২০ হাজার কোটি টাকা মূল্যের এক ম্যাচ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আজ

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৪০ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

প্যারিসের রাজকুমারী বলা হয় তাকে। নাম, পার্ক ডি প্রিন্সেস। প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) হোমভেন্যু। এখানেই আর দু’তিনঘণ্টা পর মাঠ মাতাতে নামছেন বিশ্বের একঝাঁক নামি-দামি ফুটবলার। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে ম্যানচেস্টার সিটিকে অভ্যর্থনা জানাবে স্বাগতিক পিএসজি।

মাঠের বাইরে যতই ভাব জমুক, একে অপরকে অভ্যর্থনা জানাক- মাঠের মধ্যে দু’দল পরস্পরের শত্রু। কে কাকে পেছনে ফেলে গোল আদায় করে নেবে, কে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়বে- সে লক্ষ্যে চলবে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বীতা।

তবে, ম্যাচটি মাঠে গড়ানোর আগেই দারুণ এক খেতাব জয় করে নিয়েছে। বিশ্বের সবচেয়ে দামি ম্যাচ হতে যাচ্ছে আজ পিএসজি বনাম ম্যানচেস্টার সিটির মধ্যে।

দুই দলের মধ্যেই রয়েছে বিশ্বের সেরা সেরা কয়েকজন তারকা ফুটবলার। যাদের যে কোনো একজনের উপস্থিতিতেও ভক্ত-সমর্থকদের সব আলো কেড়ে নিতে পারে। কারণ, দু’দলেই রয়েছে ট্রান্সফারে রেকর্ড সৃষ্টি করা ফুটবলার।

ট্রান্সফার মার্কেট ডাটা তথ্য জানিয়েছে, পিএসজি স্কোয়াডের মূল্যই হচ্ছে ১ বিলিয়ন ইউরো (প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা) আর পিএসজির স্কোয়াডের মূল্য হচ্ছে ৯৯৭.২৫ মিলিয়ন ইউরো তথা (৯হাজার ৯৭৭ কোটি টাকা)। দুই দলের একসঙ্গে মূল্য দাঁড়াচ্ছে ২ বিলিয়ন ইউরো তথা প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা।

২০ হাজার কোটি টাকার ম্যাচটিই এখনও পর্যন্ত হয়ে থাকছে পৃথিবীর সবচেয়ে মূল্যবান ম্যাচ হিসেবে। যদিও বিশ্বের সবচেয়ে দুটি দামি দল হলেও তাদের কেউই এখনও পর্যন্ত কোনো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি জিততে পারেনি।

Messi-neymar

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি জয়ের জন্য দু’দলই এবার বেশ কিছু খেলোয়াড় নিয়ে এসেছে নিজেদের দলে। এবারের মৌসুমে ম্যানসিটির সবচেয়ে দামি ট্রান্সফার ছিলেন জ্যাক গ্রিলিশ। অ্যাস্টন ভিলা থেকে ইংল্যান্ডের ২৫ বছর বয়সী এই ফুটবলারকে ১১৭.৫ মিলিয়ন ইউরোয় কিনে নিয়েছে সিটি।

পিএসজির ট্রান্সফার তো ছিল দুনিয়ায় তোলপাড় করা। আশরাফ হাকিমি, সার্জিও রামোস, জিয়ানলুইজি ডোনারুমা, জর্জিনিও উইজনালডাম- এদের সবাইকে কিনেছে ফ্রেঞ্চ ক্লাবটি। সর্বশেষ এদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন ৬ বারের ব্যালন ডি অর জয়ী লিওনেল মেসি। আগে থেকেই এখানে ছিলেন নেইমার, এমবাপে, ডি মারিয়াদের মত ফুটবলার।

পিএসজির আক্রমণভাগের মূল্যই হচ্ছে ৩৪০ মিলিয়ন ইউরো। কিলিয়ান এমবাপের মূল্য ১৬০ মিলিয়ন ইউরো, নেইমারের ১০০ মিলিয়ন এবং মেসির মূল্য ৮০ মিলিয়ন ইউরো। অন্যদিকে ম্যানসিটির আক্রমণভাগের মূল্য ২৭০ মিলিয়ন ইউরো। যেখানে কেভিড ডি ব্রুইনের মূল্য ১০০ মিলিয়ন, রাহিম স্টার্লিংয়ের মূল্য ৯০ মিলিয়ন এবং ফিল ফোডেনের মূল্য ৮০ মিলিয়ন ইউরো।

আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]