গোলের পরে ‘বিতর্কিত’ উদযাপন, নিষিদ্ধ অস্ট্রিয়ান ফুটবলার

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:০৬ পিএম, ১৬ জুন ২০২১

গোল করার পর ফুটবলাররা কত রকমভাবেই তো উদযাপন করে থাকেন। তবে কখনও কখনও সেই উদযাপন কিংবা গোল উৎসব মাত্রা ছাড়িয়ে যায়। ভিন্ন কোনো কিছুর ইঙ্গিত বহন করে। বিভিন্ন রাজনৈতিক বা সামাজিক বিষয় কিংবা স্পর্শকাতর বিষয়ের উপর বার্তা দেয়ার চেষ্টা করা হয়।

এমন ঘটনা নতুন নয়। সম্প্রতি ইউরোর ম্যাচে গোল করার পরে বেলজিয়াম তারকা লুকাকুকে দেখেছি ক্যামেরার সামনে এসে তার ইন্টার মিলানের সদস্য ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেনের সুস্থতা প্রার্থনা করতে। গোলটি তিনি সতীর্থ এরিকসেনের উদ্দেশ্যে উৎসর্গও করেন। যদিও ওটা বিতর্কিত কোনো ঘটনা ছিল না।

তবে এবারের ইউরোয় অস্ট্রিয়া এবং নর্থ মেসিডোনিয়া ম্যাচে গোল করে বিতর্কিত উদযাপনের কারণে এবার সমস্যার মুখে পড়লেন অস্ট্রিয়ান স্ট্রাইকার মার্কো আর্নাউতোভিচ। তাকে এক ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ করেছে উয়েফা কর্তৃপক্ষ।

নর্থ মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে তখন আলাবার নেতৃত্বাধীন অস্ট্রিয়া ২-১ গোলে এগিয়ে। ৮৯ মিনিটের খেলা হয়ে গেছে। এ অবস্থায় গোল করে অভিষেক ঘটা নর্থ মেসিডোনিয়ার কফিনে শেষ পেরেক পুঁতে দেন আর্নাউতোভিচ। গোলের পরই তাকে উত্তেজিত অবস্থায় উদযাপন করতে দেখা যায়। দলনায়ক আলাবা এসে তাকে কিছুটা শান্ত করেন। এই গোল উদযাপনের ধরন নিয়ে উয়েফার কাছে অভিযোগ জানায় নর্থ মেসিডোনিয়াও।

উয়েফা তদন্ত শুরু করে দেয়। জুনের ১৩ তারিখ,২০২১ বদলি হিসেবে নেমে আর্নাউতোভিচ গোল করার পরে যেভাবে উত্তেজিত উদযাপন করেছিল, তাতে পুরোপুরি অসন্তুষ্ট উয়েফা। তদন্তে অগ্রগতির জন্য একজন এথিক্স ও শৃঙ্খলারক্ষাকারী অফিসারকে নিয়োগ দেয় তারা। তদন্ত শেষে প্রমাণ হয়, নর্থ মেসিডোনিয়াকে অপমান করেই এমন উদযাপন করেছিলেন আর্নাউতোভিচ।

যে কারণে তাকে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ করা হয়। উয়েফা জানিয়েছে, চরম জাতীয়তাবাদী আচরণ করেছেন আর্নাউতোভিচ। সুতরাং, গ্রুপ ‘সি’ এর পরের ম্যাচে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে আর মাঠে নামতে পারবেন না তিনি।

প্রসঙ্গতঃ আর্নাউতোভিচের সার্বিয়ান ব্যাকগ্রাউন্ড রয়েছে। সেই সার্বিয়া যারা কসোভোর স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দিতে নারাজ। তবে কোনোধরনের বর্ণবিদ্বেষমূলক মন্তব্য করেননি বলে পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন আর্নাউতোভিচ।

নর্থ মেসিডোনিয়ার ফুটবল ফেডারেশনের দাবি আর্নাউতোভিচের এই উদযাপন নর্থ মেসিডোনিয়ার জ্ঞানি অ্যালিয়স্কির উদ্দেশ্যে। যার সঙ্গে আবার নাড়ির টান রয়েছে আলবেনিয়ার। ফুটবল ফেডারেশন জানিয়েছে , ‘আমরা জাতিবিদ্বেষ, উগ্র জাতীয়তাবাদ, অন্যকে অপমান এসবের বিরুদ্ধে। কারণ, তা খেলার স্পিরিটের বিরুদ্ধে যায় বরাবর। আমরা সবসময় মেসিডোনিয়ার ফুটবলার এবং জাতীয় দলের সম্মান রক্ষার্থে লড়াই চালাব।’

আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]