সাফের শিরোপায় চোখ মারিয়া-আঁখিদের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৫:৪০ পিএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

মাঠে তাদের পা যতটা চতুর, মাঠের বাইরে মুখ ততটা নয়। সবুজ ঘাসে ফুটবল নিয়ে যতটা নিঁখুত কারুকাজ জানেন, সংবাদ মাধ্যমে কথা বলার বেলায় তার উল্টো। লাজুকতা এতটাই গ্রাস করে যে, মাঝেমধ্যে একটা বলতে গিয়ে আরেকটি বলে হাসির উপাদান যোগান। তারা দুইজন নারী ফুটবলার মারিয়া মান্ডা ও আঁখি খাতুন।

বৃহস্পতিবার তারা মিডিয়ার সামনে বসেছিলেন দুই দিন পর শুরু হতে যাওয়া সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের প্রস্তুতি ও সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলার জন্য। কিন্তু ঐ যে, গুছিয়ে কথা বলতে পারেন না।

তবে মাঠে যে তারা ভালো খেলে মানুষকে আনন্দ দেবেন এবং শিরোপা জিততে নিজেদের সবটুকু উজার করে দেবেন সেটা বলেছেন অধিনায়ক মারিয়া মান্ডা ও সহ অধিনায়ক আঁখি খাতুন। দুইজনের বক্তব্যের সারকথা- শিরোপায় চোখ রেখে খেলবে তারা।

বাফুফে ভবনে বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে টুর্নামেন্টের জন্য দল ঘোষণা করেছেন ফিফা কাউন্সিল মেম্বার ও বাফুফের নারী উইংয়ের চেয়ারপার্সন মাহফুজা আক্তার কিরণ। উপস্থিত ছিলেন বাফুফে সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ, দলনেতা জাকির হোসেন চৌধুরী, ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবু, কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন।

সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের এটা প্রথম আসর। এর আগে এই টুর্নামেন্ট হয়েছিল অনূর্ধ্ব-১৮ বয়সের। ২০১৮ সালের পর আর টুর্নামেন্ট হয়নি করোনার কারণে। তাই সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ করেছে টুর্নামেন্টটি।

শনিবার কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শুরু হবে পাঁচ দেশের এই টুর্নামেন্ট। প্রথম দিন সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ খেলবে নেপালের বিপক্ষে।

মারিয়া মান্ডা বলেছেন, ‘বিগত দিনে আমরা যে পারফরম্যান্স দেখিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছি, সে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই। আমরা খেলে দর্শকদের আনন্দ দিতে চাই এবং চ্যাম্পিয়ন হতে চাই।’

সহ অধিনায়ক আঁখি খাতুনের বক্তব্যও তাই, ‘এই টুর্নামেন্টের জন্য আমরা অনেক পরিশ্রম করেছি, কষ্ট করেছি। পূর্বের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চ্যাম্পিয়ন হতে চাই।’

বাংলাদেশ কি চ্যাম্পিয়ন হতে পারবে? কোচ কী বলেন? গোলাম রব্বানী ছোটনের কথা, ‘সেপ্টেম্বরের ৩০ তারিখ থেকে আমরা অনুশীলন করছি। উজবেকিস্তানে আমরা শক্তিশালী দলের বিপক্ষে খেলেছিলাম। তারপর থেকে আমাদের ডেভেলপমেন্ট কার্যক্রম চলছে। ঘরের মাঠের এই টুর্নামেন্টে আমাদের মেয়েরা ভালো খেলে দর্শকদের আনন্দ দেবে এবং চ্যাম্পিয়ন হবে বলেই বিশ্বাস করি।’

আরআই/এসএএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]