াল। এখনও বাকি আছে আরও ১২০ মিলিয়ন ইউরো।

এর মধ্যে আবারও লোনে থাকা বোরজা মায়োরাল, অস্কার রদ্রিগেজ এবং সার্জিও রেগুইলিয়নকে না ফেরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। লুকা জোভিককে নিয়েও একটা দোদুল্যমান অবস্থা তৈরি হয়েছে। ব্যাটে-বলে মিলে গেলে তাকেও বিক্রি করে দিতে পারে লজ ব্লাঙ্কোজরা।

jagonews24

বিক্রির তালিকা অনেক লম্বা। কিন্তু তাতে কি দলকে ঢেলে সাজানো হবে? তা হয়তো হবে না। কারণ, দলটাকে ঢেলে সাজানোর জন্য এরই মধ্যে কোন কোন পজিশনে খেলোয়াড় লাগবে, সেটা চিন্তা করে নিয়েছে রিয়াল কোচ জিদান এবং প্রেসিডেন্ট পেরেজ।

রিয়াল মাদ্রিদের এই মুহূর্তে প্রয়োজন একজন জেনুইন সেন্টারব্যাক। মিডফিল্ডে ক্যাসেমিরোকে ব্যাকআপ দেয়ার জন্য একজন মিডফিল্ডার প্রয়োজন। একই সঙ্গে প্রয়োজন একজন ক্রিয়েটিভ মিডফিল্ডার এবং একজন জেনুইন গোল স্কোরার।

কারণ, রিয়ালের মূল স্কোরার করিম বেনজেমার বয়স এখন ৩৩ ছুঁই ছুঁই। লুকা মদরিচের বয়স ৩৫। অধিনায়ক সার্জিও রামোসের বয়স ৩৪। আর কতদিন তারা সার্ভিস দেবেন? একটা সময় তো তাদের বিকল্প খুঁজতে হবে। এখন থেকে রেডি না রাখলে বাজে সময় আসলে সেটা মোকাবেলা হবে কেমনে?

তবে, রিয়াল সোসিয়েদাদে লোনে থাকা রিয়ালের ২১ বছর বয়সী মিডফিল্ডার মার্টিন ওডেগার্ডকে নিয়ে আসার পরিকল্পা চূড়ান্ত করে ফেলেছে রিয়াল। যদিও ওডেগার্ড একটা শর্ত জুড়ে দিয়েছেন। তাকে নিয়মিত একাদশে রাখতে হবে। যদিও বিষয়টা নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ এখনও পর্যন্ত কোনো বক্তব্য দেয়নি।

আইএইচএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]