ক্যাচ মিসেই ম্যাচ মিস করেছি : সাকিব

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৩৩ পিএম, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭

শেষ পর্যন্ত ৬৯ বলে ১৪৬ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে রংপুরের জয়ের নায়ক ক্রিস গেইল। কিন্তু এমন বিধ্বংসী ইনিংসটি শেষ হয়ে যেতে পারতো মাত্র ২২ রানেই। অফ স্পিনার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বলে কাভারে গেইলের ক্যাচ ফেলে দেন সাকিব আল হাসান। সেই জীবন পেয়ে আর পেছনে ফিরে তাকাননি গেইল। কিছুক্ষণ ধীরে-সুস্থে খেলে এক সময় গিয়ে বিপজ্জনক হয়ে উঠলেন তিনি।

কিন্তু সাকিব ২২ রানে ক্যাচটি ধরে রাখতে পারলে হয়তো ম্যাচের চালচিত্র ভিন্ন হতে পারতো। কারণ ইলিমিনেটর রাউন্ডে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ঝড়ো শতরান করে ম্যাচ জেতানো জনসন চার্লস আগেই ফিরে গিয়েছিলেন।

গেইল যখন ২২ রানে ক্যাচ আউটের হাত থেকে বাঁচলেন তখন রংপুর ইনিংসের বয়স মাত্র ৬ ওভার। সাকিব ওই ক্যাচ ধরতে পারলে নির্ঘাত চাপে পড়ে যেত রংপুর। দিন শেষে ঢাকা ডায়নামাইটস সমর্থকদের আফসোস এখন শুধুই ওই ক্যাচ।

ঢাকা অধিনায়ক সাকিব আল হাসানেরও তাই মনে হচ্ছে। ফাইনাল শেষে রাতে সংবাদ সম্মেলনে সাকিবের অকপট স্বীকারোক্তি, ‘আমার ক্যাচ মিসটাই ভুগিয়েছে। বোলিং সেভাবে ভালো করতে পারিনি। গেইলের ব্যাটিং ঠেকাতে আমরা ভালো জায়গায় যথেষ্ঠ পরিমাণে বল ফেলতে পারিনি। হয়তো বা আরও এক দুইটা সুযোগটা পেলে কিছু করতে পারতাম; কিন্তু সে সুযোগটা আর আসেনি।

এবারের বিপিএলে সর্বাধিক ২২ উইকেট তার; কিন্তু আজ সেই সাকিব চার ওভারের কোটা পূর্ণ করেননি। এক ওভার বাকি ছিল। তা নিয়ে খেলা শেষে অনেক কথা। কেন সাকিব চার ওভারের কোটা পূর্ণ করলেন না?

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনেও উঠলো সেই প্রশ্ন। সাকিবের ব্যাখ্যা, ‘গেইল আউট হলে অবশ্যই করতে পারতাম। গেইল যতক্ষণ ছিল ওই সময় আমার বল করা ডিফিকাল্ট। যেহেতু আমি লেফট আর্ম স্পিনার। ওর অন্য খুব ইজি। সে জন্য শেষ ওভার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে, যেটা আমার করতেই হতো।’

আগের দুই ম্যাচে রংপুর রাইডার্সের দুই ব্যাটসম্যান গেইল আর জনসন চার্লস একজোড়া শতরান করেছেন। ব্রেন্ডন ম্যাককালামও আগের ম্যাচে দারুণ খেলেছেন। প্রতিপক্ষের তিন টপ অর্ডার রানে ফেরার পরও টস জিতে আগে ব্যাটিং না নিয়ে রংপুরকে আগে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানানো কি ঠিক হয়েছে?

সাকিবের ব্যাখা, ‘শিশির একটা ফ্যাক্টর ছিল। কারণ পরে বল করলে শিশিরে বল ভিজে যায়। বোলারদের সমস্যা হয়। আর সিদ্ধান্তটা সঠিক না ভুল, তা এক কথায় বলা কঠিন। কারণ ওই সময়ে গেইলের ক্যাচ ধরতে পারলে রান ১৩০-১৪০ এর বেশি হতো না। কারণ উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য অতটা সহজ ছিল না। যেহেতু আমরা অনেক ব্যাটসম্যান নিয়ে খেলেছি, আমাদের বিশ্বাস ছিল রংপুরকে ১৫০-১৬০-এ আটকে রাখতে পারলে আমাদের কাজটা খুব কঠিন হবে না। কারণ, ওদের বোলিং অ্যাটক তেমন ভালো না, আমরা ওই রান করতে পারব, এই বিশ্বাস ছিল।’

এআরবি/আইএইচএস/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :