সেমিফাইনালে দেখা যাবে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার দ্বৈরথ?

রফিকুল ইসলাম
রফিকুল ইসলাম রফিকুল ইসলাম , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৫৪ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ মানেই দর্শকদের জন্য অন্যরকম পাওয়া। আর সেই ম্যাচ যদি হয় বিশ্বকাপে, তাহলে তো কথাই নেই। কাতার বিশ্বকাপ ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার দ্বৈরথ দেখানোর সম্ভাবনাময় অবস্থায় দাঁড়িয়ে। শুক্রবার রাতই ঠিক করে দেবে ১৯৯০ সালের পর বিশ্বকাপে আরেকটি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মহারণ দেখা যাবে কি না।

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই দুই দল কখনো ফাইনাল খেললে সেটা হবে বিশ্বকাপের স্বপ্নের ফাইনাল। ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপ তেমনই সম্ভাবনা তৈরি করেছিলো, দুই দল যখন সেমিফাইনালে উঠে যায়। ওই বিশ্বকাপে সেটা হতে হতে দেয়নি জার্মানি।

নেদারল্যান্ডকে হারিয়ে আর্জেন্টিনা ফাইনালে উঠলেও ঘরের বিশ্বকাপে পারেনি ব্রাজিল। সেমিফাইনাল থেকে ব্রাজিলকে কেবল বিদায়ই করেনি জার্মানি, রীতিমতো লজ্জ্বায় ডুবিয়েছিল নেইমারবিহীন ব্রাজিলকে। ৭-১ গোলে হেরে সেদিন কেঁদেছিল ব্রাজিল।

neymar

বিশ্বকাপে খুববেশি মুখোমুখি হয়নি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। সর্বশেষ হয়েছিল ১৯৯০ সালে ইতালি বিশ্বকাপে। তাও নকাউট পর্বে। সর্বশেষ ওই সাক্ষাতে ব্রাজিলকে ১-০ গোলে হারিয়েছিল ম্যারাডোনার আর্জেন্টিনা। ৮১ মিনিটে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেছিলেন ক্যানিজিয়া।

৩২ বছর পর আরেকটি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচের সম্ভাবনার সামনে দাঁড়িয়ে কাতার বিশ্বকাপ। আর দু’দলের দেখা হলে সেটা হবে সেমিফইনালে। দুই দলের আগের সাক্ষাতগুলোর কোন ম্যাচই সেমিফাইনালের ছিল না। কাতারে সেটা হলে তাও হবে দর্শকদের জন্য নতুন এক পাওয়া।

প্রশ্ন হলো, অনেক দিন পর বিশ্বকাপে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ দেখার সৌভাগ্য কি হবে দর্শকদের? নাকি দুনিয়াব্যাপী এই দর্শকদের প্রত্যাশার বাড়াভাতে ছাই দিয়ে দেবে ক্রোয়েশিয়া ও নেদারল্যন্ডস?

শুক্রবার রাতে পেলের দেশ ব্রাজিল আর ম্যারাডোনার দেশ আর্জেন্টিনা খেলতে নামছে কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচ। ভিন্ন ভিন্ন ম্যাচে রাত ৯ টায় ব্র্রাজিলের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া এবং রাত ১ টায় আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডস।

Messi

২০১৪ বিশ্বকাপে ব্রাজিল ক্রোয়েশিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল, আর্জেন্টিনাও খেলেছিল নেদ্যারল্যান্ডসের বিপক্ষে। নিজ নিজ ম্যাচে জিতেছিল ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। ব্রাজিল-ক্রোয়েশিয়ার ম্যাচটি ছিল বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচ, আর্জেন্টিনা-নেদারল্যান্ডসের ম্যাচ ছিল সেমিফাইনাল। দুটি ম্যাচই হয়েছিল সাও পাওলো স্টেডিয়ামে।

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার সমর্থকদের প্রত্যাশা, তাদের দল কোয়ার্টারের বাধা পার হয়ে সেমিফাইনালে উঠুক। একই চাওয়া বিশ্বব্যাপী ফুটবলপ্রেমীদেরও। এই দুই দলের বিশ্বকাপ লড়াই যে হরহামেশা দেখা যায় না!

ক্রোয়েশিয়া কি ব্রাজিলের পথে কাঁটা বিছিয়ে দিতে পারবে? নাকি নেদারল্যান্ডস পারবে আর্জেন্টিনাকে শেষ আট থেকেই বিদায় জানাতে? দুই প্রশ্নের উত্তর ‘না’ মিলে গেলেই কাতার বিশ্বকাপের একটি সেমিফাইনাল ম্যাচ হবে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার।

কি বলে দুই দলের প্রতিপক্ষের সঙ্গে তাদের অতীত? একটু নজর দেওয়া যাক। বিশ্বকাপে এর আগে দুইবার মুখোমুখি হয়েছে ব্রাজিল ও ক্রোয়েশিয়া। ২০০৬ বিশ্বকাপে ব্রাজিল জিতেছিল ১-০ গোলে এবং ২০১৪ বিশ্বকাপের জয় ছিল ৩-১ গোলের ব্যবধানে। এর বাইরে দুই দল দুটি ফ্রেন্ডলি ম্যাচ খেলেছিল। ২০০৫ সালের ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছিল এবং ২০১৮ সালের ম্যাচে ২-০ গোলে জিতেছিল ব্রাজিল।

ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে অতীত রেকর্ডটা ব্রাজিলের দিকে ঝুঁকে থাকলেও আর্জেন্টিনা ও নেদারল্যান্ডসের রেকর্ড তার উল্টো। অর্থাৎ আর্জেন্টিনার বিপক্ষে অতীত রেকর্ড ভালো নেদারল্যান্ডসের। দুই দল আন্তর্জাতিক ফুটবলে মুখোমুখি হয়েছে ৯ বার। এর মধ্য বিশ্বকাপের ম্যাচ ৫টা। এর বাইরে একটি ম্যাচ আছে ফিফার একটি উদযাপন উপলক্ষ্যে, অন্য তিনটি ফ্রেন্ডলি।

messi-neymar

৯ বারের সাক্ষাতে নেদারল্যান্ডস জিতেছে ৪টি ম্যাচ, আর্জেন্টিনা জিতেছে ৩টি এবং ২ টি ম্যাচ হয়েছে ড্র। দুই দেশের সর্বশেষ সাক্ষাৎ হয়েছিল ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে। ওই ম্যাচটি আর্জেন্টিনা জিতেছিল টাইব্রেকারে। নির্ধারিত ৯০ মিনিট ও অতিরিক্ত ৩০ মিনিটের ম্যাচে কোনো গোল হয়নি। যে কারণে অফিসিয়ালি ম্যাচটি ড্র।

১৯৭৪ সালে দুইবার দেখা হয়েছিল আর্জেন্টিনা-নেদারল্যান্ডসের। দুইবারই বড় ব্যবধানে হেরেছিল আর্জেন্টিনা। ফ্রেন্ডলি ম্যাচে নেদারল্যন্ডস জিতেছিল ৪-১ গোলে, বিশ্বকাপে ৪-০ ব্যবধানে। ১৯৯৮ বিশ্বকাপে নেদারল্যন্ডস জিতেছিল ২-১ গোলে। ২০০৬ ও ২০১৪ বিশ্বকাপে গোলশূন্য ড্র। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার বড় জয়টি ছিল ১৯৭৮ বিশ্বকাপে ৩-১ গোলের ব্যবধানে।

কাতার বিশ্বকাপ অবশ্য এসব অতীত রেকর্ড থোড়াই কেয়ার করছে। সৌদির কাছে আর্জেন্টিনার হার, জাপানের কাছে জার্মানি ও স্পেনের হার, কোরিয়ার কাছে পর্তুগালের হার এবং শেষ ষোলোয় মরক্কোর কাছে স্পেনের হারের পর কাতার বিশ্বকাপে কোন ম্যাচ নিয়েই তাই আগাম ভবিষ্যতবাণী করা কঠিন। তবে ক্রোয়েশিয়া ও নেদারল্যন্ডস হারুক এবং ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সেমিফাইনাল হোক- ফুটবলামোদীরা সেটাই মনে-প্রাণে আশা করছে।

আরআই/আইএইচএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।