পর্তুগাল শিবিরে অশান্তির আগুন, কোচের সঙ্গেই লাগলেন রোনালদো!

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০৮ পিএম, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২

লুসাইল স্টেডিয়ামে সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের শেষ ষোলো ম্যাচের চব্বিশ ঘণ্টা আগে সাংবাদিক বৈঠকে রোনালতোর আচরণ নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিলেন ফার্নান্দো সান্তোস। সোমবার বিকেলে কাতার কনভেনশন সেন্টারের সাংবাদিক সম্মেলন কক্ষে পর্তুগাল কোচ যখন থমথমে মুখে ঢুকলেন, বোঝাই যাচ্ছিল কিছু একটা হয়েছে।

গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধে ৬৫ মিনিটে তাকে তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি সিআর সেভেন। প্রকাশ্যেই তিনি অসন্তোষ জানান। সান্তোস বলন, ‘তার এই আচরণ একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমার খুবই খারাপ লেগেছে।’

সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে অন্দরমহলের অশান্তি পর্তুগাল শিবিরকে কতটা চাপে রাখছে? এবার সতর্ক হয়ে গেলেন সান্তোস। দাবি করলেন, ‘বন্ধ দরজার আড়ালেই সব সমস্যা মিটে গেছে। এ নিয়ে আর কোনও কথা বলতে চাই না। সুইজারল্যান্ড ম্যাচে এখন মনোনিবেশ করছি আমরা।’

সত্যিই সব সমস্যা কি মিটে গেছে? পর্তুগালের সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলে কিন্তু তা মনে হল না। তাদের মতে, বিতর্ক ধামাচাপা দেওয়ার মরিয়া চেষ্টা করছেন দলের কোচ। অন্দরমহলের পরিস্থিতি একেবারেই ইতিবাচক নয়। কেন? তাদের দাবি, ‘মাঠ থেকে তুলে নেওয়ায় ক্ষিপ্ত রোনালদো অশ্লীল ভাষায় আক্রমণ করেছিলেন কোচকে। সান্তোসের পক্ষে এ অপমান মেনে নেওয়া সম্ভব নয়।’

সিআর সেভেন যদিও দাবি করেছেন, তিনি কোচকে আক্রমণ করেননি। ওই ম্যাচের পরেই বলেছিলেন, ‘দক্ষিণ কোরিয়ার ফুটবলাররা আমাকে তাড়াতাড়ি মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যেতে বলেছিল। আমি ওদের বলেছিলাম, চুপ করো। তোমাদের কোনও অধিকার নেই আমাকে এভাবে বেরিয়ে যেতে বলার। সান্তোসের সঙ্গে আমার কোনও ঝামেলাই হয়নি।’

তাতেও কিন্তু ছবিটা বদলাচ্ছে না। পর্তুগালের এক সাংবাদিক হতাশ হয়ে বলেই ফেললেন, ‘মেসিকে দেখেই বোঝা যাচ্ছে শেষ বিশ্বকাপ স্মরণীয় করে রাখতে মরিয়া। ক্ষুধার্ত হয়ে রয়েছেন চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য। রোনালদোরও এটাই শেষ বিশ্বকাপ সম্ভবত। অথচ ওর মন যেন অন্য কোথাও পড়ে রয়েছে। বিশ্বকাপে খুব একটা আশা দেখছি না আমরা। তা ছাড়া ফিটনেসের সমস্যাও রয়েছে সিআর সেভেনের।’

এ মুহূর্তে কোচের সঙ্গে রোনালদোর যা সম্পর্ক, তাতে সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম একাদশে থাকবে কি না, তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। সান্তোসের কথাতেও সে রকম ইঙ্গিত। সান্তোস সংবাদ সম্মেলনে বলে দিলেন, ‘ম্যাচের দিন স্টেডিয়ামের ড্রেসিংরুমে ঢুকেই আমি প্রথম একাদশ ঘোষণা করি।’

সাম্প্রতিক সাক্ষাতে দু’টি দলই একটি করে ম্যাচ জিতেছে। উয়েফা নেশনস লিগে লিসবনে ঘরের মাঠে ৪-০ ব্যবধানে জিতেছিল পর্তুগাল। জোড়া গোল করেছিলেন রোনালদো। ঘরের মাঠে ১-০ জিতে তার বদলা নিয়েছিলেন জাদরান শাকিরিরা। এখন পরিস্থিতি অনেক বদলে গেছে। কোচ বনাম অধিনায়ক বিবাদের জেরে অশান্ত হয়ে উঠেছে পর্তুগালের অন্দরমহল।

আইএইচএস/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।