সমকামীদের রঙে মিউনিখকে রাঙাতে চায় জার্মানি, উয়েফার ‘না’

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:১৪ পিএম, ২২ জুন ২০২১ | আপডেট: ০৫:২০ পিএম, ২২ জুন ২০২১

‘রেইনবো কালার’- এটা নিয়েই এখন তোলপাড় ইউরোপে। চলমান উয়েফা ইউরো কাপেই সবচেয়ে বেশি আলোচনার জন্ম দিচ্ছে ‘রঙধনুর রঙ’ বিষয়টি। জার্মান ফুটবল দলের অধিনায়ক এবং গোলরক্ষক ম্যানুয়েল ন্যুয়ার রেইনবো কালারের আর্মব্যান্ড পরে নেমেছিলেন মাঠে। যে কারণে তদন্তে পর্যন্ত নেমেছিল ইউরোপিয়ান ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা উয়েফা।

যদিও তদন্তে রেইনবো কালারের আর্মব্যান্ড পরাতে ‘রাজনৈতিক’ কোনো দুরভিসন্ধির ছোঁয়া পায়নি উয়েফা। যে কারণে তারা ন্যুয়ারকে কোনো শাস্তিও দেয়নি। জার্মান ফুটবল ফেডারেশন (ডিএফবি) উয়েফাকে জানিয়েছিল, শুধুমাত্র বৈচিত্র্য আনতেই এ ধরনের বহু-রঙয়ের আর্মব্যান্ড পরে মাঠে নেমেছিলেন ন্যুয়ার।

উয়েফা শাস্তি না দিক কিংবা তারা বিষয়টাকে স্বাভাবিকভাবে নিলেও সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে ইউরোপিয়ান মেইনস্ট্রিম মিডিয়াগুলোতেও জোর আলোচনা চলছে, ম্যানুয়েল ন্যুয়ার সমকামীদের প্রতীক রঙধনুকেই সবার সামনে উপস্থাপন করতে এ পথ বেছে নিয়েছিলেন।

এ তো গেলো জার্মান ফুবল দলের অধিনায়কের অবস্থা। এবার খোদ জার্মানির শহর মিউনিখের মেয়র উয়েফার কাছে আবেদন জানিয়েছে, হাঙ্গেরির বিপক্ষে ইউরো কাপে নিজেদের শেষ ম্যাচের সময় শহরটির স্টেডিয়াম আলিয়াঞ্জ এরেনার বাইরের অংশকে রঙধনুর রঙে রাঙাতে চায় তারা। যদিও উয়েফা মিউনিখের মেয়রের এই আবেদন নাকচ করে দিয়েছে। অর্থ্যাৎ, এমনটা করতে তারা অনুমতি দেয়নি।

ইউরো কাপের এবারের যে ১১টি ভেন্যু রয়েছে, তার মধ্যে নিউনিখের আলিয়াঞ্জ এরেনা অন্যতম। মিউনিখের মেয়র দিয়েতার রেইতার চান, হাঙ্গেরির বিপক্ষে ম্যাচের সময় স্টেডিয়ামের বাইরের অংশে এমনভাবে আলোকসজ্জা করবেন, যাতে সেখানে রঙধনুই স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

এর পেছনে অবশ্য একটা কারণও আছে। সম্প্রতি হাঙ্গেরি তাদের স্কুলগুলোতে সমকামিতা এবং ট্রান্সজেন্ডার সম্পর্কিত কোনো কিছু নিয়ে প্রচার-প্রচারণা নিষিদ্ধ করা হয়। এরই প্রতিবাদে মিউনিখে হাঙ্গেরির বিপক্ষে ম্যাচে আলিয়াঞ্জ এরেনা স্টেডিয়ামকে সমকামীদের প্রতীক রঙধনুর রঙে রাঙাতে চান মেয়ার দিয়েতার রেইতার।

বায়ার্ন মিউনিখের হোমভেন্যু হচ্ছে আলিয়াঞ্জ এরেনা। এরই মধ্যে স্টেডিয়ামটিকে রঙধনুর রঙে রাঙানোর বিষয়ে রিহার্সালও হয়ে গেছে। যে ছবি এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে ইন্টারনেট জগতে।

উয়েফা এক বিবৃতিতে মিউনিখ মেয়রের এই আবেদক বাতিল করে দিয়েছে। তারা বিকল্পও বলে দিয়েছে। জানিয়েছে, ইউরো চলাকালীনই ভিন্ন কোনো দিনে কর্তৃপক্ষ যেন স্টেডিয়ামটিকে ভিন্ন রঙে রাঙায়িত করে। কিন্তু হাঙ্গেরির বিপক্ষে ম্যাচের সময় নয়।

উয়েফা বিবৃতিতে বলেছে, ‘উয়েফা সাধারণ ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত একটি সংস্থা। এই আবেদনের (মিউনিখ মেয়রের) মধ্যেই রাজনৈতিক বিষয় জড়িত। যে বিষয়ে হাঙ্গেরিয়ান পার্লামেন্ট সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সে বিষয়ে উয়েফা কিভাবে নিজেদের অবস্থান তৈরি করে? সুতরাং, আমরা এ আবেদন রাখতে সক্ষম নই।’

পরক্ষণে উয়েফা পরামর্শ দিয়ে বলে, ‘তবে, আমরা প্রস্তাব করতে পারি মিউনিখ চাইলে তাদের স্টেডিয়ামটিকে ভিন্ন রঙে রাঙাতে পারে ২৮ জুন, যেটাকে ক্রিস্টোফার স্ট্রিট লিবারেশন ডে হিসেবে পালন করা হয় মিউনিখে। কিংবা ৩ থেকে ৯ জুলাই, যখন সপ্তাহব্যাপি ক্রিস্টোফার স্ট্রিট ডে পালন করা হয়।’

ক্রিস্টোফার ডে ইভেন্ট পালন করা হয় মূলতঃ ১৯৬৯ সালে নিউইয়র্কে যখন সমকামিতা মাথাছাড়া দিয়ে ওঠে, সেই সময়টাকে স্মরণ করে।

আইএইচএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]