এমনও হয়েছে ঢাকা আসতে লেগেছে ২৪ ঘণ্টা

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৭:২০ পিএম, ২৫ জুন ২০২২

পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় সরাসরি উপকৃত দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। জাতীয় নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুন ওই ২১ জেলার একটি সাতক্ষীরার বাসিন্দা। সেই ২০০৯ সাল থেকে ঢাকায় আসা-যাওয়া তার। পদ্মা পার হতে যে কত গলদঘর্ম হতে হয়েছে তাকে, তা বলে শেষ করা যাবে না।

শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেছেন পদ্মা সেতু। বিকেল মালয়েশিয়ার বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে পদ্মা সেতু নিয়ে প্রশ্ন করা হলে জাতীয় নারী দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুন বলেন, 'আমাদের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।'

এতদিন কষ্ট করে ঢাকায় আসা-যাওয়া করতেন সাবিনা। এখন আর সেই বিড়ম্বনা থাকছেন না। নির্দিষ্ট একটা সময়ের মধ্যেই পৌঁছে যেতে পারবেন গন্তব্যে।

সাবিনা খাতুন বলেছেন, ‘এটা কেবল আমার একার তৃপ্তি নয়, ওই অঞ্চলের কোটি কোটি মানুষের তৃপ্তি। এতদিন যারা কষ্ট করেছেন তারা এখন স্বাচ্ছন্দে ঢাকায় আসা-যাওয়া করতে পারবেন।’

সাবিনা খাতুন দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ নারী দলের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছেন। নিজ জেলা সাতক্ষীরায় যাওয়ার আসা করতে হয় তাকে। বাড়িতে যাওয়ার ক্ষেত্রে পদ্মায় লঞ্চ বা ফেরিতে ভোগান্তির শিকার হতেন সাবিনা। এমনও হয়েছে সাতক্ষীরা থেকে ঢাকায় পৌঁছাতে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় লেগেছে বলে জানালেন তিনি। আজ স্বপ্নের পদ্মা সেতু খুলে দেওয়ায় সাবিনার চোখে মুখে আনন্দের ছাপ দেখা দিয়েছে।

বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক বলেছেন, 'সাতক্ষীরা থেকে ঢাকা আসতে অনেক সময় লাগে। এমনও হয়েছে আমরা সকাল বেলা বাসে রওনা দিয়ে ঢাকায় এসে পৌঁছেছি পরদিন সকালে। এখন ওই যাতায়াতের সময়টা ছোট হয়ে এসেছে। সাড়ে চার বা পাঁচ ঘণ্টার মধ্যে বাসায় চলে যেতে পারব। ওই অঞ্চলে যারা আছে তাদের থেকে খুশি হয়ত আর কেউ হয়নি। আমাদের জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি, প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। আমাদের যে স্বপ্ন ছিল সেটা বাস্তব হয়েছে।'

আরআই/আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]