বার্সায় কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলবেন মেসি-রোনালদো!

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:২৬ পিএম, ২১ জুন ২০২১ | আপডেট: ০৭:০৪ পিএম, ২১ জুন ২০২১

অসম্ভব বলে কী পৃথিবীতে কিছু আছে? অন্তত ফুটবলে তো নয়ই। আজ যেটাকে অসম্ভব মনে হবে, কালই সেটা হতে পারে সম্ভব। বার্সেলোনা সভাপতি হুয়ান লাপোর্তা যে স্বপ্ন দেখছেন, সেটা যদি বাস্তবায়িত হয়, তাহলে সত্যিই এক অসম্ভব কাজ সম্ভব হয়ে যাবে।

কী সেই অসম্ভব কর্মটি? একই সঙ্গে, একই দলে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলছেন লিওনেল মেসি এবং ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এটা শুধু স্বপ্নেই কল্পনা করা যায়, বাস্তবে কী সম্ভব? বার্সা সভাপতি হুয়ান লাপোর্তা সেটাকেই সম্ভব করার চিন্তা-ভাবনা শুরু করে দিয়েছেন।

আগামী মৌসুমের জন্য ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে ন্যু ক্যাম্পে নিয়ে আসা যায় কি না সে চিন্তা শেয়ার করেছেন তিনি তার বোর্ডের বাকি সদস্যদের কাছে।

স্প্যানিশ পত্রিকা এএস-এর ফুটবল বিষয়ক লেখক হ্যাভিয়ের জি ম্যাটালান্স একটি কলামে এ তথ্যই জানিয়েছেন সেটাকে আবার নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে পোস্ট করেছেন জনপ্রিয় ইউরোপিয়ান ফুটবল লেখক, সাংবাদিক, ব্রডকাস্টার এবং লা লিগা বিশেষজ্ঞ বেন হাওয়ার্ড।

ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাসে তিন মৌসুম কাটানোর পর ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো এই মৌসুমে সিরি-আ ছেড়ে যাচ্ছেন, এটা এখন পুরোপুরি প্রতিষ্ঠিত। জুভেন্টাস যে উদ্দেশ্য নিয়ে রোনালদোকে দলভূক্ত করেছিল, তার কিছুই অর্জিত হয়নি।

বরং, আখেরে তাদের লাভের চেয়ে লসই হয়েছে বেশি। টানা ৯ বছর সিরি-আ জয়ের পর ১০মবার জিততে পারলো না তারা। বরং, সদ্য সমাপ্ত মৌসুমে কোনোমতে চতুর্থ স্থান অর্জন করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে।

এসব কারণে জুভরাও আর চাচ্ছে না রোনালদো তুরিনে থাকুক। ক্লাবের অনাগ্রহ এবং রোনালদোরও প্রায় সিদ্ধান্ত পাকাপাকি, তিনি আর জুভেন্টাসে থাকবেন না। তবে তিনি কোথায় যাবেন, সেটা এখনও পুরোপুরি অনিশ্চিত।

এরই মধ্যে শোনা যাচ্ছে, তিনি যেতে পারেন ফ্রান্সের ক্লাব পিএসজিতে। আবার শোনা যাচ্ছে ফিরতে পারেন ম্যানইউতে। কিছুদিন আগে শোনা গিয়েছিল, তার নিজের সবচেয়ে পুরনো ক্লাব এফসি পোর্তোতেই ফিরে যেতে পারেন সিআর সেভেন। যদিও তার কিছুই এখনও চূড়ান্ত নয়।

 

এএস পত্রিকার সেই কলামিস্ট জানিয়েছেন, এরই মধ্যে বার্সেলোনার পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়েছে রোনালদোর এজেন্ট হোর্হে মেন্ডিসের সঙ্গে। রোনালদো এ নিয়ে ‘হ্যাঁ’ কিংবা ‘না’- কী বলেন সেটাই জানার অপেক্ষা।

যদি ইতিবাচক থাকেন তিনি, তাহলে আলোচনা হতে পারে তার পারিশ্রমিক নিয়ে। ব্যাটে-বলে মিলে গেলে আগামী মৌসুমেই হয়তো দেখা যাবে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলছেন বিশ্বের সেরা এই দুই তারকা।

জানা গেছে, রোনালদোকে নিতে পারলে জুভেন্টাসের সঙ্গে খেলোয়াড় অদল-বদল করতে পারে বার্সা। সে ক্ষেত্রে আন্তোনিও গ্রিজম্যান, সার্জি রবের্তো এবং ফিলিপ কৌতিনহোর যে কোনো দু’জনকে জুভদের কাছে ছেড়ে দিতেও রাজি হুয়ান লাপোর্তা প্রশাসন।

লিওনেল মেসিকেও অবশ্য এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত করতে পারেনি বার্সেলোনা। গত মৌসুমেই তিনি চেয়েছিলেন বার্সেলোনা ছেড়ে যেতে। যদিও হোসে মারিয়া বার্তেম্যু কমিটি আইনি মারপ্যাঁচে ফেলে তাকে আটকে রেখেছিলেন; কিন্তু এই মৌসুমে আর তাকে আটকানোর সুযোগ নেই। ৩০ জুন শেষ হবে তার চুক্তির মেয়াদ। এরপর স্বাধীন হয়ে যাবেন মেসি।

হুয়ান লাপোর্তা সভাপতি হিসেবে পূণঃনির্বাচিত হয়ে আসার পরই ঘোষণা দেন মেসিকে ধরে রাখবেন। এরই মধ্যে তার চুক্তি নবায়নের আলোচনা টেবিলে রয়েছে। মেসির বাবা হোর্হে মেসি এখন অবস্থান করছেন বার্সেলোনায়। তার সাথে আলোচনা চলছে। জানা গেছে, বর্তমানে যে শর্তাধীনে চুক্তিতে আছেন মেসি, নতুন চুক্তিতে সেটা তিনগুণ হয়ে যেতে পারে।

মেসির চুক্তি বিষয়ক আলোচনায় এসেছিল অডিট রিপোর্টের কথা। লাপোর্তা কোনো কিছুই পরোয়া করেননি। মেসিকে প্রস্তাব দিয়েছেন। এরই মধ্যে যদি রোনালদোর বিষয়টা আলোচনায় উঠে আসে, তাহলে এত টাকা কোথায় পাবে বার্সা? করোনার কারণে ক্লাব যেভাবে আর্থিক সমস্যায় জর্জরিত, তাতে রোনালদোকে নিয়ে আসা কিংবা তার পারিশ্রমিক দেয়ার বিষয়টা খুবই কঠিন হয়ে যাবে বার্সার জন্য।

যদিও, মেসি-রোনালদো এক ক্লাবে একই সঙ্গে থাকা মানে পরের এক বছরে বার্সার রেভিনিউ কোথায় গিয়ে পৌঁছাবে, তার কী কোনো সীমা-পরিসিমা থাকবে? এ কারণেই মূলতঃ অর্থনৈতিক বিষয়াদি নিয়ে মোটেও চিন্তিত নন লাপোর্তা।

আইএইচএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]