ঈশ্বর আমার জন্য এটা জমিয়ে রেখেছিলেন : মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৪৬ পিএম, ১১ জুলাই ২০২১

২০১৪ সালের বিশ্বকাপ, ২০১৫ সালের কোপা আমেরিকা, ২০১৬ সালের কোপা আমেরিকা- পরপর তিন বছর তিনটি বড় আসরের ফাইনালে উঠেছিল আর্জেন্টিনা। কিন্তু তিনবারই ফিরতে হয়েছে স্বপ্নভঙ্গের হতাশা নিয়ে। এ তিনটি টুর্নামেন্টেই সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন লিওনেল মেসি।

কিন্তু টানা তিন ফাইনাল হারের হতাশায় ২০১৬ সালের কোপা আমেরিকার সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার গোল্ডের বল গ্রহণ করেননি মেসি। উল্টো হতাশায় ডুবে আন্তর্জাতিক ফুটবল ছেড়ে দেয়ারই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি। তবে সেই সিদ্ধান্তে বেশি দিন থাকতে পারেননি।

তামাম বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের ভালোবাসা ও আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের অনুরোধে অবসর ভেঙে সে বছরই ফেরেন মেসি। ভাগ্যিস অবসর ভেঙে ফিরেছিলেন তিনি। নতুবা ২০২১ সালের কোপা আমেরিকার শিরোপাটি কি নিজ হাতে নিতে পারতেন বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা এ ফুটবলার?

শুধু অধিনায়ক হিসেবেই নয়, দলের সেরা পারফরমার হিসেবেই এবারের কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনা চ্যাম্পিয়ন করেছেন মেসি। পুরো আসরে চার গোল ও পাঁচ এসিস্ট করে জিতেছেন গোল্ডেন বুট ও গোল্ডেন বল। সবচেয়ে বড় বিষয়, এবার যে কোপা আমেরিকার ট্রফিটাও পেয়েছেন মেসি।

jagonews24

দীর্ঘ অপেক্ষার পর এলেও, অবশেষে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য ধরা দেয়ায় আনন্দে মাতোয়ারা মেসি। তার মতে, ঈশ্বর এতদিন তার জন্য এই মুহূর্তটাই জমিয়ে রেখেছিলেন। বিশেষ করে ব্রাজিলের মাটিতে ব্রাজিলকে হারিয়ে কোপা আমেরিকার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার বিষয়টি।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মেসি বলেছেন, ‘আমার মনে হয়, ঈশ্বর আমার জন্য এই মুহূর্তটা জমিয়ে রেখেছিলেন। ব্রাজিলের মাটিতে ব্রাজিলের বিপক্ষে কোপা আমেরিকা জয় অসাধারণ অনুভূতি। লিওনেল স্কালোনি দুর্দান্ত কোচ। সে সবসময় জাতীয় দলের জন্য সেরাটা চেয়েছে। সে জানত কীভাবে একটা জয়ী দল গোছানো যায়। সে অবশ্যই কৃতিত্ব প্রাপ্য।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘জাতীয় দলের হয়ে কিছু না জেতার কাঁটাটা দূর করা জরুরি ছিল আমার জন্য। বেশ কয়েকবার আমি এর কাছাকাছি গিয়েছি। আমি জানতাম, কখনও এটা হয়তো পাবো না, আবার একসময় হয়তো পাবো। আমার মনে হয়, এর চেয়ে সেরা মুহূর্ত আর হতে পারে না।’

ফাইনালের আগে মেসির জন্মস্থান রোজারিওতে তার একটি দীর্ঘাকৃতির ভাস্কর্ষ উদ্বোধন করা হয়েছিল। সেটি সম্পর্কে মেসি বলেছেন, ‘তারা আমাকে জানিয়েছে যে, মানুষ সবখানে উদযাপন করছে। আমি রোজারিওর মানুষদের ধন্যবাদ জানাতে চাই, তারা ভাস্কর্যের মাধ্যমে আমাকে সম্মান দেয়ায়।’

এসএএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]