‘প্রিন্স অব ওয়েলস’ হয়েও কেন ইংল্যান্ডকে সমর্থন দেবেন উইলিয়ামস?

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:১৩ এএম, ২০ নভেম্বর ২০২২

 

দীর্ঘ ৬৪ বছর পর বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেয়েছে ইউরোপের ছোট্ট দেশ ওয়েলস। গ্রেট ব্রিটেনের অংশ হিসেবে থাকা ছোট্ট এই দেশটি দীর্ঘদিন পর তাই নিজেদের ইতিহাস বদলানোর সুযোগ পেয়েছে। কিন্তু অন্যদিকে বেঁধেছে বিপত্তি। ব্রিটেন রাজ পরিবারের সদস্য প্রিন্স উইলিয়ামস এর রাজকীয় পদবী হলো ‘প্রিন্স অব ওয়েলস’ অথচ বিশ্বকাপে কিনা ইংল্যান্ডের সমর্থন যোগাবেন তিনি।

বাবা রাজা তৃতীয় চার্লসের রাজা হওয়ার সুবাদে অনুমিতভাবেই ‘প্রিন্স অব ওয়েলস’ উপাধি তার ঘাড়ে এসে পড়ে। সেই ওয়েলসের রাজধানী কার্ডিফে এসেম্বলি ভবন পরিদর্শনকালে ৪০ বছর বয়সী প্রিন্স উইলিয়ামস অবশ্য শপথ করেন যে তিনি বিশ্বকাপে দুই দলকেই সমর্থন করবেন। তিনি বলেন, ‘আমি সবাইকে বলতে চাই আমি অবশ্যই ইংল্যান্ড ও ওয়েলস দুই দলকেই সমর্থন দিব। আমি কাউকে হারাতে চাই না। কিন্তু আমি ছোটবেলা থেকে ইংল্যান্ডকে সমর্থন করে আসছি।

ফুটবলে ইংল্যান্ড সমর্থন করলেও রাগবিতে অবশ্য তিনি ওয়েলসকেই ইংল্যান্ডের আগে রাখছেন। ‘আমি উচ্ছ্বসিতভাবেই রাগবিতে ইংল্যান্ডের থেকে ওয়েলসকে বেশি সমর্থন করি’।

কিন্তু সময়টা এখন ফুটবলের। আর তাই প্রিন্স অব ওয়েলসের ইংল্যান্ড সমর্থনকে কোনভাবেই মানতে পারছে না অধিকাংশ ওয়েলসের মানুষরা। ওয়েলসের অভিনেতা মাইকেল শিন বলেন, ‘সে যেকোন দল সমর্থন করতেই পারে। এফএ এর কর্মকর্তা হিসেবে সে ইংল্যান্ড সমর্থন করতে পারে কিন্তু প্রিন্স অব ওয়েলস উপাধি নিয়ে তিনি কোনভাবেই ইংল্যান্ড সমর্থন করতে পারে না।’

এর আগে মঙ্গলবার ইংল্যান্ড জাতীয় দলের অনুশীলন ক্যাম্পে এসে ইংলিশ অধিনায়ক হ্যারি কেইনের সঙ্গে দেখা করে তাদেরকে অনুপ্রেরণা যোগান। শেষবার কোয়ার্টার ফাইনালে কিংবদন্তি পেলের করা একমাত্র গোলে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ছিটকে গিয়েছিল ওয়েলস।

আরআর/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।